পাতা:বরেন্দ্র রন্ধন.djvu/১৭০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


Seo . « বয়েজ রন্ধন । এ ছাড়া শিম, বেগুণ, মূলা, শিমবেগুণ, মূলা-বেগুণ, পটোল, ঝিঙ্গা, পালঙ শাক, মটর শাক প্রভৃতি আনাজের ঘণ্ট এই প্রকারে রাধিতে পার।

  • * ১৭৮। চিড়-মুড়া ঘণ্ট

রই মাছের মুড়া-কাটা মুণ হলুদ মাথিয়া কষাইয়া রাখ। চিড়া ভিজাইয়া রােখ। নরম হইলে জল গালিয়া ফেল । তৈলে জিরা, তেজপাতা ও লঙ্ক ফোড়ন দিয়া চিড়া ছাড় । আংসাও । মুণ, হলুদ, লঙ্কা বাট ও ধনিয়া বাট দিয়া নাড়িয়া চড়িয়া জল দাও । ফুটিলে কষান মাছ ছাড় । সিদ্ধ হইলে মাছ ভাঙ্গিয়া দিয়া সমস্ত নাড়িয়া মিশাইয়া দেও। এক্ষণে জিরা-মরিচ বাট ও তেজপাত বাট মিশাও। অবশেষে কিছু পিঠালী দিয়া (চিড়ার ঘণ্টে অধিক পিঠালী আবগুক হুইবে না ) আটিয়া লইয়া শুকনা শুকনা করিয়া নামাও । ভাতের এবং খৈয়ের সহিতও এই প্রকালে মাছের ঘণ্ট রান্ধা চলে । ১৭৯। রুই মাছের মুড়া-কাটা দিয়া মিঠা কুমড়ার ঘণ্ট বিলাতী কুমড়া ডুম ডুমা বা সর সব করিয়া কুটিয়া লও। রুই মাছের মুড়া-কাটা-গাদা মুণ হলুদ মাখিয়া কষাইয়া রাখ। তৈলে জিরা, কালজির, তেজপাত, লঙ্ক ফোড়ন দিয়া কুমড়া ছাড় । উত্তমরূপে আংসাও । মুণ, হলুদ ও সর্বপ্রকার বাট ঝাল মিশাও । নাড়িয়া জল দাও । ফুটিলে কষান মাছ র্মিশাও। স্বসিদ্ধ হইলে মাছ ভাঙ্গিয় ঘাটিয়া মিশাইয়া দাও। পরে পিঠালী দিয়া আঁটিয়া লইয়া নসনসে করিয়া নামাও । বিলাতী কুমড়ার সহিত ইলিশ মাছ, কাকড়, ছোট ছোট চিঙড়ী মাছ অথবা বড় বড় চিঙড়ী মাছের মুড়া দিয়া সুন্দর ঘণ্ট রাধী চলে। ১৮০ ৷ পালঙ শাকের ঘণ্ট রই মাছের মুড়া-কাটা গাদা দিয়া পালঙ ও বথুয়, মটর প্রভৃতি শাকের ঘণ্ট যেমন ভাল হয়, শৈল মাছের মুড়া-কাটা দিয়াও তেমনই তাহা স্বন্দর