পাতা:বিভূতি রচনাবলী (অষ্টম খণ্ড).djvu/৯০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ՀՀ বিভূতি-রচনাবলী শুনেই বলতো । সে বল্পে—আপনি মন করলে কি ওকে দয়া করতে পারেন না ? f করুণাদেবী হেসে বল্লেন-আমি খেটেই মরি, ভেবেই মরি। দয়া কি করতে পারি সেভাবে বাছ ? এদের যেদিন ভালো হবে, সেদিন আমারও ছুটি । এ সব অতি নিম্নদরের আত্মা, কেউ ওদের ইচ্ছে করে কষ্ট দিচ্চে না, নিজের কর্মফলে কষ্ট পাচ্ছে । ভগবান প্রত্যেক লোককে বড় দেখতে চান, সৎ, সুন্দর, নির্মল দেখতে চান, উচ্চ প্রকৃতি জাগলো কিনা দেখতে চান—যেমন ধরে সেবা, স্বাৰ্থত্যাগ, দয়া, ভক্তি, ভালবাসা। এ যাদের মধ্যে নেই বা জাগেনি, তাদের সেগুলো জাগিয়ে দেবার কৌশল তার জানা আছে। কষ্ট দিয়ে; শোকের বোঝা -রোগের বে।ঝ দিয়ে যে করেই হোক ও-লোকে কি এ-লোকে তার চোখ ফোটানোর চেষ্টা হয়ই, তাও যাদের না হয়, অন্য গ্রহে তাদের জন্মগ্রহণের ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়, যে গ্ৰহ পৃথিবী: চেয়েও ধার গতিতে চলে। সেখানে লোকে আস্তে আস্তে অনেক সময় নিয়ে সব জিনিস শেখে । জড়বুদ্ধি জীবেরা তাড়াতাড়ি শিখতে পারে নী—সেটা তাদের উপযুক্ত পাঠশালা । এ-লোকেও নরকের মত যন্ত্রণাদায়ক অবস্থা আছে, অতি নিম্নস্তরের পাপী জীবের। সেখানে ঠেকে শিখে মামুখ হচে । এ একটা মস্ত বড় বিদ্যালয় । দেখতে চাও? একবার নিয়ে যাবে। — পুপ জিজ্ঞেস করলে—তাহলে আশা বৌদির কি হবে বলুন – আমি দেখি একটু ভেবে, দাড়াও । পরে তিনি চোখ বুজে খানিকক্ষণ কি ভাবলেন । চোখ চেয়ে ওদের দিকে চেয়ে বল্লেন— এখনও তিন জন্ম । ওর হৃদয়ে প্রেম নেই | সব স্বাৰ্থ । যে কোনো লোককে ভালবাসলেও তে বুঝতাম। এখন যার সঙ্গে আছে, তাকেও তেমন ভালবাসে না। সাংসারিক স্বাৰ্থ । বুড়ো মার সেব না করে তাঁকে ছেড়ে এসেচে । যতীনের মনে ভালবাসী আছে, তাই সেখানে যায়। কিন্তু ওর স্ত্রীর কোনো উপকার আপাতত কিছু হবে না। যতীন বল্লে ওর জন্যে মন বড় খারাপ, ওর কষ্ট দেখে— --তুমি যাকে ভাবচো কষ্ট বা পাপ, ও তাকে ভাবচে স্থখ, সাংসারিক সুবিধা । ও যেদিন পাপ ভেবে ত্যাগ করবে, সেদিনই ন৷ ওর উন্নতি । তোমার ভাবনায় কি হবে ? --আমি কি ওর কোনো উপকার করতে পারিনে ? আপনি যদি দয়া করে ওকে পাপী ভেবে ওকে সাইtয্য করেন— —পাপ বলে যে না বুঝেচে, অনুতাপ যার না হয়েচে, পাপকেই যে আনন্দের পথ বলে ভাবচে, যার মনে ত্যাগ নেই, কর্তবাবুদ্ধি নেই, কোনো উচু ভাব মেই—আনবার চেষ্টাও নেই-- তাকে শুধু দয়া করলেই ভালো করা যাবে না। ওর ভার আছে র্যাদের হাতে তারা অসীম জ্ঞানের প্রভাবে জানেন, এই সব নিম্নশ্রেণীর মনকে কি ভাবে সংশোধন করতে হয়। সেই পথ দিয়ে ওরা উঠবে ! কোনো আত্মার প্রভাব ওর মনে রেখাপাত করবে না । পুষ্প বল্পে—যদি আমরা রোজ ওর মনে ভাল ভাব দেবার চেষ্টা করি ?