পাতা:বঙ্গের জাতীয় ইতিহাস (বৈশ্য কাণ্ড, প্রথমাংশ).djvu/১৯৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


১৯২ বঙ্গের জাতীয় ইতিহাস গুৈ-কাণ্ড । র্তাহীদের অভু্যদয়ের অনুকূল ছিলেন, কিন্তু মৌর্য্য, অশোকবৰ্দ্ধন যখন বৌদ্ধধৰ্ম্মগ্রহণ ও ‘ক্ষত্রিয় ৬ বলিয়। স্বয়ং পরিচিত হইতেছিলেন, তৎকালে তিনি যবন জাতীয় তুষাম্পনামক আপনার এক খালককে এখানে নিজ প্রতিনিধিস্বরূপ প্রতিষ্ঠিত করিয়া বৈশ্বাসমাজের অভু্যদয়মাগ কণ্টকিত করিয়াছিলেন । + মৌর্য্যবংশের অবসানে দাক্ষিণাত্যে অন্ধু ভৃত্য বা সাতবাহনবংশ ও পল্লববংশ প্রবল इहेर्लन, র্তাহীদের উদীয়মান প্রবল প্রতাপ লক্ষ্য করিয়া এখানকার বৈশ্যসমাজ রাজ্যশাসনাশ পরিত্যাগ করিতে বাধ্য হইলেন, বরং তাহার এ সময়ে ধনবল বৃদ্ধির জঙ্গ বৈদেশিক বাণিজ্য লইয়া বিব্রত হইয়া পড়িলেন। এদিকে বৈশ্বসমাজের ঔদাসীপ্ত লক্ষ্য করিয়া প্রথমে ‘যবন এবং তৎপরে শকক্ষত্রপগণ ধীরে ধীরে শোন্ধিকগণের লীলাস্থলী সৌরাষ্ট্রপ্রদেশে আধিপত্য বিস্তার করিলেন। শৌক্ষিকগণ মহারাষ্ট্রের নানা স্থানে ছড়াইয়া পড়িলেন। 够 খৃষ্টীয় চতুর্থ শতাদের প্রারস্তুে মগধে বৈশ্য গুপ্তবংশের অভু্যদয় হইল। তাহীদের শৌর্ষ বীৰ্য্যপ্রভাবে কেবল উত্তরভারত বলিয়া নহে, খৃষ্টীয় ৪র্থ শতাব্দীর শেষভাগে পশ্চিম-ভারত হইতে শকশক্তি পৰ্য্যন্ত বিধবস্ত হঠয়াছিল। অল্পদিন মধ্যেই সমস্ত ভারতে গুপ্তাধিপত্য বিস্তারের সহিত বৈশ্যপ্রাধান্য প্রতিষ্ঠিত হয়। এই সময়ে বৈশ্য শৌন্ধিকবংশ ধীরে ধীরে শক্তিসঞ্চয় করিয়া মহারাষ্ট্রে আধিপত্য স্থাপনে অগ্রসর হটলেন ; স্কন্দগুপ্তের সময় যখন পুষ্যমিত্র ও তৃণগণের প্রবল আক্রমণে আর্য্যাবৰ্বের গুপ্তসাম্রাক্য হত শ্ৰী হইতেছিল, পূর্বেই লিখিয়াছি, তৎকালে অযোধ্য-অঞ্চলে গুপ্তসাম্রাজ্যের রাজধানী ছিল । সেই অযোধ্য। লক্ষ্য করিয়াই কোন কোন প্রাচীন চালুক্যশাসনে অযোধ্যা হইতে এই বংশের আগমনকাহিনী লিপিবদ্ধ হইয়া থাকিবে । - কিরূপে দাক্ষিণাত্য চালুক্যবংশ ৰিস্তৃত হইল, এ সম্বন্ধে সার ওয়ালটর ইলিয়ট সাহেব এইরূপ লিখিয়াছেন

  • व्रएलांकांवघtन झठेषा । -

+ Archæological Survey of Western India, Vol. II, p. 128 and indian Antiquary, Vol. VII, p. 257.

অশোকের সময় ইষ্টতে 'শুষ্ক বংশের অভু্যদর ‘অগ্নিকুল প্রসঙ্গে তাহ বিস্তৃত হইয়াছে। ञांनté दt tगोब्रांtछेहे “ཁུ་ན་༡༢ প্রথম আধিপত্য বিস্তার করেন, তাহ অগ্নিকুলের উৎপত্তি প্রবাদ ও বোম্বাই হইতে প্রকাশিত ভবিষ্যপুরাণ পাঠ করিলে জানা যায় ।