পাতা:বঙ্গের জাতীয় ইতিহাস (কায়স্থ কাণ্ড, ষষ্ঠাংশ, দক্ষিণরাঢ়ীয় কায়স্থ কাণ্ড, প্রথম খণ্ড).djvu/৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


( ۰ له ) বিভিন্ন গোত্রের বল্লালী কুলীন ও ১ম মেলী কুলীনগণের মধ্যে ৭ম হইতে ১১শ পুরুষ হইতেছে, কিন্তু দক্ষিণরাঢ়ীয় কায়স্থকুলপঞ্জিকায় দক্ষিণরাঢ়ীয় কায়স্থ-কুলীনগণের মধ্যে বল্লালী কুলীন হইতে পুরনারী ১ম একজাই বা মেল পৰ্য্যন্ত সৰ্ব্বত্র ৮ পুরুষ পাইতেছি।" আবার দক্ষিণ-রাট্রীয় কায়স্থকারিকায় বনুবংশে ৫ম, ঘোষবংশে ৬ষ্ঠ এবং মিত্রবংশে ৯ম পৰ্য্যায়ে বল্লালী কৌলীম্ভের কথা আছে, অথচ পুরন্দর খানের সময়ে উক্ত তিন বংশেরই ১৩শ পর্য্যায় হইয়াছিল বলা হইয়াছে, তাহাই বা কিরূপে সম্ভব ? সুতরাং স্বীকার করিতে হইবে দক্ষিণরাঢ়ীয় কায়স্থকুলপঞ্জিকায় মহারাজ বল্লালসেনের পরবর্তী ও পুরন্দরের পূর্ববর্তী যে বংশাবলী দেওয়া আছে, তাহা সব बैिंक नएश्। কুলপঞ্জিকাসমূহ হইতে জানিতে পারি মহামতি পুরনার খানের যত্নে তাহার সভা হইতে দক্ষিণরাঢ়ীয় কায়স্থসমাজে রীতিমত অংশ ও বংশ লিপিবদ্ধ করিবার প্রথা প্রবত্তিত হইয়াছিল। বলিতে কি পুরন্দর খানের সময়ে দেবীবর প্রমুখ রাঢ়ীয় ব্রাহ্মণ কুলাচাৰ্য্যগণই সৰ্ব্বেসৰ্ব্ব৷ ছিলেন, তাহদের পরামর্শ বা উপদেশ লইয়া গোড়াধিকারী পুরন্দর দক্ষিণরাঢ়ীয় কুলবিধি সংস্কারে প্রবৃত্ত হইয়াছিলেন। তিনি মহারাজ বল্লালের স্তায় প্রধানতঃ কতকগুলি রাঢ়ীয় ব্রাহ্মণ ও কয়েকজন কায়স্থকে কুলাচাৰ্য্যপদে নিয়োগ করিয়া কুলপঞ্জিকা রক্ষার ব্যবস্থা করেন। র্তাহার এই মহাকার্য্যের জন্ত তিনি ২য় বল্লাল বা দক্ষিণরাঢ়ীয় কায়স্থ-সমাজের কুলবিধাতা বলিয়া পরিচিত হইয়াছেন । রাঢ়ীয় ব্রাহ্মণ প্রভাবের কথা পূৰ্ব্বেই লিখিয়াছি। রাঢ়ীয় ব্রাহ্মণ-কুলাচাৰ্য্য ও তদনুব কায়স্থ কুলজ্ঞগণ পুরন্দরের সময় হইতে অংশবংশ যথাযথ লিপিবদ্ধ করিয়া আসিলেও দক্ষিণরাঢ়ীয় কায়স্থসমাজের পূৰ্ব্বতন কুলকথা ও পূর্ববংশপরিচয় দেবীবরের অনুবর্তী হইয়া উল্টাইয়া ফেলেন, সেই পূৰ্ব্বতন সমাজের অতীত ক্ষীণ স্মৃতি জিজ্ঞাসার পুথিতে কিছু পাইতেছি। মহারাজ বল্লালসেন কোন স্থান হইতে সৰ্ব্বপ্রথম কৌলীন্তমৰ্য্যাদা প্রদান করেন, পূৰ্ব্বে তাহার ঠিক সন্ধান পাওয়া যায় নাই। আমাদের আলোচ্য গ্রন্থের ৮• পৃষ্ঠ মুদ্রিত হইবার পর ইদিলপুরের কুলাচাৰ্য্য লক্ষ্মীকান্ত শৰ্ম্মার সংগৃহীত তালপত্রের পুথির নকল হইতে সেই অবগু জ্ঞাতব্য কুলস্থানের সন্ধান পাইয়াছি।’ সেই কুলস্থানের নাম হইতেছে কঙ্কগ্রাম । এই কঙ্কগ্রামই রাঢ়ে সেনবংশের আদি কুলস্থান। মহারাজ বল্লাল এখানে বসু, ঘোষ, ও মিত্রকে আনাইয়া প্রতিষ্ঠিত করেন। মহম্মদ-ই-বখতিয়ারের নদীয়-বিজয় ও মহারাজ লক্ষ্মণের পূর্ববঙ্গে প্রস্থানের পর অনেক (২) বঙ্গের জাতীয় ইতিহাস, ব্ৰাহ্মণকাণ্ড, ১মাংশ, ১৯৭-২•• পৃষ্ঠা দ্রষ্টব্য। (৩) দক্ষিণরাঢ়ীয় কায়স্থকাও, ১ম খণ্ড ১১৬ হইতে ১২১ পৃষ্ঠা দ্রষ্টব্য । (৪) ত্রযুক্ত উপেন্দ্রচন্দ্র মিত্র শাস্ত্রী মহাশয় উক্ত পুথির নকল দেখিতে দিয়া আমাকে কৃতজ্ঞতা পাশে জীবদ্ধ করিয়াছেন ।