পাতা:বাংলার পাখি - জগদানন্দ রায়.djvu/১৬৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


Σ88 বাংলার পাখী দেখিলে মনে হয়, যেন কতকগুলো সাদা জিনিস মাঠে পড়িয়া আছে ;-কাছে গেলে যাক বলিয়া চিনিতে পারা যায় । গরুর পিছনে পিছনে চরিয়া বেড়ায় বুলিয়াই বোধ হয় এই বকদের “গাই বগলা বলা হয়। গরুর সঙ্গে ইহারা চরিয়ু বেড়ায় কেন, তোমরা বোধ করি তাহা জানো মা । কোকিলদের ও শালিকদের মতো বকেরা ফল-মূল খায় না, ছোটো পোক-মাকড়ই ইহাদের প্রধান খাদ্য। কিন্তু গাই বগলারা পুকুরের ধারে গিয়া খাবার সন্ধান করে না। মাঠে ঘাসের মধ্যে যে-সব ফড়িং ও অন্য পোকা লুকাইয়া খাকে, তাহাই ধরিয়া খাইবার জন্য তাহারা মাঠে যায়। তার পরে গরুর পাল মাঠে চলিয়া-ফিরিয়া বেড়াইলে ঘাসের মধ্যেকার ফড়িং ও অন্য পোকামাকড় যখন ভয়ে লাফাইয়া পালাইতে চায়, তখন ঐ বকেরা সেগুলিকে ধরিয়া খায়। এই জন্যই ইহাদিগকে প্রায়ই গরুর পালের পিছনে থাকিতে দেখা যায় তাহা হইলে দেখ, গাই যগলা বোকা পাখী নয়,-গরুর পালের পায়ের শব্দে যে ঘাসের ভিতরকার পোকামাকড় লাফাইয়া উঠিবে, তাহা উহারা জানে, তাই সেই সব পোকা DBDBB BBD KBDDBD BDY DD tD BDBB DS রকমে বাঘ ও শুয়োর শিকার করে, তাহার গল্প বোধ করি তোমরা শুনিয়াছ। যে-জঙ্গলে বাঘ আছে অনেক লোক মিলিয়া তাহা ঘেরিয়া দাড়ায় এবং তার পরে লাঠি দিয়া জঙ্গল পিটাইয়া হৈচৈ করিতে করিতে জঙ্গলের ভিতর