পাতা:বঙ্গের জাতীয় ইতিহাস (বৈশ্য কাণ্ড, প্রথমাংশ).djvu/৬৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ぐり3 गटत्रद्र झांउँीझ हैङिशं न [ :૧૪-૧ા૭ । আর একদল চীনবীর আসিয়া এখানকার বণিক উপনিবেশ বিধ্বস্ত করিয়া যান। এই সময় লঙ-য ও চি-মে পরিত্যাগ করিয়া হিন্দু বণিকেরা কেই-কি ও তুঙ-যেহ, বন্দরে আসিয়া সপরিবারে আশ্রয় গ্রহণ করিতে বাধ্য হইয়াছিলেন । আড়াই শত বর্ষের অধিককাল তাহার পুরুষ-পরম্পরায় উক্ত স্থানেই মুখস্বচ্ছন্দে বাস করিয়াছিলেন। তৎপরে ২•৭ খৃষ্টপূর্বাদে ঐ সকল স্থানও চীনসাম্রাজ্যভুক্ত হইয়াছিল। এই সময় হইতে চীনরাজপুরুষগণ ভারতীয় বণিকগণকে অতিবিদ্বেষের চক্ষে দেখিতে লাগিলেন। হিন্দুগণের অর্থশোষণের জন্যও তাহার নান কৌশল অবলম্বন করিতেছিলেন। তৎপরে ১৪• হইতে ১১০ খৃষ্টপূৰ্ব্বাদ মধ্যে ত্রিংশৎবর্ষব্যাপী অস্তবিপ্লবে এই স্থান এক কালেই উৎসাদিত ও দুর্দশার চরম সীমায় পতিত হইয়াছিল ; মানসন্ত্রম ও আত্মরক্ষার্থ হিন্দু বণিককুল সকলেই চীনাধিকার পরিত্যাগ করিয়া প্রশান্ত-মহাসাগরের উপকূলে হিন্দুরাজশাসিত অল্পম বা কম্বোজ-রাজ্যে আসিয়া বাস করিতে লাগিলেন। # চীনবিজয়কাহিনী হইতে আরও জানা যায় যে চীনপতি হিন্দুৰণিকদিগকে পরাজয় করিয়া ৪৭২ খৃষ্ট-পূর্ববাব্দে লঙ-য নামক স্থানেই চীনদেশের বাণিজ্যকেন্দ্র প্রতিষ্ঠিত করিয়াছিলেন । সে সময়েও উপনিবেশী হিন্দু বণিকৃগণ চীনপতির বাণিজ্য-শুদ্ধ আদায়ের সুবিধার্থ কতকগুলি অর্ণবপোত ও ২৮০০ নৌ-সেনা দিয়া তাহাকে যথেষ্ট সাহায্য করিতেন । রণপোতে হিন্দু বণিকসৈন্তগণই চীনউপকূলে চীনপতির পক্ষে বাণিজ্যাদির তত্ত্বাবধান করিয়া ঘুরিত। তৎপরেও বহুকাল ভারতীয় বণিকৃগণের হস্তেই চীনের সামুদ্র বাণিজ্য সংস্থাস্ত ছিল। - ভারতীয় বণিকৃগণ চীনদেশে নানাবিধ বাণিজ্যসস্তার প্রচলিত করিয়াছিলেন। চীনের পুরাবৃত্ত হইতে আমরা জানিতে পারি যে খৃষ্টপূর্ব ৪র্থ শতাব্দী (৩২৪ হইতে ৩১৩ খৃষ্টপূর্বাদের মধ্যে ) asbestos, খড়গা, পদ্মরাগ, গজমুক্ত ও নানা প্রকার মুক্ত চীনদেশে আনীত হয় এবং চীনবাসী অতি অভিনব সামগ্ৰী ভাৰিয়া তাহ গ্রহণ করিয়াছিল। ইহার পর খৃষ্টপূর্ব ৩য় শতাব্দে ভারতীয় । বণিকেরাই তখায় ইক্ষুদণ্ড ও ইক্ষুকন সর্বপ্রথম লইয়া গিয়াছিলেন। তৎপূর্ব হইতে এবং তাহার বহু পর পর্য্যন্ত ভারতবর্ষই একমাত্র ইস্কৃৎপাদক ভূভাগ বলিয়া প্রসিদ্ধিলাভ করিয়াছিল।• চীন হইতেই আবার চীনির ( চিনির ) ব্যবহার ভারতে আলিয়া পড়িয়াছে। - - * Western Origin of Chinese Civilisation, pp. 178-181