পাতা:বাঙ্গালা ভাষার অভিধান (প্রথম সংস্করণ).djvu/৩৫৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কথা কথার ছকবা—(মেয়েলী)—কথার শ্ৰী ত্রঃ। কথার ধরণ, ধারা—বাক্য প্রয়োগের প্রণালী । ( ২ ) কথা বলিবার অভিপ্রায় বা উদ্দেগুজ্ঞাপক কৌশল। প্র—এরকম যে হবে বা সে যে এমন করবে তার কথার ধরণেই বোঝা গিয়েছিল। কথার ধার না ধারা—সংস্রব না রাখ ; সংস্রবে না থাকা : কোন বিষয়ে সংস্কষ্ট না থাকা । প্র-—সে ওসকল কথার ধার ধারে না । কথার ঢো । মেয়েলি। ধুয়া হইতে ঢ়ে ] —কথার ধুয়া । কথার ধোকড়— বাক্যবাগীশ : কাজের কেহ নয় : যে কথার ধুরন্ধর কিন্তু কাৰ্য্যে অগ্রসর হয় না ; অকৰ্ম্মণ্য । কথার ফের—কথার পেচ বা কৌশল। (২) কপার পরিবৰ্ত্তন : পূর্ব উক্তির অস্বীকার। কথার পিঠে কপা—এক কপার অব্যবহিত পরে অন্য কথা ; প্রতিকথা : প্রতিবাদ : প্রত্যুত্তর। কথার বাধুনি—উক্তি বা বাক্যের যুক্তিযুক্ততা এবং অর্থসঙ্গতি ; কপার আঁট ; উক্তির শৃঙ্খলা। কথার মাথা নাই মুণ্ডও নাই—শুঙ্খলাহীন বাক্য : অর্থহীন এবং অসঙ্গত কথা ; প্রলাপ বাক্য : এলোমেলো কথা। কথার মারপেচ—বা-কৌশল : শব্দের অনেকার্থতা হেতু উদ্দেষ্ঠের অনুযায়ী বাক্যের কুট প্রয়োগকৌশল। কথার শ্রাদ্ধ—[ শান্ধের আড়ম্বরাধিক্য হইতে । তুল-“অজাযুদ্ধে ঋষিশ্রাদ্ধে * * * বহারস্তে লযুক্ৰিয়া"] কথারই ওড়ন পাড়ন কিন্তু কাজে কিছুই নয়। কথার শ্ৰী-বাক্যের সৌন্দর্ঘ্য ; কথার মাধুৰ্য্য। (২) কথার বা উক্তির ধারা ; কথা বলিবার ধরণ ৷ প্ৰ—লোকটার কথার স্ত্রী দেখ। কথার হাত পা দেওয়া, কথার হাত পা বাহির করা—মৌলিক বিবরণ নানা প্রকার কাল্পনিক কপার যোগে বিশদ করা : যে কথা হয় নাই তাহাও ডিয়া দিয়া আসল কথা শাখা প্রশাখায় বিস্তৃত করা । আজগুবী কথা —অসম্ভাবিত বিষয় বা সংবাদ । আজুরে আদুরে কথা—অৰ্দ্ধস্কট বাক্য আধ আধ কথা। আপন কথাই পাচ কাহন— নিজের উক্তিরই প্রাধান্ত স্থাপন চেষ্টা : আপমার কথার আধিক্য ; অস্তের কণা চাপা দিয়া বা তাহাতে কর্ণপাত না করিয়া ক্রমাগত নিজের বক্তব্য বলিয়া যাওয়া । ইতরে কথা—ইতর জানাচিত উক্তি। উচু কথা —নিজের অবস্থার অতিরিক্ত কথা । ( ২ ) চড়া কথা ; ভৎসনা বাক্য। উচিত কথা —মুক্তিসঙ্গত কথা ;হৰু কথা। উলটা কথা vbSახ —বিপরীত বাক্য । এক কথা—অপরিবৰ্ত্তনীয় কথা : স্থির বাক্য। একটা বা একটি কথা—অনধিক কথা। (২) বিশেষ কোন কথা। কড়া কথা–কর্কশ বাক্য : তিরস্কার । কাচা কথা—পরিবর্তনশীল কথা : অস্থায়ী বাক্য ; যে কথার উপর নির্ভর করা চলে না। কাজের কথা—সারবান কথা ; প্রয়োজনীয় কথা । ( ২ ) কাৰ্য্য কথা। কাণে কথা, কাণেকাণে কথা-অষ্ঠের অশ্রুত বাক্য : চুপি চুপি কথা । খেলো কথা—বাজে কথা : কাঁচা কথা : যে কথার গুরুত্ব নাই ; অসার কথা। খোলাখুলি কথা—যে কথায় পরস্পরের হৃদয় মুক্ত হয় : কোন কিছু গোপন না করিয়া অকপট ভাবে কণা। গড়াকথা—অসত্য বা কাল্পনিক কথা : যে কথা কেহ বলে নাই এমন স্বষ্টি করিয়া বল বা কল্পিত কথা : অপ্রকৃত কপী : সাজান কপা । ঘর ভঙ্গিা কথা—যে কথায় গৃহ বিবাদ হয়। ঘরের কথা—সংসারসম্বন্ধীয় কথা । ( ২ ) অতিপরিচিত বিষয় । চুপিসাড়ে কথা-নিৰ্মাক হইয়া ইঙ্গিত বা ইসারায় কপী । (২) অনুচ্চস্বরে কথা । চোখ চোখ" কথা—তীয় বা তীববাক্য ; প্রাণস্পর্শী বাক্য : হৃদয়ে বিদ্ধ হয় এমন কথা । ( ২ ) বাছা বাছা কথা : তীক্ষ অথচ সত্য কথা । দশকথা—অনেক কথা । ( ২ ) নানাবিধ কড়া কথা ; ভৎসন বাক্য। প্র—দশকথা শুনাইয়া দেওয়া । দুএক কথা [ দুইএক একাধিক কিন্তু অনধিক অর্থাৎ কতকগুলা ] কয়েকটা কথা । (২) কপার পর কথা। প্র—দুই এক কথা হতে হতে বিলক্ষণ ঝগড়া বেধে গেল। (৩) অল্প কথা । প্র—দুই এক কথায় মিটবে না। দুকথা ছি=দুই। কিন্তু এখানে দুইটা মাত্র অর্থে নয় ] দশকথা দ্রঃ ; কতকগুল শক্ত কপা ; ভৎসনাস্বচক বাক্য। প্র —সে তাঁহাকে বেশ দুকথা শুনাইয়া দিল । (২) কপোপকথন । প্র—তাহার সহিত দুকথা না হলে তার অভিপ্রায় কি বুঝিব। (৩) প্রসঙ্গ । নাকে কথা—অনুনাসিক স্বরে কথা। নাকে মুখে কথা, নাকে চোখে কথা, নাকে কাণে কথা-বাচালতা । ন্যাক কথা— অবুকের মত কথা। (২) বাকী বাকী বা ভুল উচ্চারণে কথা । নোংরা কথা । গ্রা] অসরল কথা : কপট বাক্য । (২) জযস্ত কথা । পাকা কথা—স্থির বাক্য ; যে কথার আর নড়চূড় হয় না ; দৃঢ়বাক্য। পাকান কথা। পেচওয়া কথা—জসরল বা অকপট কথা বাক্য : ঘূরান কথা : কৌশলপূর্ণ—জটিল এবং গুপ্ত উদ্দেপ্তযুক্ত বাক্য। পাচ কথা— [ দশ কথা, সাত কপা, লাখ কথা প্রভৃতি একাৰ্থক ] নানা কথা : অনেক কথা । ফল কথা—প্রকৃত কথা ; সার কথা : in short ; the long and short of it. ফাস কথা—অকেজো কথা ; বাজে কথা : অসার কথা । এই অর্থে বিপরীতাৰ্থক বেক্ষাস কথা প্রচলিত আছে। বাকা কথা-—অসরল বাক্য ; বক্রোক্তি। বাজে কথা—খেলো কথা ; অসার বাক্য । ভাল কথা—উত্তম বাক্য । (২) হিতকর বাক্য : প্রয়োজনীয় কথা । প্ৰ—ভাল কথা মনে পড়েচে । ( ৩ ) কোন কথা বা প্রসঙ্গ উত্থাপন করিবার পূর্বোক্তি : আচ্ছা । (৪) হঠাৎ কোন কপী স্মরণ হওয়ায় তাহার প্রস্তাবন বা উপক্ৰমণিকা। মিঠা কথা—মিষ্ট কপা ; মধুর বচন। মোট কথা—ফলকথা। যে কথা সে কাজ–কথা মাত্রে পর্য্যবসিত নয় কাৰ্য্যদ্বারা উক্তির সারবত্তা ও সত্যতা প্রতিপাদন ; প্রতিজ্ঞা পালন। লক্ষ বা লাখ কথার এক কথা—অসংখ্য বাক্যের মধ্যে একমাত্র মূল্যবান এবং উপযুক্ত কথা । লজ্জার বা লাজের কথা— মেয়েলি ভাষায় "নজার কথা” ] লজ্জাজনক বাক্য বা বিষয় ; নিন্দনীয় ঘটনা। প্র—“কি কাগুট ছি ছিছিছি ন’জার কথা বড় !”—হেমচন্দ্র । "ও মরে যাই লাজের কথা”— বাং গান। লোকের কথা—জনসাধারণের উক্তি । শক্ত কথা—কড়া কথা দ্রঃ । শেষ কথা —যে কথার পর আর বক্তব্য নাই । ( ২ ) মৃত্যু কালের উক্তি : শেষ সময়ের কথা । শুনা-কথা-সম্মুখে উক্ত হয় নাই এমন কথা : যে কথা পরে অষ্ঠের নিকট শ্রত ; hearsay. সাজান কথা—অপ্রকৃত কথা । গড় কথা দ্রঃ । সাত কথা—দশ কথা, পাচ কথা দ্রঃ । সাত কথার এক কথা—পাচ কথার এক কথা জঃ । সোজা কথা—সরল কথা : সহজ কথা । হক কথা-স্তায্য কথা ; উচিত কথা । হালকা কথা—যে কথার গুরুত্ব নাই। হাসির কথা—উপহাসাম্পদ বাক্য বা বিষয় । যে কথা লইয়া পরিহাস করা চলে ; পরিহাসযোগ্য কথা ; তামাসার কথা। (২) আমোদজনক কথা । কথান্তর ( ) { কথার—অন্তর (অবকাশ ) ৬তৎ ] বি, ক্লী, কথার অবকাশ : কথাবসর । ২ । বাদাত্তর : বাক্যান্তর। ৩। কথার খেলাপ । কথা প্রমাণ (ন) [ কথার প্রমাণ, ৬তৎ ] বি, ক্লী, বাক্যানুসারে ; উপদেশমত ; মতামু্যায়ী । ২ । বাক্যের প্রামাণ্য ; বাক্যের সত্যত ।