পাতা:বরেন্দ্র রন্ধন.djvu/৭৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


তৃতীয় অধ্যায়-ভাজি । & R AMAMAeeAeAeeAeA AMAeeAee eAMAMAMAAAA AAAAAAAS AAASASAAAeS eAeAeAeAMAeAeS মশল্পাদি ও পুর ভেদে এবং পাকপ্রণালীর কিঞ্চিৎ তারতম্যে বহু প্রকারের হইয়া থাকে। পাকপ্রণালী’, ‘আমিষ ও নিরামিষ আহার প্রভৃতি রন্ধনগ্রন্থে তাহার তালিকা ও রন্ধন-প্রণালী বিস্তৃত ভাবে দেওয়া হইয়াছে। এই গ্রন্থে সেরূপ বিস্তৃত তালিকা না দিয়া দুই চারিট উদাহরণ সহ শুধু প্রধান প্রধান ছয় প্রকারের কাবাবের রন্ধন-প্রণালী লিখিত হইবে। আশা করি, তাহারই সাহায্যে বিবিধ প্রকারের কাবাব কি উপায়ে রধিতে হইবে পাঠক পাঠিকা বুঝিয়া লইতে সক্ষম হইবেন । G ক, শূল্য । (১) আস্ত বা গোটা মাংসের শূল্য বা শিক-কাব্যব। ” ১। হংস শূল্য. একটি মারা গোটা পাতী হাস লইয়া উত্তপ্ত জলে ডুবাও । একটু পরে উঠাইয়া ঠাণ্ড জলে ডুবাও । এখন সমস্ত পালক টানিয়া উপাড়িয়া ফেল। সাবধান, যেন হাসের গাত্র চৰ্ম্মটি ছিড়িয়া বা উঠিয়া না যায়। তৎপর অভ্যন্তরের অন্ত্রাদি বাহির করিয়া ফেলিয়া হাসটি জলে ধুইয়া উত্তমরূপে সাফ করিয়া লও। ডানা ও পায়ের মাংস-শূন্ত অগ্রভাগ কাটিয়া ফেলিয়া পায়ের অবশিষ্ট অংশ বাকাইয়া ডানার নিচে মাংসের মধ্যে ফুড়িয়া ঢুকাইয়া দাও, এবং ঠোট হইতে চক্ষু পৰ্য্যন্ত কাটিয়া ফেলিয়া মাথার অবশিষ্ট অংশ গলা সহ বাকাইয়া ডানার নিচে আট্‌কাইয়া দাও । অতঃপর হাসের পেটের মধ্যে লুম্বালম্বি অবে গলার দিক দিয়া একটি লৌহ শিক চালাইয়া দিয়া পেছন দিক দিয়া তাহার ডগা বাহির করিয়া রােখ । ইহাতে দুই হাতে শিকের দুই মুড়া ধুরিয়া পক্ষীটি আগুণের উপর অনায়াসে ঘুরাইয়া ঘুরাইয়া ঝলসাইতে পারবে। পার্থীর গায়ে মুণ, গোলমরিচের গুড়া, আদা ও পেয়াজ বাট বা রস ও