পাতা:বাগেশ্বরী শিল্প-প্রবন্ধাবলী.djvu/৩৭৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


 

লাবণ্য

লাবণ্য সম্বন্ধে উজ্জ্বলনীলমণি-কার’ বল্লেন, “মুক্তাকলাপের অন্তর হইতে যে ছটা ষহির্গত হয় এবং স্বচ্ছতাপ্রযুক্ত অঙ্গ সকলে যে চাকচিক্য প্রতীয়মান হইয়া থাকে তাহাকেই লাবণ্য বলে।” স্ত্রীরাধার অঙ্গ্যুতির সঙ্গে মণিময় মুকুর এবং স্ত্রীকৃষ্ণের বক্ষদেশের সঙ্গে মরকত-মুকুরের তুলনা দিয়ে এটা বোঝালেন রসশাস্ত্রকার । বৈষ্ণব কবিতায় লাবণি শব্দ অনেকবার ব্যবহার হচ্ছে দেখি–'ঢল ঢল বঁাচা সোনার লাবণি । বৈষ্ণব কবিদের মতে লাবণ্য হ’ল—প্রভা, দীপ্তি, স্বচ্ছতাবশতঃ ঔজ্জ্বল্য, চলতি কথায় পালিস বা চেকনাই । অভিধানের মানের সঙ্গে মিলছে না—লবণস্য ভাব অর্থাৎ লবর্ণিমা কথাটি স্বম্পষ্ট ইঙ্গিত দিচ্ছে স্বাদের, যাকে ইংরিজিতে বলে taste তাই । রূপ দিয়ে প্রমাণ দিয়ে ভাবভঙ্গি দিয়ে যা রচনা করা হ’ল তl tasteful বা লাবণ্যযুক্ত করা হ’ল তো হ’ল ভাল। ‘ভাবলাবণ্যযোজনম্—ভাব-যোজনা এবং লাবণ্য-যোজনার কথা বলা হ’য়েছে চিত্রের ষড়ঙ্গে । যাতে যেটা নেই তাতে সেইটি মেলালেম যখন তখন বল্লেম—এটি যোজনা করা গেল। রূপকে বা রূপরেখাকে ভাবযুক্ত করার সঙ্গে সঙ্গেই লাবণ্যযুক্ত করার কথা উঠলো। রন্ধন-শিল্পে লবণিমা ও লাবণ্যের যোজনা একটা বড় রকম ওস্তাদি, সেখানে বেশি লবণ কম লবণ দুয়েতেই বিপদ আছে। রান্নাতে যখন মুন্ন মিশলো তখন সমস্ত জিনিষের স্বাদটি ফিরিয়ে দিলে লবণ-সংযোগ, লবণ জিনিষটাও তখন পৃথক নেই, সবার সঙ্গে মিলে একটা চমৎকার স্বাদে পরিণত হ’য়ে গেছে । তেমনি সকল রচনার বেলাতেই সুপকারের মতে রূপকারও একটুখানি লাবণ্য যোগ করে, যাতে করে স্বাছ হ’য়ে ওঠে রচনাটি । রসশাস্ত্রকার বলেছেন,—“মুক্তাকলাপের অন্তর হইতে যে ছটা বহির্গত হয় তাহাকে লাবণ্য বলি।” এতে করে বোঝাচ্ছে রূপের প্রমাণের । ভাবের অন্তনিহিত হয়ে বর্তমান থাকে লাবণ্য, শুধু শিল্পীর অপেক্ষ রচনার কৌশলে সেটিকে প্রকাশ করা । খনির মধ্যে সোনা যখন আছে তখন লাবণ্য তার থেকেও নেই, কারিগরের হাতে পড়লে তো লাবণ্য দেখা দিলে সোনায়—’ঢল ঢল কাচা সোনার লাবণি ; মুক্তার বেলাতেও