পাতা:বঙ্গ-সাহিত্য-পরিচয় (দ্বিতীয় খণ্ড).djvu/৪২৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বিবিধ–বিক্রমাদিত্য-কালিদাস-প্রসঙ্গ—১৭শ শতাব্দীর শেষভাগ । ১৩৭৩ হে পুত্ৰ সৰ্ব্বদা বিদ্যাগুণ পাঠ কৱ। হৃদয়ের তুল্য কর সঙ্কল অক্ষর ॥ কেবল আপন-দেশে রাজা পূজ্যবান। স্বদেশে বিদেশে ৰিস্তাবানের সন্মান ॥ কালিদাস পণ্ডিতের এইরূপে কালিদাস পড়াইতে ছিল। এবং রাজার রাজা পথে যাইতে যাইতে সকল শুনিল ৷ শুনিঞা হইল রাজা জ্বলন্ত পাবক। এখনি করিব দূর কে হবে বাধক ৷ রাজ্যেতে নিবাসী আমা হইতে হয় বড়। দেখি সৰ্ব্বদেশে পূজা কে করে উহার ॥ পুরী হইতে কালিদাসে দূর করে দিল। মনে দুঃখ ভাবি কৰি সত্বরে চলিল । বহু দিন পরে এক রাজ্যে উপনীত । কালিদাস প্রবাসে । এক বিপ্রের বাট হইল উপস্থিত ॥ সেই রাজার পুরীতে এক রাক্ষসী এসেছে। রাজার নিকটে চারি শ্লোক কহিয়াছে। এই সব কথা কেহো কহিবারে পারে। সপুরী সহিত তারে বাচাব সত্বরে ॥ নহে তব রাজ্য-সহ সকলি খাইব । ইহা বলি আপন-বৃত্তান্ত কহে সব ॥ তাহার উত্তর কেহ করিতে নারিল। ঘরে ঘরে এক এক পালা করে দিল ॥ গ্রামের প্রান্তভাগে এক ঘর করিয়াছে। রাক্ষসীর পালা। দিবা-গতে থাকে গৃহে আপন পালা বুঝে ॥ - কালিদাস যে বিপ্রের বাটীতে গিয়াছে। . * সেই দিন সেই দ্বিজের পালা হইয়াছে ॥ - স্ত্রী পুত্র বধূ সহিতে করে ঘর। কে যাবে রাক্ষসীর ঘরে ভাবয়ে অন্তর ॥ শুনি কালিদাস কহে তোমরা থাক ঘরে । তোমাদের হইয়া যাব রাক্ষসী-মন্দিরে ॥ দ্বিজ বলে এই কৰ্ম্মে নরকে যাইব । কবি কহেন ভয় নাই কৰ্ভু না মরিব ৷