পাতা:বিভূতি রচনাবলী (অষ্টম খণ্ড).djvu/৪৫২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


Sß বিভূতি-রচনাবলী গামি লকালে গোঁর পিওন চিঠি বিলি করতে এলো । এলে সে বললে—আজই আমার চাকরির শেষ দিন বাবঠাকুর। বাড়ী এসেচেন, তবুও শেষ দিনটা আপনাকে চিঠি দিয়ে গেলাম। " —আজই শেষ দিন ? —আঙ্গই বাবাঠাকুর । পয়ত্রিশ বছর তিনমাস পূর্ণ হোলো। আর কতদিন রাখবে গবর্নমেণ্ট ! —বোলো । একটা পাকা আনারস নিয়ে যাও । বাশবাগানে জঙলি আনারস অনেক হয়ে আছে, বেশ মিষ্টি । & গৌর কিছুক্ষণ বসে গল্প করে চলে গেল । পশ্নদিনও দেখি সে ডাকব্যাগ ঝুলিয়ে চিঠি বিলি করে বেড়াচ্চে, সঙ্গে একজন ছোকরা বয়সের পিণ্ডল । বললাম—কি গেীর, আজ আবার যে ? go গোঁর প্রণাম করে বললে—নতুন লোক এসেচে, ও-তো ৰাড়াঘর চেনে না, তাই ওকে দেখিয়ে দিয়ে বেড়াচ্চি । 輯 কিছুদিন কেটে গেল । গোঁর পিওনের বাড়ীতে ওর স্ত্রী অনেকদিন মারা গিয়েচে । একটি মেয়ে আছে, সেই রান্নাঘাড়া করে। অবস্থা অতি দীনহীন । একদিন ওর বাড়ী বেড়াতে গিয়েছিলাম, গিয়ে দেখি ও পরের বাড়ীতে দুধ দুয়ে বেড়াচ্চে । 電 গৌর বললে—বাবাঠাকুর, সামান্য পেনসনে কি চলে? আজকাল এই বাজার । তাই দেখি, জুধ গ্লুয়ে কিছু যদি উপরি পাই । —একটা ছোটখাটো ব্যবসা করে না কেন ? 影 —বাবাঠাকুর যথেষ্ট বয়েস হয়েচে । হাতে টাকা-পয়সাও নেই যে ব্যবসা করবো । এই রকম করে আপনাদের আশীৰ্ব্ববাদে একরকম চলে যাবে। সত্যিকার দীনতামাখ মুখ ওর। দীনতা যদি বৈষ্ণবস্থলভ গুণ হয়, তবে ও একজন খাটি বৈঞ্চণ। . তারপর একটি মজার ঘটনা ঘটে গেল। ব্যাপার এই ঃ মহকুমা হাঞ্চম বদলি হয়ে যাচ্চেন, তার বিদায় অভিনন্দনের সভায় জামায় ডাক পড়লো। খুব বক্তৃতা ও প্রচুর জলযোগের আয়োজন ছিল সেখানে। এমন ৰাম রাজকর্মচাৰী জীবনেও নাকি কেউ দেখেন নি। তিনি মহকুমার যে উপকার করে গেলেন, এখানকার অধিৰাসীবা কখনো তা বিশ্বত হবে না (কি উপকার ? আজকের দিনটি