পাতা:বরেন্দ্র রন্ধন.djvu/৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


هلو۱ তবে ঐ সকল বরক্ত বহির্ভূর্ত রন্ধন যে যে অধ্যায়ে লিখিলে তাহ বরেন্দ্রে রন্ধনের সহিত ੇ ਹੋ। খাপ খাইতে এবং তাহার সহিত তুলনা করা ষাইতে পারে বিবেক্ষস করিয়াছি তদনুসারে তাহা বিভাগ করিয়া সেই সেই অধ্যায় ভূক্ত করয়াছি। বরেন্দ্র-প্রমর্মিত রন্ধন হিসাবে এই গ্রন্থ যে পুর্ণাবয়ব হইয়াছে একথা বলিলে আমি সাহস করি না। পরন্তু আমার স্ত্রীর অকাল মৃত্যুতে এতদ্বিষয়ক সংগ্রহই অপূর্ণ রহিয়া গিয়াছে ; অপিচ তিনিও যতটুকু জানিতেন ভাহাও আমি সম্পূর্ণ জ্ঞাত হইতে পারি নাই। তাহার ত্যক্ত কাগজ-পত্রাদি *হইতে আমার ক্ষমতায় যেটুকু উদ্ধার সাধন সম্ভবপর হইয়াছে মাত্র তাহাই এই গ্রন্থে লিপিবদ্ধ করিয়াছি ; সুতরাং বহুক্ষেত্রে যে এই গ্রন্থের অসম্পূর্ণতা ও ক্রটি পরিলক্ষিত হইবে তাঁহাতে আর সন্দেহ নাই । আমাদের পরিবারে আমার পত্নীর রন্ধন নিপুনতার যে একটু খ্যাতি জন্মিয়ছিল তাহার কারণ জিজ্ঞাস্থ হইলে তিনি হাসিয়া কহিয়াছি গ্ৰন' “পাচিকার প্রধানতঃ দুইটি গুণ থাকা_প্রয়োজন ; একটি রন্ধনের_প্রতি আন্তরিক অম্বুরাগ বা শ্রদ্ধ, অপর, রন্ধনকালে তৎপ্রতি গভীর মনঃ డ్రై আমার পত্নীর অটল ধৈর্য্যশীলতা দেখিয়া আমার বোধ হয়, সুপাচিকার তৃতীয় গুণ ধৈর্য্যশীলতাও বটে। দয়ারামপুর, | শ্ৰীশরৎকুমার রায় জেলা রাজসাহী । বৈশাখ- ১৩২৮ সাল (দিঘাপতিয়া )