পাতা:বিভূতি রচনাবলী (তৃতীয় খণ্ড).djvu/৭৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


Q8 বিভূতি-রচনাবলী তাহার সাক্ষী আছে, কিন্তু তাহারা তো কথা বলিতে পারে না ! তিনদিন পর সে বৈকালের দিকে কাটনী লাইনের একটা ছোট্ট স্টেশনে নিজের বিছানা ও স্টকেসটা লইয়া নামিয়া পড়িল । হাতে পয়সা বেশী ছিল না বলিয়া প্যাসেঞ্জার ট্রেনে এলাহাবাদ আসিতে বাধ্য হয়—তাই এত দেরি । কয়দিন স্নান নাই, চুল রক্ষ, উচ্চক-খচক— জোর পশ্চিমা বাতাসে ঠোঁট শকাইয়া গিয়াছে। ট্রেন ছাড়িয়া চলিয়া গেল। ক্ষুদ্র স্টেশন, সন্মখে একটা ছোট্ট পাহাড় । দোকানবাজারও চোখে পড়িল না । স্টেশনের বাহিরের বাঁধানো চাতালে একটু নিজন স্থানে সে বিছানার বাডিলটা খলিয়া পাতিল । কিছুই ঠিক নাই, কোথায় যাইবে, কোথায় শইবে, মনে এক অপর্বে অজানা আনন্দ । শতরঞ্জির উপর বসিয়া সে খাতা খলিয়া খানিকটা লিখিল, পরে একটা সিগারেট খাইয়া সটকেসটা ঠেস দিয়া চুপচাপ বসিয়া রহিল । টোকা মাথায় একজন গোঁড় যুবককে কাঁচা শালপাতার পাইপ খাইতে খাইতে কৌতুহলী-চোখের কাছে আসিয়া দড়িাইতে দেখিয়া অপ বলিল, উমেরিয়া হিয়াসে,কেৰ্ত্তা দর হোগা ? so প্রথমবার লোকটা কথা বুঝিল না। দ্বিতীয়বারে ভাঙা হিন্দীতে বলিল, তিশ মণীল । ত্রিশ মাইল রাস্তা ! এখন সে যায় কিসে ? মহা মুশকিল ! জিজ্ঞাসা করিয়া জানিল, ত্রিশ মাইল পথের দ্বধারে শুধ বন আর পাহাড়। কথাটা শুনিয়া অপর ভারি আনম্বৰ হইল। বন, কি রকম বন ? খুব ঘন ? বাঘ পর্যন্ত আছে ? বাঃ –কিন্তু এখন কি করিয়া যাওয়া যায় ? কথায় কথায় গোঁড় লোকটি বলিল, তিন টাকা পাইলে সে নিজের ঘোড়াটা ভাড়া দিতে রাজী আছে । অপর রাজী হইয়া ঘোড়া আনিতে বলতে লোকটা বিস্মিত হইল। আর বেলা কতটুকু আছে, এখন কি জঙ্গলের পথে যাওয়া যায় ? অপ নাছোড়াবান্দা । সামনের এই সন্দর জ্যোৎস্না ভরা রাত্রে জঙ্গলের পথে ঘোড়ায় চাপিয়া যাওয়ার একটা দন্দ'মনীয় লোভ তাহাকে পাইয়া বসিল—জীবনে এ সংযোগ কটা আসে, এ কি ছাড়া যায় ? গোঁড় লোকটি জানাইল, আরও একটাকা খোরাকি পাইলে সে তলপি বাঁহতে রাজী আছে। সন্ধ্যার কিছু পম্বে অপ ঘোড়ায় চড়িয়া রওনা হইল-পিছনে মোট-মাথায় লোকটা। স্নিগ্ধ রাত্রি-স্টেশন হইতে অলপদরে একটা বস্তি, একটি পাহাড়ী নালা, বাঁক ঘুরিয়াই পথটা শাল-বনের মধ্যে ঢুকিয়া পড়িল। চারিধারে জোনাকি পোকা জলিতেছে— রাত্রির অপবে নিস্তবধতা, রয়োদশীর চাঁদের আলো শাল-পলাশের পাতার ফাঁকে ফাঁকে মাটির উপর যেন আলো-অাঁধারের বাটি-কাটা জাল বুনিয়া দিয়াছে। অপর পাহাড়ী লোকটার নিকট হইতে একটা শালপাতার পাইপ ও সে-দেশী তামাক চাহিয়া লইয়া ধরাইল বটে, কিন্ত দুটান দিতেই মাথা কেমন ঘরিয়া উঠিল –শালপাতার পাইপটা ফেলিয়া एब्ल । & বন সত্যই ঘন-পথ অাঁকা-বাঁকা, ছোট ঝরণা এখানে-ওখানে, উপল-বিছানো পাহাড়ী নদীর তীরে ছোট ফানের ঝোপ, কি ফুলের স্বাস, রারিচর পাখির ডাক । নিজ'নতা, श्राख्छौच्न निण्छनउा ! § মাঝে-মাঝে সে ঘোড়াকে ছটাইয়া দেয়, ঘোড়া-চড়া অভ্যাস তাহার অনেকদিন হইতে আছে । বাল্যকালে মাঠের ছটা ঘোড়া ধরিয়া কত চড়িয়াছে, চাঁপদানীতেও ডাক্তারবাবটির