পাতা:বিবিধ প্রবন্ধ (ভূদেব মুখোপাধ্যায়) প্রথম ভাগ.djvu/৯১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

রঞ্জাবলী |" *○ রাজ্যের শত্রু পরাজিত হইয়াছে, উপযুক্ত মন্ত্রীর উপর সমস্ত ভার অর্পিত হইয়াছে, প্রজুদিগের আপদ বিপদ প্রশমিত এবং তাহারা সম্যক্রূপে পালিত হইয়াছে , (প্রিয়তমা) প্রদ্যোতরাজকন্য, বসন্ত সময় এবং তুমি উপস্থিত্ব,—অতএব মদনের উৎসব নাম মাত্র প্রকৃত উৎসব আমারই। . এই তিনটা শ্লোকের প্রথমটদ্বারা অভিনয় দ্রষ্টুবর্গের কৌতুহল প্রবলরূপে উদ্দীপ্ত করা হইয়াছে ; দ্বিতীয়টার দ্বারা নায়কের রূপ গুণ গৌরবাদি এমনরূপে প্রতিষ্ঠাপিত হইয়াছে যে, তাহার কার্যকলাপ দর্শনার্থ দ্রষ্টুবর্গের মনে স্বতই ঔৎসুক্য জন্মে ; এবং তৃতীয় শ্লোকদ্বারা উৎসবের অবসর এবং তাহার-অধিক্য প্রকটিত করিয়া দশকবৃন্দের চিত্তাকর্ষণ করা হইয়াছে। এ স্থলে দেখা যাইতেছে যে, নাগানন্দে যেরূপে নায়কের হঠাৎকারে_ রঙ্গভূমিপ্রবেশ হইয়াছে, যদিও প্রায় সেইরূপে কালিদাস শকুন্তলায় তাহার নায়কের প্রবেশসাধন করিয়াছেন বটে, তথাপি রত্নাবলীর প্রণালী উৎকৃষ্ট - তর বলিয়াই বোধ হয়। নায়ক নাটকের সর্বপ্রধান পাত্র। যেমন প্রধান বা পূজ্য ব্যক্তির সমাগমের পূৰ্ব্বে কতকগুলি ব্যাপার অবশ্য অমুষ্ঠেয় সেইরূপ রঙ্গস্থলে নায়ক প্রবেশের পূৰ্ব্বেও তাহার প্রতি অভিনয়দ্র বর্গের ঔৎসুক্য উৎপাদন করা প্রয়োজনীয়। রত্নাবলীতে সেই প্রয়োজন সম্যক্রূপে সাধিত হইয়াছে। বিশেষতঃ যৌগন্ধরায়ণের সংক্ষেপোক্তি দ্বারা কবি কি অপূৰ্ব্ব কৌশল সহকারে দোখাইয়াছেন যে যেমন বিশ্বসংসারের অন্তভূত বিধাতুশক্তি অপ্রকটভাবে সমস্ত কাৰ্য্যকলাপ সাধন করিতেছেন, সেইরূপ তাহার এই নাটক-সংসারটাতেও একটা পরম চক্রীর প্রভাব অন্তগুঢ়ভাবে বিদ্যমান রহিয়াছে। ( * } রত্নাবলী নাটিকার গঠনপ্রণালীর সমীচীন পারিপাট্য, ইহার বিশিষ্ট্ররূপ অভিনয়োপযোগিতা এবং ইহার ‘নান্দী’ এবং প্রস্তাবনার উৎকর্ষ—এই সকল ৰিম্বয় উত্তরচরিত, শকুন্তলা, নাগানন্দ এরং মুদ্রারাক্ষস প্রভৃতি নাট