পাতা:বিভূতি রচনাবলী (একাদশ খণ্ড).djvu/২৯৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


জ্যোতিরিক্ষণ ՀՊծ কাজকর্ম সেরে সব দিক দেখতে তো পারি নে। যত দূর পারি, চিরকাল যা হয়ে আসছে, তাই হবে । —একটু মন দিয়ে–মানে, উনি বুড়ো মানুষ— —আমি তা জানি । যা পারি হবে । ভেব না। বাবা ঠাকুরদাদার কাছে বিদায় নেবার সময় কত দিন দেরি হবে তা ঠিক বললেন না। বললে ঠাকুরদাদা হয়তো যেতে দেবেন না কিংবা ব্যস্ত হয়ে পড়বেন । বাবা যখন বেরুলেন, ঠাকুরদাদা বললেন—অ হরিশ, কবে ফিরবি ? র্তার চিরন্তন প্রশ্ন । —এই যত শীগগির হয় বাবা, আপনি ভাববেন না। ঠাকুরদাদাকে ফেলে কোথাও গিয়ে বাবা স্বস্তি পেতেন না আমি জানি । ঠাকুরদাদা নাকি তিন বছর বয়স থেকে বাবা ও মার মত করে মানুষ করেন বাবাকে ঠাকুরমায়ের মৃত্যুর পরে। বাবা যেন ভাবতেন ঠাকুরদাদা শক্রপুরীর মধ্যে বাস করছেন—চতুর্দিকে শক্রবেষ্টিত অবস্থায়—একমাত্র আপনার জন তিনি নিজে । চোখে চোখে রাখতেন এইজন্তে সৰ্ব্বদা । কারও হাতে ছেড়ে দিয়ে বিশ্বাস করতেন না। বলা বাহুল্য, ঠাকুরদাদা তো নিজেকে অসহায় শক্রবেষ্টিত বলে মনে করতেনই । বাবা এবার বাড়ী ফিরতে বড় দেরি করতে লাগলেন। অবশেষে যখন ফিরলেন তখন গরুর গাড়ী করে ভীষণ অস্বস্থ অবস্থায় । ঘোর জর। জরের ঘোরে বলতে লাগলেন—বাবাকে কেউ বলো না আমি অসুস্থ হয়ে বাড়ী এসেছি । ঠাকুরদাদা কিন্তু আন্দাজে মাঝে মাঝে বাবাকে ডাক দিতেন। বুঝতে পেরেছিলেন কিনা কি জানি । —অ হরিশ ! আমার জন্তি কি আনলি, অ হরিশ ? বাবা ঠিক শুনতে পান। জরে ধুকতে ধুকতে বললেন—বাবা বাঁচতে আমার যেন কিছু না হয়, হে ভগবান ! মরেও স্বখ পাব না অস্কখ বড় বাড়ল। জেলা ཨ་༽“ཚ༢༡དང་༥༣as། সংসারের পুজি ভেঙে বাবার চিকিৎসা হল । একদিন বড় বাড়াবাড়ি হল । ঠাকুরদাদাকে আর দেখাশুনো করার লোক নেই, বাবাকে নিয়েই সবাই ব্যস্ত। গ্রামের ত্রিলোচন ঠাকুরদাদার কাছে বসে তাকে বাজে গল্পে ভুলিয়ে রাখলে । R সবাই বলতে লাগল—স্থবোধ আর বঁাচবে না। আহা, বুড়োর কি কপাল! বাবার মৃত্যু হল শেষ রাত্রে। ঠাকুরদাদা তার কিছুই জানেন না । গভীর ঘুমে অচেতন। খুব ভোরে বাড়ীতে এসে জিলোচন চক্রবর্তী ঠাকুরদার হাত ধরে ছুতো করে বাইরে কোথায় নিয়ে গেল ।