পাতা:বঙ্গ-সাহিত্য-পরিচয় (দ্বিতীয় খণ্ড).djvu/৫৪৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কৃষ্ণচন্দ্রীয় যুগ—জয়নারায়ণ সেন–জন্ম ১৮শ শতাব্দীর পূর্বাৰ্দ্ধ। ১৪৯৫ একদিন বিদশার (১) নিশির প্রভাতে। তস্করের সনে দেখা আপন-দ্বারেতে ॥ নাম দিলে মণিপতি সাধুর চাকর। সাধু নাহি ঘরে তেই নারী একেশ্বর। দ্রব্য বিক্ৰী করি করি দিবস যাপয়। রাথ হার তলোয়ার যদি মনে লয় ॥ এ কহিয়া দুই দ্রব্য সমুখে রাখিল। দেখি মহারাজ মুঞি বিস্ময় হইল ॥ দৈবের অঞ্জনে লেপা গিছিল নয়ন। (২) নিতান্ত রাখিব ইহা দৃঢ় কৈল মন ॥ পণ লাগি বাদ-অনুবাদ কতো করে। পচাত্তর হাজারে এ বিষ নিলাম ঘরে ॥ ভোগ দিলাম তারে হেন ভাবিলাম মনে। (৩) না জানি যে মোরে ভোগা দিলে নারায়ণে ॥ ধন্ত ধৰ্ম্ম-অবতার কলিতে রাজন। হেন অপরাধে তন্তু রাখিছ জীবন ॥ ধৰ্ম্ম সাক্ষী করি এই কহিল বৃত্তান্ত । বুঝ এবে সন্ধানেতে যে হয় নিতান্ত ॥ কবি কহে নারায়ণ জগতের পতি। চোর হতে সাধু পুনঃ কৈল ধনপতি ॥ 豪 豪 豪 豪 সাধুর মুক্তি ও পুরস্কার। হেসে রাজা সাধু তরে করিলে প্রসাদ। খিলাত আর সেই হার তলোয়ার পুলাদ (?) ॥ আদেশ হইল তখন বকসির তরে। জিনিসের ফর্দ আনি দেও সদাগরে ॥ (১) বিদশী = দুর্দশ । (২) দৈব-দোষে আমার চক্ষুর ভ্রম উপস্থিত হইয়াছিল। (৩) ভোগা দেওয়া=ঠকান। তাহাকে ঠকাইলাম অর্থাৎ আমিই এই ব্যাপারে জিতিলাম, মনে এই ধারণা হইল।