পাতা:বঙ্গ-সাহিত্য-পরিচয় (দ্বিতীয় খণ্ড).djvu/৬১৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


>Qや、 বঙ্গ-সাহিত্য-পরিচয় । গেল গেল এ বসন্ত-কাল, আসিবে তৎকাল, কালে হল কাল আমার এ যৌবন-কাল, কালপূর্ণ হলে রবে না, প্রবোধ প্রবোধ মানে না, আমি যেন রহিলাম তার আসার আশায় ৷ হায় ষোলকলা পূর্ণ হল যৌবনে আমার, দিনের দিন ক্ষয় হল সই ফল পাব কি তার, কৃষ্ণপক্ষ-প্রতিপদে হয় শশিকল ক্ষয়। শুক্লপক্ষে হয় পুনঃ পূর্ণোদয় ॥ বসন্ত-ঋতু আসি সসৈন্ত ব্রজেতে হইল উদয়। বিরহে ব্যাকুলা হয়ে বৃন্দে কোকিলের প্রতি কেঁদে কয় ॥ প্রাণের কৃষ্ণ ছেড়ে গিয়েছে, কৃষ্ণ-বিরহিণী হয়ে কমলিনী ধূলাতে পড়ে রয়েছে, বাকী ত্রিভঙ্গ-বিহনে, শ্ৰীঅঙ্গ-শ্ৰীহীনে রাই, তারে কি হবে মধুর ধ্বনি শুনালে, সহে না কুহু-স্বর, ক্ষমা দে পিকবর, ডাকি না শ্ৰীকৃষ্ণ বলে। শুন বলি হে নিরদয়। এত রাধার সুখের সময় নয় ॥ প্রাণে মর্বে রাই জালার উপর জালালে, ব্ৰজবাসী সবে ভাসি নয়ন-জলে, হয়ে কৃষ্ণ-শোকে শোকাকুল, গোপ-গোপী-কুল পশু-পক্ষি-কুল, বিরহে সকলে ব্যাকুল, ত্যজে বকুল-মুকুল অধৈৰ্য্য অলিকুল। হে কোকিল এমন সময় কেন এলি গোকুলে,— এমন দুঃখের সময় কেন তুই এলি কুঞ্জে— ব্ৰজনাথ-অভাবে ব্রজে রাই কাতরা অলি কি সুখে তবে বেড়াও ভুঞ্জে । অধীরা ধরাসনে পড়ে রাই চক্ষে জল-ধারা বয়। এমন সময় স্বপক্ষ হও পক্ষী হে বিপক্ষ হওয়া উচিত নয় ॥