পাতা:বরেন্দ্র রন্ধন.djvu/৬১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


छ्ठौब अथाब्र'-खबि ।। 8X তৈলে ভাজিবে । বুটের বেসমের দ্বারা এই ভাজা হয় বলিয়া ইহাকে সচরাচর ‘বেসন বা বেসম ভাজি কহে। এবং শুধু বেসমের বড়া ভাঙ্গিকে ফুলুরী’ কহে । এতৎসহ পেয়াজ কুচা মিশাইয়া ভাজিলে তাহাকে ‘প্যাজের ফুলুরী’ কহে । বুটের বেসমের সহিত প্যাজ যেরূপ খাপ খায় মটর ডাইল বাটার সহিত সেরূপ খাপ খায় না। ক্ষুদ্র মৎস্তদিও বুটের বেসমের আবরণে ভজিতে পার যায় । ৫৬ । তিলের পাট ভাজি তিলঘষা জাতায় তিল ফেলিয়া ঘুরাইয়া তিলের খোসা উঠাইয়া ফেল, অথবা আঁত না থাকিলে মাটির বাবরে তিল রাখিয়া হাতে ডলিয়া খোস উঠাইয় ফেল। পরিষ্কৃত তিল লইয়া আতপ চাউলের (ভিজন) সহিত একত্রে পটায় বাটিয়া লও। দুই ভাগ তিলের সহিত একভাগ চাউল মিশাইবে । অথবা পূৰ্ব্বে তিল বাটিয়া লইয়া পশ্চাৎ তাহাতে চাউলের গুড়া মিখাইতেও পার । বাটনা যেন বেশ মিহি হয়। এক্ষণে মুণ লঙ্কাবাট মিশাইয়া ক্রমে জল দিয়া ফেনাইয়া ,আবশুক মত গাঢ় করিয়া গোলা প্রস্তুত কর। চাউলের গুড়ার ভাগ বেশী বোধ হইলে কমাইয়া লইবে। শশা, ছাচিকুমড়া, বিলাতী ( মিঠা ) কুমড়া প্রভৃতি পাট পাট করিয়া কুটিয়া এই গোলায় ডুবাইয়া তুলিয়া ভাসা তৈলে মুচমুচে করিয়া ভাজ। পোস্তদানা বাট, মশিনা বাট প্রভৃতি দ্বারা এইরূপে ‘পাট’ ভাজিবে । .৫৭। সরিষার পাট ভাজি সরিষা মিহি করিয়া পাটায় বাটিয়া লও। কিছু চাউলের গুড়, মুণ ও লঙ্কা বাট মিশাইয়া জল দিয়া ফেনাইয়া গোলা প্রস্তুত কর। বেগুণ, শশা, মোচার কোমলাগ্রভাগ, ওলের ডাগুর, খামাকচু এবং তাহার ডাগুর, সরিষার ফুল, তারামিরার ফুল প্রভৃতি এই গোলায় ডুবাইয়া তুলিয়া-ভাসা তৈলে ভাজ ।