পাতা:বাঙ্গালা ভাষার অভিধান (প্রথম সংস্করণ).djvu/৪১০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কান বেলা, কানে কানে কথা কওয়া— পরম্পর কানের অতি নিকটে মুখ রাখিয়া অস্তের কর্ণগোচর না হয়, এমন চুপি চুপি কথা বলা । কানে খাট হওয়া [ কানে—খাট ( অল্পদুর হইতেও শুনিবার মত শক্তি না থাকা ) । তুল—ইং— short of hearing ] fF, GR5:7th Hi বলিলে শুনিতে ন পাওয়া ; মৃদ্ধশব্দ শুনিবার শক্তি হইতে বঞ্চিত হওয়া ; কানে কম শুনিতে পাওয়া। কানে তাল ধরা, তালী ধরা, লাগা—শ্রবণ-দ্বার বন্ধ হওয়া : শুনিতে | না পাওয়া ; ভয়ানক শব্দ বা গোলমাল অথবা হেতু কানে শুনিতে না পাওয়া । কণনে তোলা [ কানে—তোলা = উত্থাপন করা ; উল্লেখ করা) কর্ণগোচর করা ; শুনান । কানে ধরা [ কান ধরা দ্রঃ ] কৃত অপরাধ বা ভুল চুকের জন্য কর্ণ স্পর্শ করিয়া সাবধান হওয়া ; ভবিষ্যতে তার সেরাপ না করিবার জষ্ঠ প্রতিজ্ঞারূঢ় হওয়া। কানে ধরিয়া , বলা—বিশেষ ভাবে বা তিরস্কার-পূর্বক মনোযোগ আকর্ষণ করিয়া কিছু বলা বা উপদেশ দেওয়া । প্র—"তাহাকে কানে ধরে : বলে না দিলে শুনবে না" ৷ ২ ৷ সনিৰ্ব্বন্ধ অনুরোধ করিয়া বলা । প্র—সেকি তাহার কানে ধরিয়া বলিতে গিয়াছিল। কানে লাগ —কানে ভাল লাগা : শ্রবণ-সুখকর হওয়া । কানে লেগে থাকা—যাহা শুনা গিয়াছে : তাহার স্মৃতি পুৰ্ব্ববৎ বজায় থাকা ; শ্রত ! বিষয়ের মধুরধ্বনি মনে থাকা । কান সারা —কান খাড়া করা ; ( তাহা হইতে ) সতর্ক হওয়া ; সাবধান হওয়া। প্ৰ—“উভলেজ । করিয়া সারিল দুই কাণ । এক লাফে আকাশে উঠিল হনুমান ॥"-কৃত্তিবাস। : হাড়ীকান—কানের পাতার শঙ্খ : কর্ণ- , বেষ্টনীর কানের যে স্থান হাড়ীর মত গভীর । । [স্ত্রীলোকে হাড়ীকানে চৌদানী প্রভৃতি মাকড়ী- ' জাতীয় অলঙ্কার পরিয়া থাকে ] । কানক (ক্ ) { কনক+অ বিকারার্থে, অ৭ ] বিণ, সুবর্ণরচিত ; কনকনিৰ্ম্মিত । ২। সুবর্ণসম্বন্ধীয়। ৩। বি, ক্লী, জয়পালের বীচি । , কানড়, কানোড় (ড়, ) বিষধর সর্পবিশেষ : ; কাদোড় সাপ । কানড় (কানোড়, ) { সং–কর্ণটি ] বি, স্ত্রীলোকের কেশবিস্তাসবিশেষ ; কর্ণাটপ্রদেশপ্রসিদ্ধ খোপা (ইহাতে প্রথম চুল ১৬ গুচ্ছ : করিয়া পরে চার চার গুচ্ছে এক একটি বিননী । পাকাইয়া চার বিননী দ্বারা কুণ্ডলাকৃতি থোপ বাধা হয় ) । কানড় থোপাও বলে। প্র— "কানড় খোপায় কনকচাপ পাটের থোপ দোলে।"