পাতা:বিভূতি রচনাবলী (দ্বিতীয় খণ্ড).djvu/৩২৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


૭હ ૨ বিভূতি-রচনাবলী জ্ঞানের অধিষ্ঠাত্রী দেবীর এক মূৰ্ত্তি গড়ি। মূর্তিটি আমার বড় প্রিয় ছিল। ওই মূর্তিটির টানেই অনেক দিন পরে আবার পৃথিবীতে ফিরে এলাম। দেশের লোকে আমায় নাস্তিক বলতে ; কারণ, আমি একেই বৌদ্ধ ছিলাম, তার ওপর সাধারণভাবের ধর্মবিশ্বাস আমার ছিল না। যে অরুণচ্ছটারক্ত হিমবান শৃঙ্গ জনহীন তুষার-রাজ্য আলোকিত করেছে—যা তোমায় দেখিয়েছি, তা সত্যের রূপ! সাধারণ লোকের পক্ষে সে-সত্য দুরধিগম্য। আমার কথা ধরি না, কারণ আমি নগণ্য । কিন্তু যে বিশাল সঙ্ঘারাম আমাদের সময়ে সমস্ত ভারতবর্ষে জ্ঞানের আলো জালিয়ে রেখেছিল, তার সমস্ত অধ্যাপকই সে উচ্চ দার্শনিক সত্যতে চিরদিন লক্ষ্য রেখে চলেছিলেন । আমিও অনেক বিপদ মাথা পেতে নিয়ে, সাধ্যমত র্তাদের পদাঙ্ক অহুসরণ করেছিলাম। যেখানে এখন আছি, সেখানে সে-সব যুগপূজ্য জ্ঞান-তপস্বী আমার নিত্য সঙ্গী। তোমরাও অমৃতের পুত্ৰ—সে লোক তোমাদের জন্তেও নির্দিষ্ট অাছে। অজ্ঞানতার বিরুদ্ধে তোমাদের অভিযান জয়যুক্ত হোক।. বৌদ্ধ ভিক্ষু কোথায় মিলিয়ে গেলেন। কিসের শবে চমক্‌ ভেঙে গিয়ে দেখি, ভোর হয়েছে বাইরের বারান্দায় চাকরের বর্ণটার শব্দ পাওয়া যাচ্ছে । ডা: সেন গল্প শেষ করলেন। আমি জিজ্ঞাসা করলাম—মূৰ্ত্তিটা কোথায় ? ডাঃ সেন বললেন—ঢাকা মিউজিয়মে । দাতার স্বর্গ শ্ৰেষ্ঠ কর্ণসেন ছিলেন খুব দাতা। পথের দুঃখী আতুর নিরাশ্রয় লোককে চিরদিন তিনি আশ্রয় দিয়ে এসেছেন। সকলে বলতে র্তার মত লোক আর হয় না ; স্বয়ং প্রজাপতি ব্ৰঙ্গা নেমে এসেছেন নবরূপ ধরে প্রজার দুঃখ দূর করতে। সামান্ত ভাবে থাকলেও কর্ণসেন ছিলেন মস্ত ধনী। এই সব ধন বিতরণ করে তিনি চিরদিন মহা মুখ পেয়ে এসেছেন। পথ চলতে চলতে অঙ্গ অন্ত কৃপণ-ধনীদের মূল্যবান অশ্বযোজিত রথে রাজপথ কঁাপিয়ে চলে যেতে দেখে কর্ণসেন মনে মনে ভাবতেন—এই সব স্বাধপর ধনীর চেয়ে আমি কত বড়। পরক্ষণেই কিন্তু তিনি নিজেকে সামলে নিয়ে ভাবতেন —ন না, ও-কথা না, কে কাকে দেয় । ভগবান শুধু আমার মধ্যে দিয়েই তারই ধন তার জীবদের দিচ্ছেন বই তো নয়। তখনই আবার তার মনে হোত—আমি কি নিরহঙ্কার । আছে আছে, আমার ভেতরে কিছু না থাকলেই কি আর এত লোক থাকতে কেবল আমাকেই দিয়ে ভগবান তার.অমনি আবার সামলে নিয়ে জোর কঞ্চেই মনকে বোঝাতেন-না না, ওকি, না, ছিঃ ! কিণ্ড অহঙ্কার যতই জুড়ে ফেলবার চেষ্ট করুন না কেন, মনের কোন গোপন-কক্ষে এ ভাৰ তার জেগেই থাকতো—আমি এমন যে দানের আত্মপ্রসাদটাও চাপতে চেষ্টা করছি। ওই সব লোকে আর জামাতে কত তফাত ! আমি একজন সাধু ব্যক্তি !