পাতা:বঙ্গের জাতীয় ইতিহাস (ব্রাহ্মণ কাণ্ড, প্রথমাংশ).djvu/২৯৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


রাষ্ট্ৰীয় ব্রাহ্মণ-বিবরণ ર૧૧ স্থানের নাম শ্ৰীনগর রাখেন। এখানে তিনি অনেক সময় অতিবাহিত করিতেন। এখন শ্ৰীনগরের গড়মাত্র অাছে, সংক্রামক জ্বরে এ স্থান উৎসন্ন হইয়া গিয়াছে।. এ অঞ্চলে প্রবাদ ಇitZ5, রাজা রদ্র ঐ বাটীর তলে কএক লক্ষ টাকা প্রোথিত করিয়া রাখেন। তিনি আপন কোষাধ্যক্ষকে শপথ করাইয়া বলিয়া যান যে, বিপদ ন৷ ঘটিলে উত্তরাধিকারিদিগকে ঐ ধন দেখাইয়া দিবে না। রুদ্রের মৃত্যুর পর তাহার পুত্র খাজাঞ্জাকে টাকা দেখাইয়া দিতে অাঁদেশ করেন, কিন্তু তিনি প্রতিশ্রুতি স্মরণ করিয়া তাহার আদেশ পালনে অসম্মত হন । ইহাতে নিৰ্ব্বোধ রাজপুত্র সেই বিশ্বাসী খাজাঞ্জীকে প্রহার করিতে বলেন, সেই প্রহারেই খাজাঞ্জীর মৃত্যু হয় । অনেকেই ঐ টাকা খুজিয়া বাহির করিবার চেষ্টা করিয়াছিলেন, কিন্তু কাহারও আশা পূর্ণ হয় নাই। রুদ্রের দুই রাণী, জ্যেষ্ঠ রাণীর গর্ভে রামচন্দ্র ও রামজীবন এবং কনিষ্ঠার গর্ভে রামকৃষ্ণের জন্ম হয়। রামচন্দ্র অতিশয় সাহসী ও মৃগয়াস্থরক্ত ছিলেন । রুদ্রের ইচ্ছা ছিল না যে, তাহার ३ङ्घात्र পর রামচন্দ্র উত্তরাধিকারী হয় । তিনি রামজীবনকে জমিদারী দিবার জন্ত বাদশাহের অনুমতি আনাইয়া ছিলেন । কিন্তু তাহার মৃত্যুর পর সুচতুর রামচন্দ্র হুগলীর ফৌজদার ও ঢাকার নবাবের সাহায্যে পৈতৃক জমিদারী অধিকার করিলেন । কিছু দিন পরে রামজীবন অনেক দলবল সংগ্ৰহ করিয়া রামচন্দ্রের হস্ত হইতে জমিদারী উদ্ধার করেন। রামচন্দ্র ও ছাড়িஆ লোক মহেন । তিনি ও পর বর্ষে রামজীবনকে পরাজিত করিয়া জমিদারী জয় করিলেন । কিছুকাল পরে তঁহার মৃত্যু হইলে রামজীবন জমিদারী পাইলেন । তাহার বৈমাত্রেয় ভ্রাত রামকৃষ্ণ নবাবের সহিত কৌশল করিয়া তাহাকে ঢাকায় কারারুদ্ধ ও জমিদারী অধিকার করিলেন। এই রামকৃষ্ণের সময়ে বদ্ধমানে শোভাসিংহের বিদ্রোহ ঘটে। বৰ্দ্ধমানের রাজপুত্রকে রামকৃষ্ণ আশ্রয় দেন । তজ্জন্ত শো • সিংহের ভ্রাতা হেম্মতসিংহ বামকৃষ্ণকে আক্রমণ করিবার জন্ত বহু সৈন্ত সমস্ত পাঠাষ্টয়া ছিলেন । কিন্তু রামকৃষ্ণের তাঁহাতে কোন ক্ষতি হয় নাই। এই সময় বাদশাহের পুত্ৰ আজিমওসান বিদ্রোহদমনের জন্ত বদ্ধমানে আসিয়া উপস্থিত হন। রামকৃষ্ণ মহাসমারোহে গিয় তাহার সহিত সাক্ষাৎ করেন। আজিমওলান্‌ ৰ্তাহাকে আদরের সহিত গ্রহণ করিয়াছিলেন। এখানে থাকিতে থাকিতে র্তাহীর সহিত আজিমওসানের মিত্রতা জন্মে। এই সুযোগে রামকৃষ্ণ জমিদারীর রাজস্ব যথানিয়মে দিতেন না। অবশেষে নবাব কৌশল ক্রমে ঢাকায় লইয়া গিয় তাহাকে ক্লারারুদ্ধ করেন ও তথtয় তাহার মৃত্যু হয় জ্ঞ "রামকৃষ্ণের পর রামজীবন কারামুক্ত হইয়া জমিদারী পাইলেন, কিন্তু কিছু দিন পরেই তিমি ইহলোক পরিত্যাগ করেন । ۔ - ” রামজীবনের তিন পত্নী ও তাহদের গর্ডে ৪টা পুত্র জন্মে। তাহদের মধ্যে দ্বিতীয় পত্নীর গর্ভজাত রঘুরাম সৰ্ব্বাপেক্ষ কার্যদক্ষ ও প্রজারঞ্জক ছিলেন, ”ন মৃত্যুকালে তাহুকেই উত্তরাধিকারী করিয়া যান। রামজীবনের গীতশf রঘুরাম অত্যন্ত সাহসী ও বলবান ছিলেন, সে জন্ত f" হু সময় সবাব মুর্শিদকুলির সহিত রাজশাহীর রাজার যুদ্ধ হয় ঙির*