পাতা:বরেন্দ্র রন্ধন.djvu/১৯২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


১৭২ ৰয়েজ রন্ধন । কিঞ্চিৎ ব্যতিক্রম ঘটিতেছে। পক্ষাস্তরে তেমনষ্ট কুমড়ার এবং পাঁচমিশালী আনাজের নিরামিষ ডাল-ফেলানি ঝোলে জির ফোড়ন দেওয়া যায়। pcমথির পরিবর্তে কালঞ্জিরা ফোড়ন জিরার সহিত চলে। @ ২০৩ । চিঙড়ী মাছের ঝাল কচি লাউ ডুম ডুমা করিয়া কুটিয়া কযইয়া রাখ। চিঙড়ী মাছে মুণ -হলুদ মাখ, তৈলে জিরা, তেজপাত, লঙ্কা ও দুটা মেথি ফোড়ন দিয়া মাছ ছাড় । আংসাও । ধনিয়া বাট, লঙ্কা বাট ও হলুদ বাট একত্রে অল্প জলে গুলিয়া ঢালিয়া দাও। আংসাও ৷ . মশল্পীর সুগন্ধ বাহির হইলে জল দিয়া মুণ দাও । ফুটিলে কষান লাউ ছাড় । জল কমিয়া আসিলে জিরা-মরিচ বাটা, তেজপাত বাট ও একটু চিনি দাও । পরে পিঠালী দিয়া ঝোল ঘন করিয়া নামাও । ইচ্ছা হইলে লাউয়ের সহিত গাভথোড় বা দুটো ভিজান, ছোলা মিশাইয়াও ঝাল রাধিতে পার । কঁকড়ার ঝাল এইরূপে রাধিবে। ২০৪ । লাউ-শোল লাউ ডুম ডুমা করিয়া কুটিয়া কমাইয়া র খ। মাষকলাই বড়ি ভাজিয়া রাথ ! শোল মাছের ছাল ছাড়াইয়া ছোট ছোট করিয়া কুট। মুণ হলুদ মাখি ] তেলে জিরা, তেজপাত, লঙ্কা ফোড়ন দিয়া মাছ ছাড় । আংসাও । লঙ্কা বট, ধনিয়া বাট অল্প জলে গুলিয়া ঢালিয়া দেও। আংসাও । মুণ হলুদ দিয়া আর একটু জাল দেও। ফুটিলে কথন লাউ ও বড়ি ছাড়। সিদ্ধ হইলে দিরা-মরিচ বাটা, তেজপাতা বাট, একটু চিনি ও পিঠাণী দিয়া থকৃথক করা নামাও । o ২০৫ । শোল মাছের কলাপতু শোল মাছের ছাল ছাড়াইয় ছোট ছোট করিয়া কুটা লও। মুণ (হলুদ) মাখ। বুট ভিজাইয়া রাখ। আলু ছোট ছোট ডুমাকারে কুটয়া তেলে