পাতা:বঙ্গের জাতীয় ইতিহাস (কায়স্থ কাণ্ড, প্রথমাংশ, রাজন্য কাণ্ড).djvu/৮৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

चां१ि कांबश्-ब्रांबदश्नं । ] ज्ञांजक-कोषु ፃቈ ইহলোক পরিত্যাগ করুেন। তাহার তিরোধানের বহু পরেও ষে বীরপ্রস্থ কোদোদ-মণ্ডল নিজ স্বাধীনতা রক্ষণ ਵਿਚ সমর্থ হইয়াছিলেন মধামরাজের তাম্রশাসন হইতেই তাছা প্রমাণিত হইয়াছে। মহারাজ শশাঙ্কদেবের উৎ হে রাঢ় ও বঙ্গের অন্তর্বাণিজ্য এবং নানাবিধ শিল্পকলার যথেষ্ট ਅਾਂ ` হইয়াছিল। তাহার রাজ্যে দস্বাভয় বা চৌরভয় না থাকায় विमर्शिन রাজ্যমধ্যে নানাবিধ শস্ত ও ফলমূলাদি প্রচুর পরিমাণে হওয়ায় এবং তৎকালে এখানকার জলবায়ু অতিশয় স্বাস্থ্যকর থাকায় এই স্থান ধনজনে পরিপূর্ণ হইয়াছিল এবং সম্পত্তিশালী ধনকুবেরগণের বাসস্থান বলিয়া প্রসিদ্ধিলাভ করিয়াছিল। তৎকালে সুদুর চীন, সিংহল ও ভারত-মহাসাগরীয় দ্বীপপুঞ্জের সহিত ইহার রাজনৈতিক, ধৰ্ম্মনৈতিক ও বাণিজ্যবিষয়ক যথেষ্ট সম্বন্ধ ছিল। ভাগীরথীতটস্থ কর্ণসুবর্ণ রাজধানী হইতে বরাবর সমুদ্র পর্য্যস্ত জলপথে গমনাগমনের সুবিধা ছিল। তৎকালে সপ্তগ্রামত্রিবেণী এখানকার সামুদ্রিক বাণিজ্যের প্রধান কেন্দ্র বলিয়া পরিচিত ছিল। এতদ্ব্যতীত রাঢ়বঙ্গের সহিত নানাস্থানের অন্তর্বাণিজ্যের স্ববিধ করিবার জন্ত মুর্শিদাবাদ, বদ্ধমান ও হুগলী জেলায় অনেকগুলি ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র নদীর সহিত সম্মিলিত ‘কাণসোণার খাল’ নামে কতকগুলি খাল বিদ্যমান ছিল, এখনও হুগলী জেলার নানাস্থানে ‘কাণসোণা' খালের নিদর্শন দেখিতে পাওয়া যায়। অধুনা সেই সকল প্রাচীন, খালের অধিকাংশই মজিয়া গিয়াছে। যেখানে যেখানে অস্থাপি কাণসোণ-খাল বা তাহার গর্ভ বিজ্ঞান, তাহার দুই পার্শ্বে এক সময়ে বহুলোকের বসতিস্থান এবং বহু শস্তশালিনী ভূমি শোভিত ছিল, তাহার প্রমাণের অভাব নাই। কাণসোণীর খালগুলি অনেকে মহারাজ শশাঙ্কদেবের কীৰ্ত্তি বলিয়া মনে করেন। এমন কি ১৭৫৫ খৃঃ অব্দের মানচিত্রে পুরাতন দামোদর নদী কাণসোণ নামে BBB BB S BB BBB BBDD DBBBBB B BBBB BBBBBS BBB BBB উলুবেড়িয়ার নিকট যে কাণসোণার খাল আছে, অনেকে তাহাকে দামোদরের প্রাচীন গর্ত বলিয়া মনে করেন। এতদ্ভিন্ন মহারাজ শশাঙ্ক শেষ দশায় বৈতরণীতীরে প্রোক্ত বেগুসাগর, ও খিচিঙ্গের নিকট যেখানে অবস্থান করিতেন, সেই বেণুলাগরের কএক মাইল দূরে অজ্ঞাপি সোণপোসী ও রাঙ্গামাটী নামক গ্রাম বৰ্ত্তমান । - দেববংশের অধিকারকালে অন্তর্বাণিজ্যের স্ববিধার জন্ত যেরূপ বহু স্থানে খাল কাটা হইয়াছিল, সেইরূপ নানাস্থানে বৃহৎ বৃহৎ বহু জলাশয়ও খনিত হইয়াছিল p এই সকল সরোবরের মধ্যে মেদিনীপুর জেলায় বর্তমান দাতনের নিকট শশাঙ্কণীবি সবিশেষ উল্লেখযোগ্য। এরূপ বৃহৎ দীঘী রাঢ়দেশের ভিতর আর কোথায়ও দৃষ্ট হয় না। বর্তমান বৰ্দ্ধমান সহরের নিকট যে কাঞ্চননগর নামক স্থান আছে, কেহ কেহ মনে করেন, এখানেও শশাঙ্কদেব কিছুকাল অবস্থান করিয়াছিলেন। এই কাঞ্চন-নগরের নিকট দামোদরের অপর পারে (**) Col. Gastrell’s Revenue Survey Report of Bankura, 3e