পাতা:বঙ্গ-সাহিত্য-পরিচয় (দ্বিতীয় খণ্ড).djvu/৮১৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


প্রাচীন গদ্য-সাহিত্য—রাজ রামমোহন রায়—১৭৭৪-১৮৩৩ খৃঃ । ১৭৫৭ ব্ৰহ্ম অতএব সুতরাং জগৎকারণ ব্ৰহ্ম হয়েন। অথবা শাস্ত্র বেদ সেই বেদে ব্রহ্মের প্রমাণ পাওয়া যাইতেছে যেহেতু বেদের দ্বারা ব্রহ্মের জগৎ-কর্তৃত্ব নিশ্চিত হয়। ৩ বেদ ব্ৰহ্মকে কহেন এবং কৰ্ম্মকেও কহেন তবে সমুদায় বেদ কেবল ব্রহ্মের প্রমাণ কিরূপ হইতে পারেন এই সন্দেহ দুর করিতেছেন। তত্ত্ব, সমন্বয়াং। ৪ ব্রহ্মই কেবল বেদের প্রতিপাদ্য হয়েন সকল বেদের তাৎপৰ্য্য ব্রহ্মে হয় যেহেতু বেদের প্রথমে এবং শেষে আর মধ্যে পুনঃ পুনঃ ব্রহ্ম কথিত হইয়াছেন। সৰ্ব্বে বেদ যৎ পদমামনন্তি ইত্যাদি শ্রুতি ইহার প্রমাণ। কৰ্ম্মকাণ্ডীয় শ্রুতি পরম্পরায় ব্ৰহ্মকেই দেখান। যেহেতু শাস্ত্র বিহিত কৰ্ম্মে প্রবৃত্তি থাকিলে ইতর কৰ্ম্ম হইতে নিবৃত্ত হইয়া শুদ্ধি হয় পশ্চাৎ জ্ঞানের ইচ্ছা জন্মে। ৪। বেদে কহেন সৎ স্বষ্টির পূৰ্ব্বে ছিলে অতএব সৎ শব্দের দ্বারা প্রকৃতির জ্ঞান কেন না হয় এই সন্দেহ দূর করিতেছেন। ইক্ষতেনাশকং। ৫ স্বভাব জগৎ কারণ না হয় যেহেতু শব্দে অর্থাৎ বেদে স্বভাবের জগৎকর্তৃত্ব কহেন নাই সৎ শব্দ যে বেদে কহিয়াছেন তাহার নিত্যধৰ্ম্ম চৈতন্ত্য। কিন্তু স্বভাবের চেতন নাই যেহেতু ইক্ষতি অর্থাৎ স্বষ্টির সঙ্কল্প করা চৈতন্ত অপেক্ষ রাখে সে চৈতন্ত ব্রহ্মের ধৰ্ম্ম হয় প্রকৃতি প্রভৃতির ধৰ্ম্ম নহে। ৫ গৌণশ্চেন্নাত্মশব্দাং। ৬ যেমত তেজের দৃষ্টি এবং জলের দৃষ্টি বেদে গৌণরূপে কহিতেছেন সেইরূপ এখানে প্রকৃতির গৌণ দৃষ্টির অঙ্গীকার করিতে পারা যায় এমত নহে। যেহেতু এই শ্রুতির পরে পরে সকল শ্রুতিতে আত্মা শব্দ চৈতন্তবাচক হয় এমত দেখিতেছি অতএব এই স্থানে ইক্ষণকর্তা কেবল চৈতন্ত স্বরূপ আত্মা হয়েন। ৬। আত্মা শব্দ নানার্থবাচী অতএব এখানে আত্মা শব্দ দ্বারা প্রকৃতি বুঝায় এমত নহে। তন্নিষ্ঠস্ত মোক্ষোপদেশাৎ। ৭ যেহেতু আত্মনিষ্ঠ ব্যক্তির মোক্ষ ফল হয় এইরূপ উপদেশ শ্বেতকেতুর প্রতি শ্রুতিতে দেখা যাইতেছে। আত্মা শব্দ দ্বারা এখানে জড়রূপী প্রকৃতি অভিপ্রায় করহ তবে শ্বেতকেতুর চৈতন্তনিষ্ঠতা না হইয়া জড়নিষ্ঠতা দোষ উপস্থিত হয়। ৭ লোক বৃক্ষশাখাতে কখন আকাশস্থ চন্দ্রকে দেখায়। সেইরূপ সৎশব্দ প্রকৃতিকে কহিয়াও পরম্পরায় ব্ৰহ্মকে কহে এমত না হয়। হেয়ত্ববেচনাচ্চ । ৮া যেহেতু শাখা দ্বারা যে ব্যক্তি চন্দ্র দেখায় সে ব্যক্তি শাখাকে কখন হেয় করিয়া কেবল চন্দ্রকে দেখায় কিন্তু সৎ শব্দেতে কোন মতে হেয়ত্ব করিয়া বেদেতে কখন নাই। স্বত্রে যে শব্দ আছে তাহার দ্বারা অভিপ্রায় এই যে একের অর্থাৎ প্রকৃতির জ্ঞানের দ্বারা অন্তের অর্থাৎ ব্রহ্মের জ্ঞান কিরূপে হইতে পারে। স্বাপায়াৎ। ৯ এবং আত্মাতে জীবের অপায় অর্থাৎ লয় হওয়া বেদে শুনা যাইতেছে প্রকৃতিতে লয়ের শ্রুতি নাই। গতি সামান্তাৎ । ১০ ॥ এইরূপ