পাতা:বঙ্গ-সাহিত্য-পরিচয় (দ্বিতীয় খণ্ড).djvu/৮৬৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


১৮১০ রামপ্রসাদ সেন । নিধুবাবু, হরু ঠাকুর, প্রভৃতি। বঙ্গ-সাহিত্য-পরিচয় । হইতে পারিলে তৎপ্রতি নেত্রনিক্ষেপ করিতে করিতে এমত বিবেচন৷ করিতেছি যেন এই পদ দ্বারা অদ্য ইন্দ্রপদ প্রাপ্ত হইলাম কি শিবপদ প্রাপ্ত হইলাম কি ব্ৰহ্মপদই প্রাপ্ত হইলাম। তৎকালে পূৰ্ব্বকার সকল দুঃখ এক কালেই দূর হইয়া যায় সমুদয় উদ্যোগ সমুদয় যত্ন এবং সমুদয় শ্রম সফল জ্ঞান করিয়া আনন্দ-সাগরে ভাসমান হইতে থাকি। অপিচ সমুদয় প্রকার চেষ্টা দ্বারা তাহ সংগ্ৰহ করিতে না পারিলে জগদীশ্বর স্মরণ পূৰ্ব্বক শুদ্ধ আক্ষেপ করিয়াই অন্তঃকরণকে প্রবোধ প্রদান করি। অধুনা এই বিষয়ে আমার মনের অবস্থা যেরূপ হইয়াছে তাহ কেবল সৰ্ব্বান্তর্যামী জগদীশ্বর জানিতেছেন। এই জগতের অপর কোন আমোদেই আমোদ বোধ হয় না অপর কোন কৰ্ম্মেই প্রবৃত্তি জন্মে না কিছুতেই মন স্থির হয় না অনবরত মনে মনে শুদ্ধ পুরাতন কবিতার ভাবনাই করিতেছি। মনের মত একটী কবিতা প্রাপ্ত হইলে আর আহলাদের পরিসীমা থাকে না তখন বোধ হয় যেন এই ব্ৰহ্মানন্দ সাক্ষাৎকার হইল। দশবৎসর পর্য্যন্ত সঙ্কল্প করিয়া ক্রমশঃ তান্তষ্ঠান করিতে করিতে প্রায় দেড়বৎসর গত হইল আমি এই কাৰ্য্যের দৃষ্টান্ত দর্শক হইয়াছি অর্থাৎ সৰ্ব্বাগ্রেই অদ্বিতীয় মহাকবি কবিরঞ্জন ভরামপ্রসাদ সেনের জীবন-বৃত্তান্ত এবং তাহার প্রণীত কালী-কীৰ্ত্তন ও কৃষ্ণ-কীৰ্ত্তনাভিধান ভক্তিরসপ্রধান মধুর গান এবং অবস্থা ভেদের শাস্তি করুণা হাস্ত ভয়ানক অদ্ভুত ও বীর প্রভৃতি কতিপয় রসঘটিত পদাবলী ১২৬০ সালের পৌষমাসের প্রথম দিবসীয় প্রভাকরে প্রকটন করিয়াছি তৎপাঠে সকলেই মুগ্ধ হইয়াছেন। অনন্তর ভরামনিধি সেন অর্থাৎ নিধুবাবু। ৬হরু ঠাকুর। ভরাম বস্তু। ভনিতাই দাস বৈরাগী। ৮লক্ষ্মীকান্ত বিশ্বাস। ভরামু ও নৃসিংহ। এবং আর আর কয়েকজন মৃত কবির জীবন-চরিত ও কবিতাকলাপ এক এক মাসের প্রথম দিনের পত্রে শ্রেণীবদ্ধরূপে প্রকাশ করিয়াছি। সেই সমস্ত বিষয় পাঠক মাত্রেরি পক্ষে সম্যক্ প্রকারে সন্তোষকর হইয়াছে। কিন্তু এ পর্য্যন্ত স্বতন্ত্ররূপে তাহার কোন বিষয়টাই পুস্তকাকারে মুদ্রিত করা হয় নাই কেবল সংবাদপত্রে পত্রস্থ করিয়াই রাখিয়াছি। অবিলম্বে মূল্যনির্দিষ্টপূর্বক পুস্তক প্রকাশ করিয়া সৰ্ব্বত্র প্রচার করিব এমত মানস করিয়াছি। ফলে মনোময় পরম পুরুষের মনে কি আছে বলিতে পারি না। কোনরূপ দৈব ঘটনা দ্বারা ভবিষ্যতে আর কোন ব্যাঘাত না জন্মিলে উৎসাহের কুৎসা.রণ পূৰ্ব্বক অভিপ্রেত বিষয় সুসিদ্ধ করিয়া কৃতার্থ হইতে পারিব নচেৎ এই পৰ্য্যন্তই শেষ করিতে হইল ।