পাতা:বিভূতি রচনাবলী (অষ্টম খণ্ড).djvu/১৭১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


দেবযান S&\o স্তরের মত হয়ে গিয়েচে । রামলাল বল্লে—কোথায় গেলে, যতীনদা ? থাকো থাকে, যাও কোথায় ? ও যতীনদী— ততক্ষণে নরকের প্রবল আকর্ষণে আশাও তার নিজের স্তরে নীত হয়ৈচে । যতীন দীর্ঘনিঃশ্বাস ফেললে । এ জগতের এই নিয়ম । আশা সত্যিই বলেচে, কোনটা স্বপ্ন কোনটা আসল তা বোঝবার যে নেই। সে কোন দেবতা, যার শরণ সে নিতে চায়, এ স্বপ্নের শেষ করতে চায় । করুণাময় এমন কে মহাদেবতা আছেন, যার কৃপাকটাক্ষে আশা তো আশা, কত মহাপাপী উদ্ধার হয়ে যায় চোখের এক পলকে,'মহারুদ্রের জ্যোতিস্ত্রিশূলের এক চমকে অনন্ত বোম ঝলমল করে ওঠে পুণ্যের আলোয়, পাপতাপ পুড়ে হয় ছারখার, অবাস্তব স্বপ্নের অবসানে। হে অনন্তশয়নশাল্পী নিদ্রিত মহাদেবতা, জাগো, জাগো ! - ওদের বাড়ীর পেছনের বাশবনে কর্কশ স্বরে পেচা ডাকচে । শীতকালে রাধালতায় থোকা থোকা ফুল ফুটেচে বেড়ার ঝোপজঙ্গলে । ঝিঝি’ ডাকচে ভোবার ধারে । মনে হয় চাঙ্গ উঠচে পূর্বদিকের আকাশে । আকাশে নক্ষত্রদল পাৎলা হয়ে এসেচে। বোধহয় পৃথিবীর কৃষ্ণ প্রতিপদ কিংবা দ্বিতীয়া তিথি । পুষ্প করুণাদেবীর দেখা পায়নি বহুদিন । তিনি নানা ধরনের কাজে সর্বদা ব্যস্ত থাকেন, পুষ্প সেজন্যে তাকে তেমন ডাকে না । আজ অনেক দিন পরে পুষ্পের মনে হোল করুণাদেবীর একবার খোজ করা দরকার। সে ওঁর সঙ্গে দেখা করার জন্তে উচ্চ স্বর্গে উঠে গেল, তার সেই ক্ষুদ্র গ্রহটিতে, সেই কুস্থমিত উপবনে। যখনই সে এখানে আসে তখন কি এক বিস্ময়কর আবির্ভাবের আশায় সর্বদা সে থাকে, কি সৌন্দর্য ও শাস্তির লীলাভূমি এই পবিত্র দেবায়তন । স্বগন্ধ কিসের সে জানে না, কোন ফুলের সে সুগন্ধ তাও জানে না—কিন্তু অন্তরাত্মা তৃপ্ত হয়, সার। মন খুশি হয়ে ওঠে হঠাৎ ৷ 輸 মহারূপসী দেবী ওকে হাসিমুখে হাত ধরে একটি বিশাল বনস্পতিতলে স্ফটিকবেদীতে নিয়ে গিয়ে বসলেন । পুপ চেয়ে চেয়ে অবাক হয়ে ভাবলে—এ গাছ তো এত বড় দেখিনুি, এত বড় গাছই তো ছিল না । করুণাদেবী মৃদু হেসে বল্পেন—কি ভাবচ, গাছটার কথা ? ও তৈরি করেচি। বনস্পতিতে ভগবানের প্রত্যক্ষ আবির্ভাব। তাই দেখি সারা সময় চোখের সামনে । —কি গাছ ? 輸 —পৃথিবীতে ছিল না কোনোদিন, নাম নেই। —আমি আপনার কাছে কোনো অপরাধ করেছিলাম কি ? দেখা দেননি কতদিন । জাম্বার কষ্ট তো জানেন সব। আপনি একবার চলুন, যতীনদী বড় কাতর হয়ে পড়েচে, আশা-বৌদি নরকে । আত্মহত্যা করেছিল । করুণাদেবী অদ্ভুত ধরনের হাসি হাসলেন। বল্লেন - সব জানি। আমার পৃথিবীর ছেলে