-কবিক । | ७११ কানড়, কানড়া ( ড়, ) { ম:—কণৈর (कुषः कब्रशैब्र ?) देशांग्न छैफ्रांप्र१ अtनकल्ले কনের ও কনেড়র মত অথবা কম্বোট, ( গীলোৎপল ) হইতে কন্নোর—কানড় । কবিপ্রসিদ্ধ হেতু কনোট সম্ভব ] বি, নীলপদ্ম। প্র—“কানডা কুসুম জিনি খামর্চাদের বদন । থানি।”—চণ্ডীদাস । ২ । সর্পবিশেষ। ৩। সৰ্পের কুণ্ডলীর মত গোপ বাধিবার ধারা ( কানড় দ্র: ) । প্র—“কানড ছাদে কবরী বান্ধে, নবমল্লিকার মালে।”—চণ্ডীদাস । [সং-কর্ণাট ] কর্ণাটদেশীয় । প্র—”কাপড় কাণ্ডার আড়ে কানড়। রূপসী ।”—ঘনরাম। ৫ । [ সঙ্গীতে কর্ণাট রাগ : হি—কান্সড ] : রাগবিশেষ ; মেঘরাগের পুত্ররূপে কল্পিত । ৬। বিণ, কর্ণাট। স্ত্রী, কানড়ী (কর্ণাট রাগিণী ; হি-কাহাড়ী ) । কানন (কানোন) [ কানি ( দীপ্তি পাওয়া ) +অন (অধি, সংজ্ঞার্থে, তনটু) যেখানে বৃক্ষमयूइ cशांडा भाग्न ] बि, द्रौ, रन ; १श्न : অরণ্য। নন্দন কানন--স্বর্গের বন ; যথায় দেবপুষ্প পারিজাতাদির বৃক্ষ বিরাজিত। ২ । সুসজ্জিত বৃহৎ উপবন : বিলাস উদ্যান । কাননারি { কানন ( তাহার ) অরি—৬তৎ ] বি. পুং, শমীবৃক্ষ। এই বৃক্ষ হইতে অগ্নি নির্গত হইয়া বন দুগ্ধ করে বলিয়| এই নাম । কানা (সং-কাণ (একচক্ষু হীন ) : হি– } কাণ । বাং কাণ ও হয় ] বিণ. চক্ষুহীন । , প্র-একচোখ কাণী ; দুচোখ কাণী ৷ ২ ৷ . একচক্ষুহীন। ৩। ফুল ; সচ্ছিদ্র । প্র-কাণ। গঙী, কাণাকড়ি। ৪। পোকা ধরা। স্ত্রী, কানী । (হি—কানী = এক চক্ষুহীনা। প্র--"অন্ধী . কানী লংড়ী লী –হিন্দী গান ) । কানা । কড়ি-ফুটা কড়ি যাহা বাজারে চলে না। : ২ । ক্রমাগত ব্যবহারে ফুঢ়া কড়ি। যে খেলে । সে কানা কড়িতেও খেলে—আস্ত কড়িতেই পেলা যায় কারণ তাং গড়াইয়া । দিলে হাতের কৌশলে চিত উপুড় করা চলে কিন্তু কানা কড়িতে তাহা চলে না ; তবে যদি | দক্ষ খেলোয়াড় হয়, তাহা হইলে সে | কানা কড়িও ইচ্ছামত চালিতে পারে। (তাহা । হইতে) আসলে বা মুলে প্রকৃত খেলোয়াড় । বা ক্রীড়াকুশল হওয়া চাই। কানা করে দেওয়া—অন্ধকারে অন্তরালেফেলিয়া দেওয়া | যাহাতেসে প্রতিযোগিতায় অমুকুলপথ দেখিতে ন পায় । চেষ্টা ব্যর্থ করা ; পরাস্ত করা । কানা খোড়ার একগুণ বাড়া— | প্রবচন ] অন্ধ ও খল্প ব্যক্তি চক্ষু ও চরণের | অভাব কর্ণ, ত্বক আদি ইন্দ্রির দ্বারা মোচন