পাতা:বিভূতি রচনাবলী (তৃতীয় খণ্ড).djvu/২৭৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কৈদার রাজা ર૧હ শহর কি। এখন দেখা যাচ্ছে এখানকার তুলনায় দমদমার বাগানবাড়ি তাদের গড়শিবপুরের জঙ্গলের সমান ৷ o ভোরে উঠে সে গঙ্গাস্নান করে আসবে—এখান থেকে গঙ্গা কতদর কে জানে ? প্রভাসদাকে বললে মোটরে নিয়ে যাবে এখন। সকালে প্রভাসের বৌদিদির ডাকে তার ঘমে ভাঙল। জানলা দিয়ে রোদ এসে পড়েছে বিছানায় । অনেক বেলা পয্যন্ত ঘুমিয়েছে নাকি তবে ? ওর মুখে কেমন ধরনের ভয় ও উৎকণ্ঠার চিহ্ন প্রভাসের বৌদিদির চোখ এড়ালো না। সে বললে, ভাবনা কি দিদি, দেরিতে উঠেছ তাই কি ? তোমায় উঠে আপিস করতে হচ্ছে না তো আর । মুখ ধয়ে নাও, চা হয়ে গিয়েছে— শরৎ লজিত মুখে জানালে এত সকালে সে চা খায় না। তার চা খাওয়ায় কতকগুলো বাধা আছে—পনান করতে হবে, কাপড় ছাড়তে হবে—সে-সব হাঙ্গামায় এখন কোন দরকার নেই, থাক গে। গঙ্গা এখান থেকে কতদনর ? এক বার গঙ্গায় নাইতে যাবার বড় ইচ্ছে তার ৷ প্রভাসদা কখন আসবে ? প্রভাসের বোদি বললে, গঙ্গা নাইরে ? চল না আমাদের–আচ্ছা, দেখি বোসো। ওরা আসকে সব— o p - কখন আসবে ? আসতে বেশী দেরি করবে না তো প্রভাসদা ? —কি জানি ভাই । তবে দেরি হওয়ার কথা নয় তো । এখনি আসবে— —গঙ্গা নেয়ে এসে আমি বাবার কাছে যাবো-আমায় রেখে আসকে— —সে কি ভাই ? এ-বেলাটা থাকবে না এখানে ? থেকে খাওয়াদাওয়া করে ওবেলা— শরৎ চিন্তিত মুখে বললে, কাল রাতে গেলাম না, বাবা কত ভেবেছেন । আমার কি থাকবার জো আছে যে থাকব ? প্রভাসের বৌদিদি বললে, ওবেলা চলো ভাই সিনেমা দেখে দুজনে— --কি দেখে ? —সিনেমা-মানে বায়োসকাপ - টকি— —wo ---- * —দেখে চলো আমরা যশোর রোড দিয়ে মটোরে বেড়িয়ে আসবো । চাঁদের আলো 囚T夜一 * শরৎ হেসে বললে, মোটে একাদশী গেল বুধবারে, এরই মধ্যে চাঁদের আলো কোথায় পাবেন ? আপনারা কলকাতার লোক, আপনাদের সে খবরে কোনো দরকার নেই— ওখানে সারারাতই গ্যাসের আলো-ইলেকট্রিক আলো -- ঈষৎ অপ্রতিভের সরে প্রভাসের বৌদিদি বললে, তা বটে ভাই, যা বলেছ। ওসব খেয়াল থাকে না । এমন সময় পাশে কমলাদের ঘর থেকে জড়িত স্বরে কে বলে উঠল—আরে ও হেনা বিবি এদিকে এসো না চাঁদ, আলোর সইচটা যে খুজে পাচ্ছি নে-ও হেনা বিবি— । প্রভাসের বৌদিদি হঠাৎ খিলখিল করে হেসে উঠে বললে, আ মরণ, বেলা সাড়ে সাতটা বাজে—উনি আলোর সুইচ খ:জে বেড়াচ্ছেন এখন— শরৎ বললে, কি হয়েছে, কে উনি ? --কে জানে কে ? মাতালের মরণ যত—পাশের বাড়ির এক বড়ো। রোজ ভাই অমনি করে – শরৎও হেসে ফেললে মাতাল বড়োটার কথা ভেবে । বললে, ডাকছে কাকে ? ও যেন পাশের ঘর থেকে কথা বললে বলে মনে হ’ল—না ?