পাতা:বর্ত্তমান বাঙ্গালা সাহিত্যের প্রকৃতি.pdf/১১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


[ J নহে । কিন্তু এখন তিনি যেন একটু চাপা পড়িয়ছেন, তাহার লেখা কিছু পুরাতন প্রণালীর বলিযা এখন বিবেচিত হয, বোধ হয আব বড় পঠিতও হর্ষ স্না" তিনি লিখিতে আবম্ভ কৰিবাব কিছু দিন পবে তাছ হইতে এক ভিন্ন শ্রেণীর লেখক বাঙ্গাল লিখিতে থাকেন । তাহীদের প্রায সকলেই হঃবাজাওষালা, সংস্কৃতে সম্পূর্ণ অনভিজ্ঞ অথবা অল্পই অভিজ্ঞ । র্তাহাদেব লেখা পড়িযা অনেকে তখন বলিতেন যে ‘বাঙ্গালী ভাষাটা বেওযবিস্ ভাষা’ বোধ হয কথাটাব অর্থ এই যে, কোন সম্পত্তিব ওযাবিস বা উত্তবী ধিকাৰী না থাকিলে, লোকে যেমন আপন আপন ইচ্ছামত উহাব বে-আইনী ভোগ দখল কবিয থাকে, নব্য লেখকেবা তেমনই ব্যাকবণজ্ঞানের অভাবে ব্যকৱণহ্লষ্ট লেখা লিখিযা থাকেন। প্রধানতঃ ব্যাকরণদোষেব প্রতি লুক্ষ্য কবিযাই যে লোকে ঐ কথা বলিতেন, তখনকার প্রধান প্রধান নব্যলেখুকদিগের গ্রন্থেব সমালোচনা পড়িলে তাহাই প্রতীতি হয । সে সকল সমালোচনায অন্য দোষ. অপেক্ষা ব্যাকরণ দোষেবই বেশী আলোচনা থাকিত এবং ঐরুপ দোষ লইযাই বেশী ੀ বিক্রপ গার্ল গালি কব ইহঁত t