পাতা:বঙ্গের জাতীয় ইতিহাস (বৈশ্য কাণ্ড, প্রথমাংশ).djvu/২৪০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বঙ্গের জাতীয় ইতিহাস ( <છ ર’૭ مربع با আর ক্ষত্রিয় নাই, যে কয় ঘর ক্ষত্রিয়বংশধর আছে, তাহারা সকলেই বৃষলৰ প্রাপ্ত হইয়াছে । মৌর্য্যবংশধ্বংস এবং পুষ্যমিত্র প্রমুখ ব্রাহ্মণবংশের অভু্যদয় কালে “নন্দন্তং ক্ষত্রিয়কুলং” প্রভৃতি নিঃক্ষত্রিয়জ্ঞাপক যে সকল শ্লোক রচিত ও শাস্ত্রনিবন্ধমধ্যে গ্রথিত হইয়াছিল, এখন শাস্ত্রজ্ঞ অধ্যাপকগণের মুখে সেই সকল কল্পিত শ্লোক আবার শোভা পাইতে লাগিল। মুসলমান আধিপত্য যতই স্বপ্রতিষ্ঠিত হইতেছিল, ততই হিন্দুসমাজ শাস্ত্রনিষ্ঠ ব্রাহ্মণ-সমাজের মুখাপেক্ষী হইয় পড়িতেছিলেন। এ অবস্থায় ভূদেবগণের ক্রমুখনিঃস্থত বচনাবলি সাধারণে বেদবাক্যৰৎ অপৌরুষেয় ও অমোঘ বলিয়া যে গ্রহণ করিবে, তাহাতে কি আর সংশয় থাকিতে পারে ? খৃষ্টীয় ১৩শ শতাব্দীতে গোঁড়বঙ্গের পল্লীবাসী ব্রাহ্মণগণের সারস্বত-মন্দিরে ক্ষত্ৰিয়বৈশ্ববিধ্বংসী যে সকল সংস্কৃত বচন নিনাদিত হইতেছিল, পরবর্তী কালে স্মাৰ্ত্ত রঘুনন্দন, বাচস্পতিমিশ্র, ভরতমল্লিক প্রভৃতির গ্রন্থে সেই সকল বচন উদ্ধত হইয়াছে, সাধারণের কৌতুহল পরিতৃপ্তির জন্য টাকায় সেই সকল বচন উদ্ধৃত হইল। এই সকল বচনের অর্থ এইরূপ— শনৈ: শনৈ: ক্রিয়ালোপ ও ব্রাহ্মণ বা বেদ-তাদর্শন অর্থাৎ পঠন ও পাঠনে অসমর্থ হেতু এই সকল ক্ষত্রিয় জাতি বুধলত্ব প্রাপ্ত হইয়াছে। সুতরাং এক্ষণে ক্ষত্রিয় ও বৈশ্ব উভয় বণই শুদ্রসমান হইয় পড়িয়ছে। বলিতে কি এই জঘন্য কলিযুগে প্রকৃত প্রস্তাবে ব্রাহ্মণ ও শূদ্র এই দুইটি মাত্র জাতি বর্তমান। যাহার নামমাত্র ক্ষত্রিয় বা বৈশ্ব বলিয়া পরিচিত, তাহাদিগকে আর দ্বিজাতি বলা যায় না । পুৰ্ব্বকালে যেরূপ শূদ্রের পক্ষে সন্ন্যাস বা ভিক্ষুধৰ্ম্ম নিষিদ্ধ ছিল, এক্ষণে

  • ( ১ ) “শনকৈন্তু ক্রিয়ালোপাদিমাঃ ক্ষত্রিরজাতয়: ।

বুফলস্বং গভী লোকে ব্রাহ্মণদর্শনেন চ ॥* ( মার্ক রঘুনন্দনের সংস্কার তত্বধৃত মধুবচন ) ( ২ ) “শনৈ: শনৈঃ ক্রিয়ালোপাথ তা বৈষ্কজাতয়: । কলে শূত্ৰসম জ্ঞেরা ৰখা ক্ষয়া ৰথা ৰিশ । ইতি বিষ্ণু । যুগে জঘৱে ৰে জাতী ব্রাহ্মণ শূদ্র এব চেতি যম । শনকৈন্তু ক্লিয়ালোপালিমা; ক্ষত্রিয়ঙ্গতিয়: ॥” BB BBBBB BB BBDDDtttBB BB BBBBB BBBBB BBBBtBBBBG শুদ্ধিস্তৰে স্মার্ভভট্টাচার্য্যেণাপুৰুং ।’ ( ভরতমল্লিকের চজ প্রভাশ্বত )