পাতা:বঙ্গ-সাহিত্য-পরিচয় (দ্বিতীয় খণ্ড).djvu/১৬৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


১১২২ বঙ্গ-সাহিত্য-পরিচয় । শাশুড়ী ননদী মোর সদাই বানায় চোর গৃহপতি ফিরিয়া না চায় । এ বীরহাম্বীর-চিত শ্ৰীনিবাস-অনুগত মজি গেলা কালাটাদ-পায় ৷ যত গোপগণ পূজে গোবৰ্দ্ধন ন কৈল ইন্দ্রের পূজা। পাই অপমান কোপে কম্পবান সাজিলা দেবের রাজা ॥ মহা অহঙ্কারে কৃষ্ণ-নিন্দ করে অজ্ঞানে মোহিত হৈয়া । কহে গোপ-পুরী মহাবৃষ্টি করি আজি ডুবাইব যাঞী। ডাকি মেঘগণে যতেক পবনে আজ্ঞা দিলা সুরপতি । শিলাবৃষ্টি করি ভাঙ্গ ব্ৰজপুরী যাহ যাহ শীঘ্ৰগতি ॥ আপনি তখনে চড়িয়া বাহনে বজহস্তে দেবরাজ। সঙ্গে সেনাগণ ছাইয়া গগন আইল গোকুল-মাঝ ॥ চতুৰ্দ্দিগে মেঘে ধায় বায়ুবেগে দিনে হৈল অন্ধকার । খর বরিষণে বজের ক্ষেপণে ভাঙ্গিল ঘর-কুয়ার ॥ প্রলয়ের হেন বৃষ্টি-ধারা ঘন ঝঞ্চনা চিকুর পড়ে। হাহাকার করি পথাপথ ছাড়ি ব্ৰজবাসী সব নড়ে। পড়িয়া সঙ্কটে কৃষ্ণের নিকটে আইলা গোকুলবাসী। ধেনুগণ যত যুথে যুথে কত দাণ্ডাইল নিকটে আসি ৷ কৃষ্ণ মহামতি গোকুলের পতি কর পরিত্রাণ বোলে। শ্ৰীচৈতন্তদাস করি এহি আশ এবার রাখ গোকুলে ৷ নন্দ আদি গোপগোপী হইলা বিকল । দেখিয়া জানিলা কৃষ্ণ ইন্দ্রে করে বল ॥ এতেক ভাবিয়া কৃষ্ণ নন্দের নন্দন । এক হস্তে তুলিয়া ধরিলা গোবৰ্দ্ধন ॥ কন্দুকের প্রায় গিরি তুলিয়া কৌতুকে। সভারে ডাকেন আন জননী-জনকে ॥ আইস আইস সভে শিশু বৎসগণ লইয়া। এহি গৰ্ত্তে থাক আসি নির্ভয় হইয়া ॥ গোপগণে বলে কৃষ্ণ শুনহে বচন । হাতে হৈতে তোমার যদি পড়ে গোবৰ্দ্ধন ॥ সকল গোকুলপুরী যাবে রসাতলে । কিসে হৈতে রক্ষা তায় পাইবে সকলে ।