পাতা:বাংলায় ভ্রমণ -দ্বিতীয় খণ্ড.pdf/২০৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বাংলা নাগপুর রেলপথে δάά বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রথম জীবনে ইনি কাশ্মীর রাজ্যের ধৰ্ম্মার্থ বিভাগের ভারপ্রাপ্ত মন্ত্রী ছিলেন, উত্তরকালে ধৰ্ম্মচচর্চা করিয়া বিশেষ বিখ্যাত হন। বাংলাদেশে হরনাথ ঠাকুরের অনুরক্ত বহু শিক্ষিত ব্যক্তি আছেন। ইন্দাস—বাঁকুড়া হইতে ৪২ মাইল পূবেব “ বাঁকুড়া দামোদর নদ ” রেলপথের উপর অবস্থিত ইন্দাস একটি প্রাচীন স্থান। মল্লরাজগণের সময়ে ইহা ইন্দ্ৰহাস রাজ্য নামে পরিচিত ছিল। এই গ্রাম খ্যাতনাম তান্ত্রিক গৌরী পণ্ডিতের জন্মভূমি। ইন্দাসের নিকটবৰ্ত্তী শ্রীপুর গ্রাম ধাত্রীবিদ্যা বিশারদ খ্যাতনামা চিকিৎসক স্যর কেদারনাথ দাস মহাশয়ের পৈতৃক বাসস্থান । বাঁকুড়া জেলার পাত্রসায়ের থানার অন্তর্গত রামপুর গ্রাম বিখ্যাত “ শুভঙ্করী" নামক গণিত পুস্তক প্রণেতা শুভঙ্কর দাসের জন্মস্থান। এই গ্রামে “শুভঙ্করের দাঁড়া” নামে একটি প্রাচীন রাস্তার fচহ্ন দেখিতে পাওয়া যায়। বাঁকুড়া হইতে মোটরবাসযোগে ২৩ মাইল দক্ষিণে অবস্থিত খাতড়া নামক বদ্ধিষ্ণু গ্রামে যাওয়া যায়। এই স্থানটি অতি স্বাস্থ্যকর। এখানে একটি মুনসেফী আদালত ও গালা তৈয়ারী করিবার দুইটি কারখানা আছে। খাতড়ার নিকটে " মশক পাহাড় ” নামে একটি পাহাড় আছে। বাঁকুড়া জেলার উত্তর সীমার শেষগ্রাম মেঝিয়া বাঁকুড়া হইতে মোটরবাস যোগে যাওয়া যায়। ইহা দামোদর নদের দক্ষিণতীরে অবস্থিত। এখানে প্রচুর পরিমাণে গালা প্রস্তুত হয়। ইহার নিকটবর্তী কালিকাপুর, হরিশ্চন্দ্রপুর ও বাঁশকুণ্ডি প্রভৃতি গ্রামে কয়লার খনি আছে। মেৰিয়ার অনতিদূরস্থ ভুলুই নামক গ্রামে প্রায় দইশত বৎসর পুবের্ব কবি জগৎরাম ও রামপ্রসাদ রায় জন্মগ্রহণ করেন। রামপ্রসাদ জগৎরাম রায়ের পুত্র । ই হারা পিতাপুত্রে মিলিয়া “অদ্ভুত অষ্টকাও রামায়ণ ” নামে পরিচিত এক রামায়ণ রচনা করেন। এই রামায়ণে সীতা কর্তৃক সহস্রস্কন্ধ রাবণ বধের বৃত্তান্ত আছে। রামপ্রসাদ রায় “দুর্গ পঞ্চরাত্র ” ও “ কৃষ্ণলীলামৃত” নামে অপর দুই খানি গ্রন্থও রচনা করেন । ছাতনা—বঁকুড়া হইতে ৮ মাইল এবং খড়গপুর জংশন হইতে ৮০ মাইল দূর। এখানে বাশুলী দেবীর একটি অতি প্রাচীন মরি আছে। কোন কোন পণ্ডিতের মতে ইহা সুপ্রসিদ্ধ প্রাচীন কবি চণ্ডীদাসের জন্মস্থান। তবে অধিকাংশের মতে বীরভূম জেলার নানুর গ্রাম চণ্ডীদাসের জন্মভূমি । অনেকের অনুমান যে একাধিক প্রাচীন কবির চণ্ডীদাস নাম ছিল, ছাতনা তাঁহাদের মধ্যে কাহারও জন্মস্থান হইতে পারে। ছাতনার প্রাচীন নাম ছত্রিন । এক সময় ইহা একটি রাজবংশের রাজধানী ছিল। ইহার প্রাচীনত্বের চিহ্ন এখনও কিছু কিছু বর্তমান আছে। ছাতনা হইতে ৬ মাইল উত্তরে শুশুনিয়া পাহাড় অবস্থিত। এই পাহাড়ে চন্দ্ৰবৰ্ম্মার একখানি • *o of - হাজার বৎসর পূবেৰ্ব আবিষ্কত হইয়াছে | পণ্ডিতেরা অনুমান করেন যে উহা প্রায় দেড় می কাহারও মতে দিল্লীর প্রসিদ্ধ মরিচা-হীন লৌহের জয়স্তম্ভ এই চন্দ্ররাজ কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত হইয়াছিল।