পাতা:বঙ্গদর্শন-প্রথম খন্ড.djvu/৭৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


श्ञश्च *x, ८च`५ १२१न् ।) জন্মমাখা সন্ন্যাসীঠাকুর জটা এলইরা, চিত হইয় গুইয়া আছেন। কোথাওঁ, উৰ্দ্ধবাহু देिख शङ फेरु कबिल्ल, जर्डवाडौब्र मानो মহলে ঔষধ বিতরণ করিতেছে। কোথাও শ্বেতশ্নশ্রুবিশিষ্ট, গৈরিক বসনধারী ব্রহ্মচারী রুদ্রাক্ষ মালা দোলাইয়া, নাগরী অক্ষরে হাতে লেখা ভগবদগীতা পাঠ করিতেছেন। কোথাও, কোন উদরপরায়ণ সাধু দ্বি-ময়দার পরিমাণ লইয়া, গগুগোল বাধাইতেছে। কোথাও, বৈরাগীর দল শুষ্ককণ্ঠে তুলসীর মালা অঁাটিয়া, কপাল জুড়িয়া তিলক করিয়া মৃদঙ্গ বাজাইতেছে, মাতায় আৰ্শফল নাড়িতেছে, এবং নাসিক দোলাইয়া “কথা কইতে যে পেলেম না,—দাদা বলাই সঙ্গে ছিল—কথা কইতে যে’ বলিয়া কীৰ্ত্তন করিতেছে । কোথাও, বৈষ্ণবীর। বৈরাগীরঞ্জন রস-কলি কাটিয়া, খঞ্জনীর তালে, মধে। কানের কি গোবিন্দ অধিকারীর গীত গাইতেছে। কোথাও কিশোরবয়স্ক নবীনা বৈষ্ণবী প্রাচীনার সঙ্গে গায়িতেছে, কোথাও অদ্ধবয়সী বুড়া ৰৈরাগীর সঙ্গে গলা মিলাইতেছে ; নাট মন্দিরের মাঝখানে পাড়ার নিষ্কৰ্ম্মী ছেলেরা লড়াই, ঝকড়া, মারামারি করিতেছে এবং পরম্পর মাতা পিতার উদ্দেশে নামা প্রকার সুসভ্য গালাগালি করিতেছে । এই তিনটি, তিন মহল সদর । এই তিন মন্থলের পশ্চাতে তিন মহল অন্দর। কাছারী বাড়ীর পশ্চাতে ষে অঙ্গর মহল, তাহ লগেঞ্জের লিঙ্ক ব্যবহার্ব্য। তন্মধ্যে কেবল তিনি, প্তাহান্ন ভাৰ্য্য, ও তাছাদে নিজ পৰিচৰ্যায় निंदूक बनौलो अंकिङ ७वश्। रुँझोठनब्र বিষবৃক্ষ । ఆన নিজ ব্যবহার্য্য দ্রব্য সামগ্ৰী থাকিত । এই মহল নুতন, নগেন্দ্রের নিজের প্রস্তুত ; এবং তাহার নিৰ্ম্মাণ অতি পরিপাটি। তাহার পাশে পূজার বাড়ীর পশ্চাতে সাবেক অন্দর। তাই পুরাতন, কুনিৰ্ম্মিত ; ঘর সকল অনুচ্চ, ক্ষুদ্র এবং অপরিস্কার। এই পুরী বহুসংখ্যক আত্মীয় কুটুম্বকন্যা, মালী মাসীত ভগিনী, পিলী পিসাত ভগিনী, বিধবা মাসী, সধবা ভাগিনেয়ী, পির্মীত ভায়ের স্ত্রী, মাসীত ভায়ের মেয়ে, ইত্যাদি নানাবিধ কুটুম্বিনীতে কাকসমাকুল বট বৃক্ষের ন্যায় দিব। রাত্রি কল কল কবিত। এবং অসুক্ষণ নানা প্রকার চীৎকার, হাস্য পরিহাস, কলহ, কুতর্ক, গল্প, পরমিনী, বালকের হুড়াছড়া, বালিকার রোদন, “জঙ্গ আন,” “কাপড় দে,” “রাধলে না,” “ছেলে । থায় নাই,” “দুধ কই” ইত্যাদি শব্দে সংস্কুদ্ধ সাগরবৎ শদিত হইত। তাছার পাশে, ঠাকুর বাড়ীর পশ্চাতে রন্ধনশালা । সেখানে আরো জাক। কোথাও কোন পাচিক ভাতের হাড়িতে জাল দিয়া, পা গোটা করিয়া, প্রতিবাসীর সঙ্গে তাই'র ছেলের বিবাহের | ঘটার গল্প করিতেছে। কোন পাচিক ৰ কাচ কাঠে ফু দিতে দিতে ধুয়ায় বিগলিতলোচনা হইয়া, বাড়ীর গোমস্তার নিধী। করিতেছেনঃ এবং সে যে টাকা চুরি করিবার মানসেই ভিজা কাট কাটাইয়াছে, তদ্বিযয়ে বহুবিধ প্রমাণ প্রয়োগ করিতেছে । কোন সুন্দরী তপ্ত তৈলে মাছ দিল্প চক্ষু মুদিন দশনী बगैौ दिकछे कब्रिब्रां, बूंषष्ठनि कब्रिग्न अदहन, কেমন গুপ্ত তেল ছিটকাইয় তাহার গায়ে লাগিয়াছে। কেহ বা স্নানকালে স্বল্পতৈলাক্ত,