পাতা:বাঙ্গালীর গান - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/২৫৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


و ته لا নতন ভাব ধোরে নতন স্বভাব, হেরে নিলে মন । নতন প্রেম বাড়াবার লেগে, এসে নিত্য সখা, দিতে দেখা, নতন নতন সোহাগে । এখন কোথা রৈল তোমার সে সব নতন ভাব, পেলে ছুতো লতা, করে বদনে লাকা । প্রাণ এত যদি ছিল মনে, তবে কেন মজালে আমায়ু । আমি অবলা, কুলেরো বালা, এত জ্বাল কি সহা যায় । শীলতা শমতী, কোথা ওরে প্রাণ, কোথা নতন আলপিন । নতুন ছল এমন নতুন কৌশল, কোথা তুমি শিখেছ প্রাণধন। প্রাণ, তুমি আপনার নহ, আমার হবে কি ! মনে মনে মনাগুণে আমি জ্বল্ব বই আর বলব কি ! অনেক দিনের আলাপ বোলে আদরে ডাকি । কেমন আছ তুমি প্রাণ, শুনি শ্রবণে । প্রাণ গেলে প্রাণ নিজ দুঃখ তোমায় বলিনে। বাঙ্গালীর গান । বিধিমতে প্রাণনাথেরে, করিলাম বারণ। কোরোনা কোরোনা বঁধু প্রবাসে গমন। সে কথা না শুনে প্রাণনাথ । অকালে সকালে প্রেমে হানলে বজাবাত। নারী হোয়ে, করে ধরে, সাধলাম তারে, তবু না রহিলো । মনে রইল সই মনের বেদন । প্রবাসে যখন যায় গো সে তারে বলি বলি বলা হ’ল না । *রমে মরমের কথা কওয়া গেল ন । যদি নারী হয়ে সাধিতাম তাকে, নির্লজ্জ রমণী বোলে হাসিত লোকে । সখি, পিক্‌ আমারে, ধিক্ সে বিধাতারে নারী জনম যেন করে না। একে আমার এ যৌবন কাল, তাহে কাল বসন্ত এল, Co. এ সময়ে প্রাণনাথ প্রবসে গেল । যখন আসি আসি সে আসি বলে, . সে আসি শুনিয়া ভাসি নয়ন-জলে। তারে পারি কি ছেড়ে দিতে, ফলহীন বৃক্ষের কাছে সাধলে দিলে ফলবে কি মন চায় ধরিতে লক্ষ বলে ছিড়ি ছু ইও না। আমায়ু বোলে, আমায় ছোলে, প্রাণ দিলে পরেরি করে । তুমি বল খেয়ে আছ তার প্রেমের ডেরে। বিরস মুখের হাসি দেখে, বল কে হবে সুধী । তুমি ছিলে যখন আয়বশে রসে জুড়াইতে । পরের হেয়ে আর কি এখন পার ভুলতে। Aআমার যা হবার হলো, প্রাণ ভাল দায়ে পড়েছ । রাহুগ্ৰস্ত শশী যেমন, তেমনি হয়েছ । সন্ধিযোগে সে শরীর স্থিতি দণ্ড নয়। সন্ধ্যা হোলে তোমার প্রাণ, নিত্য গ্রহণ হয় । সারা নিশি সৰ্ব্বগ্রাসী, দিনে ও চাদ মুখ দেখি । tomo তবে কি হবে সজনি নাথো মান কোরে গেল। প্রাণ সই আমি ভাবি ঐ, আবার দ্বিগুণ জ্বালায় জ্বলতে হোলে | তার মুখ দেখে মুখ ঢেকে র্কাদিলাম সজনি। অন'সে প্রবাসে গেল সে গুণমণি । একি সখি হ’ল বিপরীত মদন দহিছে এখন এ অবলার প্রাণ । প্রণের জ্ঞালায় এখন প্রাণ বাচান ভার। লজ্জা পেয়ে লজ্জা বুঝি না রহে আমার। কারে এ দুখ ক’ব সই, কত আর প্রাণে সাই, হ’লে| গো একি সখি যন্ত্রণ ॥ গেল তিন দিনে গ্রেম, চিরদিনে বিচ্ছেদ গেল না রসাভাসে, গেল ঘৃণ্য কোরে সে, পোড়া বিচ্ছেদের মনে কি ঘৃণা হ’ল না। হোলে তিন দিনে ছাড়াছাড়ি। পোড়া বিচ্ছেদের কি হয় গে। সখি, অবলার সঙ্গে এত আড়ি ॥