পাতা:বাংলাদেশ কোড ভলিউম ২৯.djvu/৪০০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বাংলাদেশ ট্যারিফ কমিশন আইন, ১৯৯২ \రిసిసి ৫। (১) একজন চেয়ারম্যান এবং অনুর্ধ তিনজন সদস্য সমন্বয়ে কমিশনের গঠন কমিশন গঠিত হইবে। (২) চেয়ারম্যান ও সদস্যগণ সরকার কর্তৃক নিযুক্ত হইবেন এবং তাহাদের চাকুরীর শর্তাবলী সরকার কর্তৃক নির্ধারিত হইবে। (৩) চেয়ারম্যান পদ শূন্য হইলে কিংবা অনুপস্থিতি, অসুস্থতা বা অন্য Q, কোন কারনে তিনি তাহার দায়িত্ব পালনে অসমর্থ হইলে, শূন্য পদে ് নবনিযুক্ত চেয়ারম্যান কার্যভার গ্রহণ না করা পর্যন্ত কিংবা চেয়ারম্যান S পুনরায় স্বীয় দায়িত্ব পালনে সমর্থ না হওয়া পর্যন্ত সরকার কর্তৃক মনোনীত CŞ কোন সদস্য চেয়ারম্যানরূপে কার্য করিবেন। o ৬। চেয়ারম্যান কমিশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্ত হইবেন এবং তিনি এখননির্বাহী কর্মকর্তা কমিশনের অন্যান্য সদস্যদের দায়িত্ব বন্টন করিবেন। o ৭। (১) কমিশন নিম্নবর্ণিত বিষয়ে সরকারকে পরামর্শ প্রদান করবে নাল যথা:– ১৩ আদ (ক) দেশীয় শিল্পের স্বার্থ রক্ষা; §o (খ) শিল্প সম্পদ উৎপাদনে প্রতিযোগিতায় উৎসাহ o (গ) শিল্প সম্পদের সুষ্ঠু ব্যবহার Hིག་ཆ་མ་རྨ་ (ঘ) দেশী পণ্য রপ্তানীর উন্নয়ন; so - No (ঙ) দ্বিপাক্ষিক ও বহুপক্ষিক চুক্তির মাধ্যমে দেশে এবং বিদেশে দেশীয় শিল্প সম্পদ ব্যবহারে উন্নয়ন (5) ডম্পিং ও বিদেশী পণ্যের আমদানী ও বিক্রয়ের ব্যাপারে অসাধু পন্থার প্রতিরোধকল্পে পদক্ষেপ গ্রহণ (ছ) দফা (ক), (খ), (গ), (ঘ) ও (ঙ) এ উল্লিখিত বিষয়ে সরকার SS কর্তৃক কমিশনের নিকট প্রেরিত বিষয়। N (২) ধারা ১ এ উল্লিখিত কার্য সম্পাদনে কমিশন, অন্যান্যের মধ্যে, নিম্নলিখিত বিষয়গুলি যথাযথভাবে বিবেচনা করিবে, যথা: NQ - eS (ক) বাজার অর্থনীতি; ് (খ) অর্থনৈতিক পরিবেশ; (গ) দ্বিপাক্ষিক ও বহুপাক্ষিক বাণিজ্য ও শুল্ক চুক্তি; (ঘ) জনমত।