পাতা:বিভূতি রচনাবলী (দ্বিতীয় খণ্ড).djvu/১৬৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


অপরাজিত S8) কখন বেলা পাঁচটা বাজিয়া গিয়াছিল, কখন একটু দূরে একটা ফুটবল টিমের খেলা আরম্ভ হইয়া গিয়াছিল—একটা বল দুৰ্ম্ম করিয়া তাহার একেবারে সামনে আসিয়া পড়াতে তাহার চমক ভাঙিল। উঠিয়া সে বলটা দুহাতে ধরিয়া সজোরে একটা লাথি মারিয়া সেটাকে ধাবমান লাইন্যানের দিকে ছুড়িয়া দিল। একদিন পথে হঠাৎ প্রণবের সঙ্গে দেখা । দুজনেই ভারি খুশী হইল। সে কলিকাতায় আসিয়া পর্যন্ত অপুকে কত জায়গায় খুজিয়াছে, প্রথমটা সন্ধান পায় নাই, পরে জানিতে পারে অপূর্ব পড়াশুনা ছাড়িয়া দিয়া কোথায় চাকুরিতে ঢুকিয়াছে। প্রণব রাজনৈতিক অপরাধে অভিযুক্ত হইয়া বৎসর-থানেক হাজতভোগের পর সম্প্রতি খালাস হইয়াছে, হাসিয়া বলিল— কিছুদিন গবর্ণমেণ্টের অতিথি হয়ে এলুম রে, এসেই তোর কত খোজ করেছি—তারপর, কোথায় চাকরি করিস, মাইনে কত ? অপু হাসিমুখে বলিল—খবরের কাগজের অফিসে, মাইনে সত্তর টাকা । সর্বৈব মিথ্যা। টাকা চল্লিশেক মাইনে পায়, কি একটা ফণ্ড বাবদ কিছু কাটিয়া লওয়ার পর হাতে পৌছায় তেত্রিশ টাকা ক’আনা । একটু গর্বের মুরে বলিল, চাকরি সোজা নয়, রয়টারের বাংলা করার ভার আমার ওপর–বুধবারের কাগজে “আট ও ধর্ম বলে লেখাটা আমার, দেখিস পড়ে। প্রণব হে হো করিয়া হাসিয়া উঠিয়া বলিল—তুষ্ট ধর্মের সম্বন্ধে লিখতে গেলি কি নিয়ে রে। কি জানিস তুই— —ওখানেই তোমার গোলমাল। ধর্ম মানে তুই যা বলতে চাইছিল, সেটা হচ্ছে collretive ধর্ম, আমি বলি ওটার প্রয়োজনীয়তা ছিল আদিম মানুষের সমাজে, আর একটা ধর্ম আছে, যা কিনা নিজের নিজের, আমার ধর্ম আমার, তোমার ধর্ম তোমার, এইটের কথাই আমি—যে ধর্ম আমার নিজের তা যে আর কারো নয়, তা আমার চেয়ে কে ভাল বোঝে ? —বৌবাজারের মোড়ে দাড়িয়ে ওসব কথা হবে না, আয় গোলদীঘিতে লেকচার দিবি । —শুনৃবি তুই ? চল তবে— গোলদীঘিতে আসিয়া দুজনে একটা নির্জন কোণ বাছিয়া লইল ! প্রণব বলিল—বেঞ্চের উপর দাড় উঠে । অপু বলিল—সঁড়াচ্ছি, কিন্তু লোক জমবে না তো ? তা হলে কিন্তু আর একটি কথাও বলব না । তারপর আধঘণ্টাটাক অপু বেঞ্চের উপর দাড়াইয়া ধর্ম সম্বন্ধে এক বক্তৃতা দিয়া গেল । সে নিষ্কপট ও উদার—া মুখে বলে মনে মনে তাহ বিশ্বাস করে। প্রণব শেষ পর্যন্ত শুনিবার পর ভাবিল—এসব কথা নিয়ে খুব তো নড়াচড করেছে মনের মধ্যে ? একটু পাগলামির ছিট, আছে, কিন্তু ওকে ঐজন্তেই এত ভালবাসি। অপু বেঞ্চ হইতে নামিয়া বলিল—কেমন লাগল - “