করিবার চেষ্টা করার ক্রমে সেগুলি সাধারণ কানা অপেক্ষ সমধিক পরিস্ফুট হয় এবং তাহাজের অনুভূতি, বুদ্ধিশক্তি প্রভৃতি বৃদ্ধিপ্রাপ্ত হয়। কানা ছেলের নাম পদ্মলোচন— [প্রবচন) চোখই নাই তার পদ্মচক্ষু হইৰে কি ? স্বতরাং লোচনহীনের পদ্মলোচন নাম রাখা যেমন নিরর্থক বা হাস্তাম্পদ উদ্ধপ নিরর্থক নামকরণ উপহাসাম্পদ। এই প্রবচন একটু বিকৃত হইয়া কোন কোন স্থলে দাড়াইয়াছে—“গাদ ছেলের নাম পদ্মলোচন ৷” কানার ম| [ গর্ভস্থ সন্তান অন্ধ বলিয়া এই নাম ] প্রথম অন্তঃসত্ত্বা নারী । ( নব-গর্ভিণী যে জননীর প্রাপ্ত হইয়াছেন তাহ জানাইবার জষ্ঠ পুত্রবতী পুরদ্ধাগণ র্তাহাকে "কানার ম৷” বলিয়া সম্বোধন করেন ) । চকরা-কানা [চক--র (তুচ্ছার্থে)কান] বিণ,চক্ষু থাকিতে কানা । কানামাছি । কানা (চোখ বধিয়া )-মাছি (মাছির মত ঘুরিতে থাকে বলিয়া ) ] ধি, ছেলেদের খেলা ; যে খেলায় একজন চোখ বাধিয়া কানামাছি সাজে ও আৱ সকলে তাহাকে চতুদিক হইতে স্পর্শ করে, সে ঘুরিয়া ঘুরিয়া যে স্পর্শ করিতে থাকে তাহাকে ধরিতে চেষ্টা করে । খেলার ৰোল —“কানামাছি ভো ভো” ইত্যাদি । কানা ( সং–কর্ণ ; ফা-কিনা ; হি— কিনার। } বি, কিনারা ; ধার ; প্রান্ত ৷ ২ ৷ পাত্রাদির মুথের বেড়, ঘের বা গল ; হাড়ীর ভাঙ্গা পার । প্র—“মেরেছ মেরেছ কলসীর কানা ৷" কানায় কানায়—( পাত্রের ) মুখে মুখে ; গলায় গলায় ; কিনার পর্য্যন্ত ; ছাপাছাপি । প্ৰ—“কানায় কানায় পূর্ণ আমার পরাণ”—ভর ভাদরে (রবি) । কানা ভাঙ্গা হাড়ী অর্থে—কানীয়ে । কানায়ে দ্রঃ । কানাই [সং-কৃষ্ণ ; হি—কইণই ; পা-প্রাকৃ —কণহে। “বাস্থদেবেহরিংকণ হো কেসবে ১ঞ্চপাণ্যধ-অভিধানপ্লদীপিক ] বি, শ্ৰীকৃষ্ণ । গ্ৰ—“তার মুখে ছাই দিয়া সে কানাই আসিবে তোমা নিকটে ।"-চণ্ডীদাস । কানাই বলাই-কৃষ্ণ বলরাম। প্র— "কানাই বলাই দুটি ভাই”—গান। না বিয়িয়ে কানায়ের মা-যশোদা কৃষ্ণকে উদরে ধারণ না করিয়াও র্তাহার জননী হইয়াছিলেন। সেইরূপ পরের ছেলের মা হওয়া ; ছেলে না হইলেও ছেলের "ঝক্কি পোয়ান" অর্থাৎ মায়ের কৰ্ত্তব্যপালনের কষ্ট স্বীকার করা। কানাকানি, নী { কর্ণাকণি। কাণাকণি এ: ) বি, এক কাণ হইতে অন্তের কাণ ; পরম্পর চুপেচুপে বলাবলি । প্ৰ—“ছুটি সোহাগের বাণী, যদি হত কাণাকাশি, যদি ওই মালাখানি পরাতে গলে । এখন ফিরাবে আর কিসের ছলে ॥”—রবীন্দ্র ।