পাতা:বিভূতি রচনাবলী (তৃতীয় খণ্ড).djvu/২৬৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কেদার রাজা ఫిఆళి হেনা বললে, এবার যেন একটু নিমরাজি গোছের হয়েছে – দেখি — হেনা ঘরের মধ্যে ঢুকে গেল এবং মিনিট পাঁচেক পরেই হাসিমখে বার হয়ে এসে বললে, কই ফেল তো দেখি টাকা ? ওরা সবাই ব্যস্ত ও উৎসক ভাবে বলে উঠল—কি হ'ল। রাজী হয়েছে ? হেনা হাসিমুখে ঘাড় দলিয়ে বাহাদারির সরে বললে, এ কি যার তার কাজ ? এই হেনা বিবি ছিল তাই হ'ল। দেখি টাকা ? আমি যাকে বলে—সেই ঘাই পাতায় পাতায় বেড়াই—তাই— গিরীন বিরক্তির সরে বললে, আঃ, কি হ’ল তাই বলো না ? গেলে আর এলে তো ? —আমি গিয়েই বললাম, ভাই, প্রভাস ঠাকুরপোকে বলে এলাম তোমার বাবাকে খবর দিতে । সে গাড়ি নিয়ে এখনি যাচ্ছে বললে । আমি জোর করে কথাটা বলতেই আর কোন কথা বলতে পারলে না । কেবল বললে, প্রভাসদা যাবার আগে আমার সঙ্গে যেন দেখা করে যায়-বাবাকে কি বলতে হবে বলে দেবো-কমলা কিস্ত কিচ্ছ করছে না, মুখ বজে গিনি-শকুনির মত বসে আছে । গিরীন বললে, না প্রভাস, তুমি এখান থেকে সরে পড়ো, হেন গিয়ে বলকে তুমি চলে গিয়েছ—তুমি এসময় সামনে গেলে একথাও বলতে পারে যে আমিও ওই গাড়িতে বাবার কাছে গিয়ে নিজেই বলে আসি । তা ছাড়া তোমার চোখমাখ দেখে সন্দেহ করতে পারে— হেনার মত তুমি পারবে না-ও হ’ল অ্যাকট্রেস, ও যা পারবে, তা তমি আমি পারতে— হেনা বললে, বঙ্গরস থিয়েটারে আজ পাঁচটি বছর কেটে গেল কি মিথ্যে মিথ্যে ? ম্যানেজার সেদিন বলেছে, হেনা বিবি, তোমাকে এবার ভাবছি সাঁতার পাট দেবো-সেদিন আমার রানীর পাট" দেখে ও কি ওই কমলির কাজ ? অনেক তোড়জোড় চাই – গিরীন বললে, যাক ও সব কথা, কে কোথা দিয়ে শুনে ফেলবে । এত পরিশ্রম সব মাটি হবে । খসে পড়ো প্রভাস–তোমাকে আর না দেখতে পায়—মন আবার ঘরে যেতে কতক্ষণ, যদি বলে বসে-না, আমি প্রভাসদার মোটরে বাবার কাছে যাবো। আর কে যাচ্ছে এখন এত রাত্রে সেই পাগলা বড়োটার কাছে ? প্রভাস ইতস্ততঃ করে বললে, তবে আমি যাই ? —যাও—তোমায় আর না দেখতে পায় --পায়ের বেশী শব্দ করো না । —তোমরা ? তোমাদেরও এখানে থাকা উচিত হবে না, তা বুঝছ ? —আমরা যাচ্ছি। তুমি আগে যাও--কারণ তুমি চলে গেলে ওর হাতের তাঁর ছাড়া হয়ে যাবে, আর তো ও মত বদলাতে পারবে না ? হেনা বললে, আজ রাত্তিরটা কোনো রকম বেতাল না দেখে ও । তোমরা ওই হরি সা লোকটাকে আগলে রাখো— অরণ বললে, কোথায় সে ? প্রভাস বললে, আমি তাকে কমলির ঘরে বসিয়ে রেখে এসেছি। কুস্ত এখন যা আছে, আর দ-ঘণ্টা পরে তো থাকবে না। ওকে চেনো তো ? চীনেবাজারের অত বড় দোকানটা ফেল করেছে এই করে । বোকা তাই রক্ষে । ওকে সরিয়ে দাও বাবা, আজ রাত্তিরের মত গিরীন বললে, যাও না তুমি ? কেন দাঁড়িয়ে বকবক করছো ? প্রভাস চলে যেতে উদ্যত হলে গিরীন তাকে বললে, কোথায় থাকবে ? —আজ বাড়ি চলে যাই -বাবা সন্দেহ করবেন, বেশী রাত্তিরে বাড়ি ফিরলে – —ভাল কথা, তোমার বাবার সঙ্গে তো ওর বাবার খুব আলাপ, সেখানে গিয়ে সন্ধান নেবে না তো বড়ো ?