পাতা:বিভূতি রচনাবলী (দ্বিতীয় খণ্ড).djvu/৪৪১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


অভিযাত্রিক 8se —লা, এটি আমাদের পাশের বাড়ির। ও এসে আমাদের বাড়িভে মাঝে মাঝে সাহায্য করে আমার স্ত্রীর। বড় ভালো মেরেটি। ওরও কেউ নেই, দিদিমার কাছে মানুষ হচ্চে— দিদিমার অবস্থাও বিশেষ ভালো নয়, গ্রামের লোকদের দয়ায় একরকম করে চলে । বাঙালী পরিবারের দুঃখের কাহিনী সব জায়গাতেই অনেকটা এক রকম, কি আমার নিজের জেলায়, কি সুদূর ঢাকা জেলায়। শুনে দুঃখিত হওয়া ছাড়া অন্ত কিছু করার নেই। ওখান থেকে বিদায় নিয়ে স্কুলে চলে আসবার পথে সন্ধ্যা হয়ে এল। ড্রইং মাস্টার আমার সঙ্গেই ছিল—কি জানি কেন এই নিরীহ গ্রাম্য ইস্কুলমাস্টারের ওপর আমার একটা অদ্ভূত ধরনের মায়া জন্মেচে। যেন মনে হচ্চে ওকে ছেড়ে যেতে আমার খুব কষ্ট হবে। আমার কলেজের সহপাঠী বন্ধুটির চেয়েও এই লোকটি আমার আপনার জন হয়ে উঠেচে এই ক-দিনে। বললুম—আপনি কলকাতার দিকে আমুন না কেন ? —কি যে বলেন বাবু, খেতেই পাইনে তার কোথা থেকে ভাড়া যোগাড় করে কলকাতার যাবো। আমার এক মাসের মাইনে। আর কলকাতায় গিয়েই বা আমার মতো নর্মাল পাস পণ্ডিত কত টাকা মাইনে পাবে ? কথাটার মধ্যে যুক্তি ছিল। সুতরাং চুপ করে রইলুম। অমিয়া স্কুলের কাছে পৌঁছুতেই কতকগুলি ছেলে আমাদের আলো হাতে এগিয়ে নিতে এল। ওয়া আমাদের স্কুলের হলে গেল নিয়ে। সেখানে গিয়ে দেখি মহাকাণ্ড । খুব রান্নাবান্না চলচে। বড় ডেকে পোলাও চড়েচে, প্রকাও দুটাে বড় মাছ কোটা हर्क, আরও দু ডেক পোলাও রাধবার মালমশলা ডালায়। ছেলেদের উৎসাহ ছাপিয়ে উঠেচে মাস্টারদের উৎসাহ–ৰ্তারা নিজেরাই ছুটোছুটি করে রান্নার তদারক করচেন,কোথায় খাওয়ার পাত পাতা হবে তার ব্যবস্থা করচেন—ইত্যাদি । আমায় ঘিরে কয়েকজন মাস্টার এসে দাড়ালেন। একজন বৃদ্ধ শিক্ষক বললেন—আপনাকেই খুঁজচি—কোথায় গিয়েছিলেন ? ক-দিন এলেচেন, আমাদের মাস্টারবাবুর পরম বন্ধু আপনি, আপনার সঙ্গে আলাপ করবার জছে— আমি ডুইং মাস্টারকে দেখিয়ে বললুম-এর বাড়ি চায়ের নিমন্ত্রণ ছিল— —আমাদের হরনাথের বাড়ি ? বেশ–বেশ— এই রকম একটি অপরিচিত স্থানে আমি সেদিন যে আন্তরিক আপ্যারন, হস্ততা ও সমাদর লাভ করেছিলাম, তা জীবনে কখনো ভুলবার নয়। অথচ আমার সঙ্গে তাদের কোনো স্বার্থের সম্পর্ক নেই কোনো দিক দিয়েই—আমার খাতির করে তাদের লাভ কি ? আমায় ও আমার বন্ধুটিকে মাঝখানে নিয়ে ওঁরা খেতে বসলেন। কত রকম গল্পগুজব, হাসিখুশি । 尊 একজন শিক্ষক বললেন-আমাদের দেশ কেমন লাগলো আপনার ? —বড় ভালো লেগেচে, পূর্ববঙ্গের লোকের প্রাণ অাছে।