পাতা:বঙ্গ-সাহিত্য-পরিচয় (দ্বিতীয় খণ্ড).djvu/৯৫৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।
১৮৯৬
বঙ্গ-সাহিত্য-পরিচয়।

( ২ )

ডেঙ্গায় জলে আছে পা, হাত ধরে আয় নিয়ে যা।
আর চাইনে ভেল্‌কী খেল্‌তে, বাড়ী যাই হাস্‌তে হাস্‌তে,
শুক্‌নো গাছে ঝুল্‌ছে ফল, দূরে গেছে গায়ের বল,
আয়রে মৌ হাওয়ায় দুলে উড়ায়ে দিয়ে বা,
কানামাছি আছে ব’সে হাত ধরে নিয়ে যা॥

( ৩ )

পাগল কানাই বলে গড়া রথ নূতন কলে,
চালাতাম সাবেক বলে এই শেষ কালে কল্‌ বিকলে চলে না।
আমি ঠেলে ঠুলে চালাতে চাই যে ঠেলবার সে ঠেলে না—
ঠেলতে ঠুলতে দিন গিয়াছে এখন আর ঠেলা আসে না,—
ভাটি রথ চলে না॥
এ রথে ছিল যারা, সব সরে পলো তারা,
হয়েছি দিশেহারা নজর ধরা সরে যেতে পাল্লেম না।
আমি যার কাছে যাই সেই রাগ করে, বলে ভাটি রথে থাকবো না॥
ইন্দ্র চন্দ্র রিপু তারা প্রবোধ মানে না—ভাটি রথ চলে না॥
এ রথ নূতন ছিল গড়া, খুব টলকো ছিল দড়া,
কত জোরে চল্‌তো ঘোড়া কি পরিপাটী
আমরা এই ষোল জনে, এ রথ দেখে শুনে,
দিন কতক টেনে টুনে, দিয়েছি কত তাহার এর সারথি হয়েছে ভাটি,—
দড়াতে জোর নাইকো আর।
পাগ্‌লা কানাইর হলো কেবল টানাটানি সার, এ রথ চলে না আর॥


বিবিধ প্রাচীন গান।

( ১ )

আমায় পাগল কৈরা
গেলারে প্রাণনাথ,
আমায় অনাথ কৈরা গেল।
কোন্‌ না জেলের মাছ খেয়ে রে
তারে না দিছিলাম কড়ি,