পাতা:বাঙ্গালীর গান - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/৯৫৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কালীনারায়ণ গুপ্ত। ( ও মন ) স্থৰ্য্য দেয় রে দিন করিয়ে, জোনাক দেয় রে চাদ, বাতাস বয় মেষ বরষে, জগং ভাসায় জলে রে ॥ (রে মন । শূন্তেতে বেড়ায় রে জল, মেঘ বিনা কে জানে রে, ওরে এই জহুরা তুচ্ছ করি কোন জহুর মানেরে Փոտա

ধষ্ঠ মা ভারতেশ্বরী, তোমার গুণে যাই মা বলিহরি, তোমার গুণের প্রসে, ভারত ভাসে, ফলে যেমন ভালে তরী। তেমপি ) লক্ষগুণের মধ্যে এ গুণ; (, 한 1 : 5, ( তুমি রাজ্যাধিকার আপনি নিয়ে, ধৰ্ম্মাধিকার দিলে ছাড়ি। (তাইত ) মোর অধীন হয়েও স্বাধীন রাজ্যে বসত করি, (কেমন ) বুক ঠুকি করিয়ে গোম, ধৰ্ম্মরাজ্যে চলি ফিরি । রুষ ওFষাদি রাজরাজড়ার, কত কথা শুনি পড়ি ( মাগে৷) তারা নাকি আপনা ধৰ্ম্ম মানায়ু, লোকে শাসন করি। তুমি কিগো পাতে নাম ; সেরূপ নিতে ধৰ্ম্ম কড়ি, (তবু) সেই অনুরূপ করলে নাম, স্বরূপ ধৰ্ম্মের মৰ্ম্ম ছাড়ি। ধনের দীন যে ভারতবাসী, এ জন্য কি ভাবনা করি, (তুমি ) মমের ধন যে মনে রেখেছ, এই গুণেই সব পাশরি। ভারতের মনোরথ পূর্ণ, দেখ গো ভারতেশ্বরী, ( বলি ) টে থাক মাগো তুমি যুগযুগান্তর রাজ্য করি। পূৰ্ব্ববঙ্গ ব্রাহ্মসমাজ, ত্ৰক্ষে এ প্রার্থনা করি (মাগো )
  • .
כ 9איל যে ধৰ্ম্মে রক্ষিছ তুমি, ণে ইউক তোমার রক্ষাপ্লারী (তোমার) রাজত্বকাল অৰ্দ্ধশত, গত দেখে আশা করি, ( মাগো ) শত বর্ষ পূর্ণ হলে আবার দ্বিগুণ আমোদ করি। (হবে) জুবিলিপূর্ণ বিশই জুন, তখন হবে গ্রীষ্ম ভারি ( তাই ) ভারতবর্ষে মনের হর্ষে, জুবিলবােলই ফেব্রুয়ারি। পিলু-খয়রা। বলরে বলরে বলরে ব্রহ্মকুপাহি কেবলং পাইলে ব্রহ্মকুপার বিন্দু হইবে শীতলং । সৃদয় কাননে ফুটিবে ফুল, চারিদিক হবে সৌরভে আকুল, জথ কুপাগুণে অবশ হ্যুদয় হইবে সবলং জীবনের ধত পাপতাপ ভর, ব্ৰহ্ম কুপগুণে হবে ছারখার, মরণ ঘূচিবে জীবন বাঢ়িবে, হইবে নিৰ্ম্মলং | হইবে হৃদয়ে আনন্দ অপার, উথলিবে প্রেম-সিন্ধু পারাবার, দেখেছ না যাহা দেখিয়ে এবার হইবে বিহ্বলং। কি ভয় ভাবন ব্ৰহ্ম কৃপাগুণে, কি করিবে শোক তাপের আগুণে, কালী কয় বল কর সেইগুণে হুইও না বিকল । दौॐम-८१भूऎ। । ব্ৰহ্মনাম কি মধুর রে ভাই। নামের বালাই লয়ে মরে যাই ॥ নামে পাষাণ গলে, ভাসে জলে, i মরলে নবীন জীবন পাই । নাম স্মরণেতে হয়, প্রাণে মধুর প্রেমোদ, ( যাহা ) প্রাণে উঠে প্রাণে ফুটে, প্রাণেতেই লয়, এ নাম স্বৰ্গমৰ্ত্ত্য পাতাল ছেড়ে
হৃদয় ধরে করে ঠাই । নাম স্মরণে সরল, যত মনেরি গরল,

আলোর কাছে আঁধার ধেমন তেমনি অবিকল;

এমন জাগ্রত জীবন্ত নাম আর জন্মে কভু শুনি নাই।

l .