পাতা:বিভূতি রচনাবলী (একাদশ খণ্ড).djvu/৪৫১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কুশল পাহাড়ী §ey চোদ্দ বছর পরে। কিন্তু তার গালের আচিল আমার অত্যন্ত পরিচিত, শৈশবের আবেষ্টনীতে র্তাকে নিয়ে গিয়ে ফেললে । রাঙা খুড়ীমার কান্নাভরা চোখ মনে এল, কি জানি কেন ওঁদের সেই জঙ্গলে-ভরা সিংদরজাটার কথা মনে হল । আমিও দেশের বাড়ী ছেড়েচি পাচ ছ' বছর । হঠাৎ এভাবে বাল্যের হরিকাকার দেখা পেয়ে সারনাথ ভুলে গেলাম, বন্ধুবান্ধবদের ভুলে গেলাম, গণেশ মহল্লায় প্রসিদ্ধ রামলীলা উৎসবের কথা ভুলে গেলাম । বন্ধুদের বল্লাম—তোমরা সারনাথ যাও, আসবার সময় আমায় নিয়ে নিও—কিংবা আমি আজ না হয় পাড়েপুর থেকেই যাই— ওরা বল্লে—কোথায় থাকবি এখানে ? —একটা হোটেল কিংবা সরাই— —না, সে সবে দরকার নেই। আচ্ছা তুমি গল্প কর দেশের লোকের সঙ্গে। যাবার সময় যেও | ওরা চলে গেল। নীল প্রশাস্ত আকাশ। বড় আমগাছের ছায়াভর বীথি। বুদ্ধদেবের চরণপূত সারনাথ কাছে। সেই দোর্দণ্ডপ্রতাপ মাতাল হরিকাকা সন্ন্যাসী । কি অদ্ভূত লাগছিল আজকের এই দিনটা । আমি আমতলায় বসে পড়লাম। বৃদ্ধ সাধু বল্লেন—তুমি এখানে কি ভাবে ? —সারনাথ যাচ্ছিলাম বন্ধুদের সঙ্গে । —কি কর ? —টেকনিকেল স্কুলে মাস্টারি করি বালিগঞ্জে । আপনি কি এখানে থাকেন ? —না । দিন পনেরো আগে এসেচি কাশী থেকে । কত কথা মনে হচ্ছিল । কোনটা আগে বলবো, কোনটা জানতে চাইব ? রাঙা কাকীমার মৃত্যুসংবাদ দিলাম। হরিকাকার মুখের ভাবের কোন পরিবর্তন হল না। চুপ করে রইলেন। বল্পেন—তোমার বাবা কেমন আছেন ? y —মারা গেছেন আজ সাত বছর । 尊 —গায়ের আর সবাইকার কি খবর ? মোটামুটি বললাম যতদূর সঙ্কর । গত পাঁচ বছরের খবর আমিও ঠিকমত জানি না বললাম। বেশী কিছু কথা হবার পূৰ্ব্বেই বন্ধুরা পাছে এসে পড়ে—এই ছিল আমার ভয় । কোন কথাটা আগে জিগ্যেস করবো ? হঠাৎ বল্লাম—কেমন আছেন হরিকাকা । হরিকাকা ধীরে ধীরে বল্পেন—খুব শাস্তিতে, খুব আনন্দে আছি বাবা । তারপর কিছুক্ষণ চুপ করে থেকে বল্লেন—অনেক অপরাধ করেছিলাম জীবনে না বুঝতে পেরে। তিনি দয়াময়, সব ক্ষমা করবেন। আমরা তার সন্তান । তিনি না ক্ষমা করলে शांछिह ८कांथांध्र । —এখন এখানেই থাকবেন ?