পাতা:বাঙ্গালীর গান - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/৫৪৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


84 to বেহাগ—আড়াঠেক।। তার কর গে৷ মা পার । মায়া-নদী মধ্যে পড়ে ভাবি অনিবার। স্নেহের তুফান তায়, বেগে বহে অতিশয়, ডুবি তাহে নাহি ভয়, কলঙ্ক যে মহিমার। জলচর পরিজন, মনেরে করে দংশন, বিনা তব শ্রীচরণ, নাহি কর্ণধার ;– শিবচন্ধের এই ত্রাস, নিশ্বাসে নাহি বিশ্বাস, যাইতে কালের পাশ, নাহিক নিস্তার ॥ কুমার শম্ভুচন্দ্র। নবদ্বীপাধিপতি মহারাজ কৃষ্ণচষ্ট্রের দ্বিতীয মহিষীর গর্ভে শম্ভুচন্দ্র জন্মগ্রহণ করেন । গার-ভৈরবী—য২ | মন তুমি এ কাল মেয়ে, কোন সাধনায় পেলে বল । কাল-রূপের আভা দেখে, নয়ন মন সব ভুলে গেল । ছিল বামা কার ঘরে, কেমন করে আনলি তারে, কাল নয় পূর্ণিমার শশী, সৃদয়মাঝে করে আলো । অরুণ যেমন প্রভাতকালে, তেমনি মায়ের চরণতলে । দ্বিজ শম্ভুচন্দ্র বলে (ও পদে ) জবা দিলে সাজে ভাল ৷ গার-ভৈরবী—যৎ । তীর্থবাসী হওয়া মিছে, তীর্থবাসী হওয়া মিছে । শুামার চরণ বিনে রে, মন কোন তীর্থ কোথায় আছে ? শুনেছি রে লোকে বলে, অযোধ্যা নগরে গেলে, দেখিলে সে রামলীলে, সকল পাপ ঘুচে। পুন মুনি লিখেন বেদে, সেই রাম পড়ে বিপদে, দিয়ে রক্তজবা কালীপদে, তবে ত রাবণ বধেছে। বাঙ্গালীর গাম । দ্বারকা মথুরাপুরী, শ্ৰীবৃন্দাবন আদি করি, কৃষ্ণ যথা লীলাকার লীলা করেছে । সেই কৃষ্ণের জন্ম যখন, কংস রাজা বধে জীবন, মায় রূপ হয়ে তখন,কৃষ্ণের জীবন বঁাচায়েছে।* শিবের কুত কাশী ক্ষেত্র, সকল তীর্থের সারতীর্থ, যে দেখেছে সেই তীর্থ, মুক্তি পেয়েছে। শন্তু ভাবে দিবানিশি, যার কুত সেই কাশী, আপনি হয়ে শ্মশানবাসী, শ্ৰীচরণ দে ধরেছে। খাম্বাজ–একতালা । ভাব সেই পরমেশ্বরী। ভ্ৰমে ভ্রান্ত হয়ে ভুল না রে মন ॥ প্রভাতে বলিকাকুতি, আদিত্য-মণ্ডলে স্থিতি, | রক্তবর্ণ পরম কুমারী। মধ্যাহ্নে যুবতী বাম শু্যামবর্ণ নিরুপম, সায়ং বৃদ্ধ সিতাঙ্গিনী নারী। ব্ৰহ্মরূপ নাভীমূলে, বিষ্ণুরূপ হংকমলে, ললাটে হয় শিব ত্রিশুল-ধারী। সহস্রদল কমলে, পরং ব্রহ্ম বেদে বলে, | নিত্য মুখময়ী দিগম্বরী। দ্বিজ শম্ভুচন্দ্রের বাণী, নিশুন্ত শুস্ত নাশিনী, শম্ভু মনোহর শাকস্তরী। শস্তু বাঞ্জিত পদ, সুধাপংক্তি কোকনদ, বিরাজে তা গঙ্গা গোদাবরী ॥ கான்_ற | | कूयाद्र मद्रष्ठ । কুমার । নরচন্দ্র-নবীপ রাজবংশ-সস্থত। ইহঁার রচিত অধিকাংশ শক্তি-সঙ্গীত অতি সরল ভাষায় গ্রথিত । সিন্ধু ভৈরবী—আড়াঠেক1। অনায়াসে যা হয় মন, তাই তুমি কর রে। রসন মগনা হয়ে, কালী কালী বল রে ॥ ", কি কার্য্যে রে কোষা-কুৰী, এস রে নির্জনে বসি, ভাবি শুমা এলোকেশী, বসে কাশী পাব রে ॥ যদি বল ধনে পুণ্য, সে পুণ্য তমতে পুর্ণ, ঘাগ যজ্ঞে নানা বিঘ্ন, সে ধন যে পাবে রে ॥