পাতা:বঙ্গদর্শন-প্রথম খন্ড.djvu/৭৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


행g է যে সকল জীব পূৰ্ব্বে স্বেদজ” অথবা “মলজ” অথবা “স্বতঃস্থষ্ট” বলিয়া সপ্রমাণ হইয়াছে। যদি জীব ভিন্ন জীবোৎপত্তি নাই, তবে প্রথম জীব জন্সিল কি প্রকারে ? পূৰ্ব্বে জীব ছিল ন, পরে জীব আসিল কোথা হইতে ? * এ প্রশ্নের উত্তরে অনেকে বলেন, “ঈশ্বরের ইচ্ছ।” এই কথা, সকলে উত্তর বলিয়া গ্রাহ্য করেন না । তাহারা বলেন, “ঈশ্বরের ইচ্ছা মানি - কিন্তু ঈশ্বরের ইচ্ছ मिङ्गरम श्रृं•िष्ठ । निम्नम छिझ बैज्ञी क्लिग्न কোথাও দেখা যায় না । জগদীশ্বর, সকল কাৰ্য্যই চির প্রচলিত, অলঙ্ঘ্য নিয়মের দ্বারা সম্পন্ন করেন, নিয়মবিরুদ্ধ কোন কাৰ্য্য করেন नां । ॐौद হইতে জীবের छद्म यद्धे मिब्रभ ; তবে বিনা জীবে জীব হইল কি প্রকারে ?” উল্কাপিও যে বিনষ্ট গ্রহের ভগ্নাংশ, এই কথা মনে করিয়া, সর উইলিয়ম টম্সন প্রাগুক্ত প্রশ্নের উত্তর দিয়াছেন। তিনি কহেন যে, “অনেক উল্কাপিও বীজবাহী । অন্য গ্ৰহ হইতে বীজ আনিয়া এই পৃথিবীতে বপন করিয়াছে * তিনি বলিয়াছেন, “পৃথিবীতে জীবের স্বাক্ট হইল কি প্রকারে ? পৃথিবীর ভূতপূৰ্ব্ব বৃত্তান্ত অনুসন্ধান করিতে কৰুিত্তপ্রকাশ পাৱ i যে, এক কালে পৃথিবী অগ্নি-দ্রব্য, তাপলোহিত গোলকমাত্র ছিল, তদুপরি জীবের অধিষ্ঠান সম্ভবে না। অতএব যখন পৃথিবী ७4यरम जैौवांशिर्डांन-cषांशा इद्देण, ठथन তদুপরি যে কোন জীব ছিল না,ইহা নিশ্চিত। তখন পৰ্ব্বত, জল, ৰায়ু ইত্যাদি ছিল ; স্থৰ্য্য তাবৎকে সত্তপ্ত এবং আলোকোছেল করিতেন, বিজ্ঞান-কৌতুক !) (षश्च श्ब, :०३, s११= । স্বনৰী উদানবৎ হইবার উপযুক্ত, চষ্টয়াছিল। তখন কি, কেবল ঈশ্বরের আজ্ঞা পাষ্টয়া, আপন হইতে বৃক্ষ, পুষ্প, তৃণাদি, একেবারে পূর্ণ শোভা ধারণ করিয়া উঠিয়া, ছিল ? না, উপ্ত বীজ হইতে উৎপন্ন হইয়া বৃক্ষাদি ক্রমে পৃথিবী ব্যাপ্ত করিয়াছিল ? এই প্রশ্নের উত্তরে সর উইলিয়ম, আগ্নেয় পৰ্ব্বতের উদাহরণ দিয়া বলিয়াছেন যে, "বিসিউবিয়স বা এটন পৰ্ব্বত-নিঃস্থত অগ্নিদ্রব পদার্থের স্রোত তৎ-সামুবাহী হইয়া নামিলে অচিরাৎ তাহ শীতল হইয়। জমিয়া যায়। কতিপয় সপ্তাহ বা বৎসর পরে, অন্য স্থান হইতে বায়াদি-বাহিত ডিম্ব এবং বীজের কারণ, অথবা অন্য স্থান হইতে স্বয়মাগত জীবের প্রসাদে, তাছা বৃক্ষ জীবাদিতে পরিপূরিত হয় । যখন আমরা দেখি যে, সমুদ্র মধ্যে অগ্নিবিপ্লব সমুৎপন্ন কোন দ্বীপ, কতিপয় বৰ্যমধ্যে বৃক্ষণদিতে সমাচ্ছন্ন হইয়াছে, তখন তাহা যে বায়ুবাহিত, বা জলচর জীবাদি দ্বারা আনীত বীজ ইষ্টতে ঐরুপ হইয়াছে, এ প্রকার সিদ্ধাস্ত করিতে পর্যন্মুখ হই না।” তিনি বলেন যে, পৃথিবীতে সেইরূপ জীব-সর্গ। আকাশে, লক্ষ লক্ষ সুৰ্য্য, গ্ৰহ, উপগ্রহাদি অনবরত বিচরণ করিতেছে। যদি সমুদ্রমধ্যে লক্ষ লক্ষ জাহাজ, সহস্ৰ, বৎসর বিন লাবিকে বিচরণ করে, তবে অবশ্য মধ্যে মধ্যে জাহাজে জাহাজে জাম্বাত হইবে। আকাশ-সমুত্রেও তক্ষপ, পৃথিবীতে পৃথিবীতে কখন কখন অবশ্য গ্ৰহত হইবে । - হইলে, তৎক্ষণাৎ প্রঘাত-জনিত তাপে গ্ৰছত &श्iङ्गि षषिकfश् चड् इेश्वत्र शखबिंबां, മ്മ്ജ=ത്ത്