পাতা:বঙ্গ-সাহিত্য-পরিচয় (দ্বিতীয় খণ্ড).djvu/৯৫৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।
১৮৯৮
বঙ্গ-সাহিত্য-পরিচয়।

( ৫ )

এখনকার যে অলঙ্কার।
চরণের উপর চমৎকার॥
নামা পায়েতে গুজরী পাতা।
উপর পায়েতে কলস্‌ কাটা॥
কলস্‌ না থাক্‌লে বল্‌তে বা কি।
এত অলঙ্কার দিয়েছেন পতি॥
দানা দান কাড়লী।
মরদানা তেখরী পঁহুটী॥
গলার সাজ কতকগুলা।
চিক চৌদানী মুড়কী-মালা॥
মাথার সাজ কতকগুলা।
স্বর্ণ-সীঁথি কলাটে পেড়া॥
নাকের সাজ কতকগুলা।
করলা-ফুল দায়মল-কাটা॥
কাণের সাজ কতকগুলা।
ফুল ঝুমকা পিপল-পাতা॥
এখনকার যেমত উঠেছে।
বিবিয়ানা ঝুমকো দেওয়া॥
স্বর্ণ-সীঁথে এত আভরণ দিয়েছেন পতি॥

( ৬ )

এবার এলো মাঘমাস তাতে বড় শুয়ো।
ঘরের কোণে বসে দেখি আকাশের গায় কুয়ো॥
আবার এলো মাঘমাস তাতে বড় শীত।
সূয্যি মামা পূবের চালে উঠ্‌লে গাবো গীত॥
আঁজলা-ভরা রাঙ্গা জবা সাদা ভাঁটির ফুল।
শিশির-ভেজা দূর্ব্বোগুলো মুক্‌তোর সমতুল॥
ভাঙ্গা কুলোয় বাসি ছাই নিয়ে বসে আছি।
ঝোপের আড়ে ডাকলে পাখী রোদ্‌ পুইয়ে বাঁচি।
আয়লো দিদি দেখবি যদি ঊষোরাণীর বিয়ে।
ফুলের মালা গলায় পরে ঘোমটা মাথায় দিয়ে॥
আমরা তো বত্ত করি পূব-দুয়োরি বসে আদুল গায়।
দোহাই তোমার সূয্যি ঠাকুর রাঙ্গা বর দিও আমায়॥