পাতা:বিভূতি রচনাবলী (অষ্টম খণ্ড).djvu/৩২৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


• বিভূতি-রচনাবলী অনেক কষ্ট করে লোহার সরু সিক দিয়ে চাড় দিতেই তালাটা খুলে গেল। স্বটকেসের ভালাটা তুলে নিজের ধুতি গামছা বার করতে গিয়ে কিন্তু সে বিশ্বয়ে কাঠ হয়ে দ্বাড়িয়ে রইল মুটকেসের ভিতরটাতে চেয়ে । এ কার জিনিসপত্র ? শাড়ী কিসের ? বাক্সের ওপরের দিকে থাকে থাকে সাজানো রঙবেরঙের শাড়ী, তার নীচে ব্লাউজ গোটা ছ-পাত, সায়া দুটি ; এ ছাড়া পাউডারের কোঁটে, ক্রিম, আরও লম্বা ও গোল আকারের ছোট বড় মুদৃপ্ত কোঁটাে, শিশি–সাবানের কেস, লেখার প্যাড, ফাউন্টেন পেনের কালি—এক তাড়া চিঠি, আয়না চিরুনি, আরও কত কি ৷ সৰ্ব্বনাশ -কার বাক্স এটা ? প্রথমটা তার মনে হোল, তার বোন কমলার সুটকেলটা কি ভুলে গোলমাল হয়ে—? কিন্তু ন, তা নয়। এ রকম শৌখিন শাড়ী ও জিনিসপত্র কমলার নেই। তা ছাড়া এ তো কোন জায়গায় যাওয়ার প্রাকালে গুছিয়ে নেওয়া বাক্স ; কমলা বাড়ী বসে আছে, তার বাক্স এমন গোছালো থাকবার কথা নয়। হতবুদ্ধি প্রতুল বাক্সের জিনিসগুলো তুলে হাতে নিয়ে দেখতে লাগল। একটা মখমূলের বড় কোঁটোর মধ্যে লকেটওয়ালা একটা হার, একটি আংটি, দুটি বড় বড় কানের পাশা, সোনার বড় সেফটিপিন একট, গাছ-কয়েক সরু সোনার চুড়ি ; নতুন-ওঠ কাচের চুড়িও ছু গাছ, খুব বড় বড়, ঝকঝকে কাচ বসানো, কাজ-করা। একটা মনিব্যাগে চারখানা দশ টাকার নোট, কিছু খুচরো। সম্পূর্ণ মেয়েলী স্বটকেল। পুরুষের নাম-গন্ধ নেই স্বটকেলের কোন জিনিলে বা তার আবহাওয়ায় । প্রতুল দশ হাত মাটির তলায় সেদিয়ে গেল সব ব্যাপারটা বুঝে দেখে। মুটকেস বদল হয়েছে বেশ বোঝা গেল, কিন্তু কোথায় বদল হোল ? ট্রেনে, না বালুরঘাট থেকে আসবার পথে মোটর-বালে ? মোটর-বাসেই হওয়া সম্ভব, কারণ ট্রেনে তার কামরায় কোনও মেয়ে তো ছিল না ; পাৰ্ব্বতীপুর থেকে সে ট্রেনের যে কামরায় উঠেছিল, তাতে হিন্দুস্থানী ও মাড়োয়ারী যাত্রী বোঝাই ছিল ; তাদের মধ্যে এ সুটকেস কারও নয়। এ বাঙালী মেয়ের স্ট্রকেল | o আচ্ছা, মোটর-বাসে যদি বদল হয়ে থাকে, তবে কোন মেয়েটির বাক্সের সঙ্গে হওয়া সম্ভব ?--তা ভেবেই বা কি মীমাংসা হবে, কারণ যে-কোনও মেয়ের সুটকেসের সঙ্গেই সম্ভব হতে পারে,খন সকলের বান্ধ ছিল মোটরবাসের ছাদে। যাক সে কথা পরে ভাবা বাবে তার যথেষ্ট সময় আছে। এখন মুশকিল হয়েছে এই যে, যা পরনে আছে তা ছাড়া আর তার দ্বিতীয় ধুতি নেই, গামছা নেই, সাবান নেই, ক্ষুর নেই, লুঙি নেই—কিছু নেই। আর এই বিজন চীবাগানও বা, ফরাসী ইকোরেটােরিয়াল আফ্রিকাও তাই—কিছু মেলে না এখানে। এখান থেকে সাত মাইল দূরে একটি ছোট বাজারে কেঁয়েদের দোকান আছে কাপড়ের, তবে সেখানে বাঙালী ভদ্রলোকের উপযুক্ত জাম-কাপড় পাওয়া যাবে না। এখন আপাতত স্নান করে উঠেসে পরে কি, গারে দেয় কি গামছ কোথায়? গাড়ি কামার কিলে ? নাপিত আছে বটে, কিন্তু তার সে কুলি স্কুরে প্রতুল কখনও কামাৰে মk