পাতা:বঙ্গ-সাহিত্য-পরিচয় (দ্বিতীয় খণ্ড).djvu/৯১১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পরিশিষ্ট—সমসের গাজির পুথি–১৮শ শতাব্দীর মধ্যভাগ। >brQ○ মেঘনানদী-পূৰ্ব্বপাড়ে যত লোক ছিল। ডালি ভেটি গাজি সঙ্গে আসিয়া মিলিল ॥ রণজয় করি এল গাজি নিজ দেশ। গাজির পরিল ডঙ্কা স্বদেশ বিদেশ ॥ পলাইলে মহারাজ উদয়পুর হতে। পড়েছিল ভ্রাতাপুত্র সমসেরের হাতে ॥ এখন বঁাশের এক করি সিংহাসন। রাজার ভ্রাতুষ্পুত্র লক্ষ্মণবসাইল তদোপরে মাণিক্য লক্ষণ ॥ . .." রাজার সন্মানে তারে রাখে গাজিবর। রাজ্যচ্যুতি যেন তার দহে না অন্তর ॥ মনে মনে দহি দহি তিনটী বৎসর। অকালে কালের স্রোতে হৈল লোকান্তর ॥ ওজন ও মূল্য। হাটে বাজারে গাজি মুনাদি ফিরাই। ওজন করিয়া দিলা নিরিক লিখাই ॥ ওজনেও কম কেহ নারে বেচিবার। মূল্য বাড়াইয়া কেহ নারে ঠকাবার ॥ পাইলে নিয়ম ছাড়া শাস্তি করে গাজি । খরিদদার বিক্রেতা সবে তারে রাজি ॥ বাজারে বাজারে যত বিরাশী ওজন । কম বেশ কোথায়ও নহে কদাচন ॥ তৈল সের বার পণ ঘৃত চারি আনা। গাজিতে করিয়া দিল এ সব ঠিকানা ॥ ভাণ্ডার ও পাঠশালা । ডোমন রয়েছে তথা নওয়াব হুজুরে। এথা গাজিবর দেখ রাজ্য মুখ করে ॥ পাকশালা দেওয়ানখানা তোসাখানা ভারি । খুলিল অতিথখানা ধুমধাম করি। ভাণ্ডারের অধিকারী আছাদ ভাণ্ডারী। চন্দ্র মুদি করিতেছে খরচ বরদারি ॥