পাতা:বরেন্দ্র রন্ধন.djvu/২১১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


একাদশ অধ্যায়—ক্টালিয়া । సిలి) বাট ও রপ্তন বাট ছাড়। আংসাও । ভাজা মশলার সুগন্ধ বাহির হইলে জল দেও। ফুটিলে মাংসপূর্ণ কাটি গুলি ছাড়। সিদ্ধ হইলে মুণ, জিরা. মরিচ বাট, তেজপাত বাট ও একটু চিনি মিশাও। ঝোল ঘন গা-মাখ গা-মাখা করিয়া নামাও । একটু ঘি ও গরম মশল্প বাট মিশও, ১২৭ ৷ ‘সিলোন’ বা মালাই-কারী ক । মালাই-কারীতে নারিকেলের দুগ্ধই প্রধান উপকরণ, সুতরাং সৰ্ব্ব প্রথমেই উহা সংগ্ৰহ করিবে । উত্তম ঝুনা নারিকেল লইয়া উপরের ছোবা উঠাইয়া ফেলিয়া মালা দ্বিখণ্ডিত কর । নারিকেল-কোড়নার সাহায্যে নারিকেলের শাস কুড়িয় উঠাও । একটী পাত্রে এই নারিকেল-কুড়া রাখিয়া উপরে ফুটন্ত গরম জল ঢাল পনর কুড়ি মিলিট ভিজাইযা রাখিয়া একখানি পরিষ্কার নেকড়ার সাহায্যে চিপিয়া 'দুগ্ধ’টুকু ছাকিয়া লও। ইহা আলাহিদা স্বাখ । ঐ নারিকেল কুড়াতে পুনরায় গরম জল ঢাল । আধ ঘণ্টা খানেক ভিজাইল্লা রাখ। একখানা নেকড়ার সাহায্যে উত্তমরূপে চিপিয়া পুনরায় অবশিষ্ট দুগ্ধ টুকু বাহির করিয়া লও। আলহিদা রাখ। এক্ষণে স্বতে তেজপাত, গোটা গরম মশলা ও পেয়াজ কুচা ফোড়ন দিয়া হরিদ্রা বাট, লঙ্কা বাট, ধনিয়া বাটা, অল্প জিরা-মরিচ বাটা, আদা বাট ( ও রগুন বাট ) ছাড়িয়া কষাও । সুঘ্রাণু বাহির হইলে মাংস ছাড়। আংসাও । মাংসের নিজ জল শুকাইলে দ্বিতীয় বারের নারিকেল-দুগ্ধ নিশাও । ফুটিলে কষান আনাজ, মুণ ও চিনি মিশাও । মালাইকারীতে জিরা-মরিচ বাট অল্প পরিমাণে দিতে হয়। নচেৎ নারিকেল-দুগ্ধের ‘লজ্জৎ'টুকু নষ্ট হইয়া যায়। মাংস সিদ্ধ হইয়া জল শুকাইলে প্রথমবারের নারিকেল-দুগ্ধ ঢালিয়া দেও। আৰশুক মনে করলে একটু পিঠগী দিয়া ঝোল ঘন করিয়া নামাও। একটু স্বত ও গরম মশল্প বাট মিশাও।