পাতা:বিভূতি রচনাবলী (অষ্টম খণ্ড).djvu/১১৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


দেবযান % e ა ছায়াপথ, অসংখ্য বকৃঝকে তারকারাজি। ব্ৰহ্মাণ্ডের বিরাটত্বের সঙ্কেত । তরুণ দেবতা বল্পেন—এই হোল হিমালয়। বাংলাদেশের ওপরেই—ওই দ্যাথো দূরে একটা নদী নেমেচে পাহাড় থেকে— যতীন বল্লে—ত হলে বোধ হয় তিস্তা— —তুমি দেখলে তো মানুষের অবস্থা ? —আশ্চর্ষ লাগলো, এমন হয় তা জানতাম না, দেব । আপনি যাকে মানব-আবর্ত বলেন, ওর উচ্চতর অবস্থা কি ? —উচ্চতর সাধনা মানুষকে দেবযান-পথে উচ্চতর লোকে নিয়ে যায়। স্বঃ, জন, মহঃ, তপঃ ও সত্যলোক বলেচেন ভারতবর্ষের জ্ঞানী লোকেরা। এত কল্পকাল সেখানে থাকে উচ্চতর জীবাত্মা । -कझ कि ? —প্রত্যেকবার স্বাক্টর পরে প্রলয়, প্রলয়ের পরে আবার স্বষ্টি । এই কালব্যাপ্তির নাম কল্প । কল্পাস্তে উচ্চতর জীবাত্মারও পতন হয়। তবে সত্যলোকেরও দূরপারে ব্রহ্মাণ্ডের বহিঃস্থিত যে ব্ৰহ্মলোক, সেখানে যারা যান ভগবানের সঙ্গে তারা এক হয়ে যান। মানব-আবর্তে র্তারা আর ফিরে আসেন না। —এরই নাম মুক্তি ? * —একেই ভারতবর্ষের ঋষিরা মুক্তি বলেচেন । চলো তোমাকে একটি ভারতবর্ষের প্রাচীন কবির কাছে নিয়ে যাবো । উপনিষদ বলে দার্শনিক কবিতা ভারতবর্ষের, তিনিও তার একজন রচয়িতা । ভ্ৰাম্যমান কবি, সব সময় পাহাড়ে সমুদ্রতীরে বনানীর নির্জনতায় কাল কাটান। পৃথিবীর মধ্যে এই হিমালয় এবং আরও অনেক উচ্চতর পর্বতের বনে বৃক্ষলতায় প্রায়ই মাঝে মাঝে রূপের ধ্যানে মগ্ন থাকেন। আর মিশর দেশের এক উচ্চ আত্মার সঙ্গে পরিচয় করাবো। —ত হোলে তো, দেব, পৃথিবীর আসক্তি র্তার এখনও যায় নি ? অর্থাৎ আমি উপনিষদের সেই কবির কথা বলচি– 動 —র্তার আসক্তি বিশুদ্ধ সৌন্দর্যের ধ্যান । কোনো পার্থিব তৃষ্ণা নয়। তাই জনলোকের অধিবাসী, নিজের আনন্দের জন্যে নেমে আসেন পৃথিবীতে । র্তার আগমনে পৃথিবীর অনেক উপকার । বহু লেখক ও কবিকে অদৃষ্ঠভাবে প্রেরণা দান করেন, সেইজন্যেই তিনি পৃথিবীতে আসতে ভালবাসেন। পৃথিবীর হিসেবে বলতে গেলে বহু শতাব্দী ধরে পৃথিবীতে এ কাজ তিনি করেচেন-ৰ্তার কাজই ওই । আমার সঙ্গে তার যথেষ্ট বন্ধুত্ব । আমার নিজের কাজে তিনি যথেষ্ট সাহায্য করেন আমায়।. " এবার পুষ্প বিনীতভাবে বল্লে-দেব, একদিন আমাদের কুটিরে পদার্পণ করবেন দয়া করে । আপনার বন্ধু সেই তাকেও নিয়ে ? পরে দেবীকে দেখিয়ে বল্লে—ইনিও যাবেন আমার বলেচেন দয়া করে । তরুণ দেবতা বলেন—যাবো ।