পাতা:বিভূতি রচনাবলী (একাদশ খণ্ড).djvu/১৮১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


गच्छडि 303 —তা ঠিক বলা যায় না। কিন্তু আপনি তো কলকাতায় যাবেন। —ঐখানে আমায় মাপ করতে হবে বাৰু। কলকাতায় গিয়ে জামি থাকতে পারবে না। অভ্যেসই নেই বাবু-মাঝে মাঝে আপনার কাজে বেলেঘাটা-আড়তে যাই—ক’লে আসতে পারলে যেন ৰাচি । —কেন বলুন তো ভড়মশায় ? —ওখানে বড় শব্দ দিন-রাত । আমার জন্মে অভ্যেস নেই বাবু, অত শব্দের মধ্যে থাকা । আমরা পাড়াগেয়ে মানুষ, ওখানে থাকা কি আমাদের পোষায় ? অামার বেয়াবি মাপ করবেন বাৰু, সে আমার দ্বারা হবে না। নিৰ্ম্মল আসিয়া একদিন বলিল,—ওহে তাহ’লে দু-খানা লরি করে মালপত্র ক্রমশঃ পাঠাই কলকাতায় । গদাধর বলিলেন–কিন্তু তোমার বৌ-ঠাকরুণ বলচেন, এখানে কিছু জিনিস থাক । এ-বাড়ীর বাস একেবারে উঠিয়ে দিচ্ছিনে তো আর ! মাঝে মাঝে আসবে।-যাবে।-- —সে তো রাখতেই হবে। তবে সামান্য কিছু রাখে। এখানে । জিনিসপত্র এখানে থাকলে দেখবার লোকের অভাবে নষ্ট হবে বইতো নয় ! —তাই বলছিল তোমার বৌ-ঠাকরুণ। এখানেও পৈতৃক বাড়ী বজায় রাখা আমারও মত। শুভদিন দেখিয়া সকলে কলিকাতায় রওনা হইলেন। নিৰ্ম্মল সঙ্গে গেল। ঠিক হইল, ভড়মহাশয় আপাততঃ কয়েক মাসের জন্য কলিকাতার আড়তে থাকিয়া কাজকৰ্ম্ম গুছাইয়া বন্দোবস্ত করিয়া দিয়া আসিবেন—তবে উপস্থিত নয় । মাসখানেক পরে আড়তের কাজ অল্প একটু চালু হইলে তার পর । ভিন লালবিহারী সা রোডে ছোট দোতলা বাড়ী । চারখানা ঘর, এ-বাদে রান্নাম্বর ও ভাড়ার-ম্বর আছে । গদাধর স্ত্রীকে বলিলেন—বাড়ী কেমন হয়েছে ? —ভালোই তো । কত টাকায় হলো ? —সাড়ে দশ হাজার টাকা। বন্ধক ছিল—খালাস করতে আরও দু'হাজার লেগেছে। —এত টাকা বাড়ীর পেছনে এখন খরচ না করলেই পারতে। —কিন্তু কলকাতায় বাড়ী•••একটা সম্পত্তি হয়ে রইলো, তা ভুলে ঘেও না। —আমি মেয়েমানুষ কি বুঝি, বলে ? ভূমি বা ৰোঝে, তাই ভালো। बि. ब्र. २०->> -