পাতা:বিভূতি রচনাবলী (তৃতীয় খণ্ড).djvu/৯২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


অপরাজিত bషి গায়ের রং যে ফস" তাও নয়, তবে মুখে এমন কিছল আছে যাতে একবার দেখিলে বার বার চাহিয়া দেখিতে ইচ্ছা করে । ঘাড়ের কাছে একটা যৌতুকচিহ্ন, চুল বেশ বড় বড় ও কোঁকড়ানো । বিবাহের দিনও উভয় পক্ষের সন্মতিক্লমে ধায্য হইয়া গেল । দেবব্রত সঙ্গতিপন্ন গহসহ-ঘরের ছেলে । দুঃখ কষ্ট কাহাকে বলে জানে না, এ পয্যন্ত বরাবর যথেষ্ট পয়সা হাতে পাইয়াছে, তাহার পিসেমহাশয় অপত্রেক, তাঁহার সম্পত্তি ও কলিকাতার দ’খানা বাড়ি দেবব্রতই পাইবে । কিন্তু পয়সা অপব্যয় করার দিকে দেবব্রতর ঝোঁক নাই, সে খুব হিসাবী ও সতক এ বিষয়ে । সাংসারিক বিষয়ে দেবব্রত খুব হ:শিয়ার —পাটনায় যে চাকরিটা সে সম্প্রতি পাইয়াছে, সে শধে তাহার যোগাড়-যন্ত্র ও সুপারিশ ধরিবার কৃতিত্বের পুরস্কার—নতুবা কুড়ি-বাইশ জন বিলাত-ফেরত অভিজ্ঞ ইঞ্জিনীয়ারের দরখাস্তের মধ্যে তাহার মত তরণ ও অনভিজ্ঞ লোকের চাকুরি পাইবার কোন আশা ছিল না। শাঁখারিটোলায় দেবব্রতের পিসেমহাশয় তারিণী মিত্রের বাড়ি হইতেই দেবব্রত বিবাহ করিতে গেল । পিসিমার ইচ্ছা ছিল খুব বড় একটা মিছিল করিয়া বর রওনা হয়, কিন্তু পিসেমহাশয় বুঝাইলেন ও সব একালের ছেলে—বিশেষ করিয়া দেবব্রতর মত বিলাত-ফেরত ছেলে— পছন্দ করিবে না । মায়ের নিকট বিবাহ করিতে যাইবার অনুমতি প্রাথনা করিবার সময় দেবব্রতর চোখ ভিজিয়া উঠিল—বেগগত স্বামীকে মরণ করিয়া দেবব্রতর মা-ও চোখের জল ফেলিলেন—সবাই বকিল, তিরস্কার করিল । একজন প্রতিবেশিনী হাসিয়া বলিলেন—দোরধরণীর টাকা কৈ ?-- 鲁 দেবব্রতর পিসিমা বলিলেন—আমার কাছে গণে নিও মেজবোঁ । ও-কি দোর-ধরা হ’ল ? আমার ছেলেবেলায় আমাদের বাঙাল দেশে নিয়ম ছিল দেখেছি, সাতজন এয়ো আর সাতজন কুমারী এই চৌদ্দজনকে দোর-ধরণীর টাকা দিয়ে তবে বর বেরতে পেত বাড়িথেকে। একালে তো সব দাঁড়িয়েছে— দেবব্রত একটুখানি দাঁড়াইল । ফিরিয়া বলিল—মা, শোন একটু।-- আড়ালে গিয়া চুপি চুপি বলিল—চাটুয্যে-বাড়ির মেয়েটা দোর ধরার জন্য দাঁড়িয়েছিল, আমি জানি, ছোট পিসিমা তাকে সরিয়ে দিয়েছেন—এ-সবেতে আমার মনে বড় কষ্ট হয়, মা । এই দশ টাকার নোটটা রাখো, তাকে তুমি দিও—কেন তাকে সরালে বল তো—আমি জানি অবিশ্যি কেন সরিয়েছে—কিন্তু এতে লোকের মনে কস্ট হয় তাও ওরা বোঝে না ! মা বলিলেন—ও-কণা তোর ওদের বলবার দরকার নেই–টাকা দিলি আমি দেবো এখন । ছোট ঠাকুরঝির দোষ কি, বিধবা মেয়েকে কি বলে আজ সামনে রাখে বল না ? হিন্দরে নিয়মগুলো তো মানতে হবে, সবাই তো তোমার মত বেহ্মজ্ঞানী হয়নি এখনো । মেয়েটার দোষ দিইনে, তার আর বয়স কি—ছেলেমানষে—সে না হয় অত বোঝে-সোঝে না, আমোদে নেচে দোর ধরবে বলে দাঁড়িয়েছে—তার বাপ-মায়ের তো এটা দেখতে হয়। শুভকাজের দিন বিধবা মেয়েকে কেন এখানে পাঠানো বাপ ? তা নয়-rগরীব কিনা, পাঠিয়েছে—যা কিছ ঘরে আসে—। যাক । আমি দেবো এখন—তা হ’্যা রে, পাঁচটা দিলেই তো হ’ত—এত • • ۔ ? ہ5Fچt —না মা, ঐ থাক, দিও । ছোটপিসিন্ধাকে বলো বুঝিয়ে ওতে শুভকাজ এগোয় না, আরও পিছিয়ে যায় । দু-তিনখানা বাড়ির মোড়ে চাটুয্যে-বাড়িটা। ইহারা সবাই ছাপাখানায় কাজ করে, বন্ধ চাটুয্যে মহাশয়ও আগে কম্পোজিটরের কাজ করিতেন, আজকাল চোখে দেখেন না বলিয়া ছাড়িয়া দিয়াছেন। আজকাল তাঁহার কাজ প্রতিবেশীর নিকট অভাব জানাইয়া আধলি ধার করিয়া বেড়ানো । দেবরত ইহাদের সকলকেই অনেক দিন হইতে চেনে।