পাতা:বিভূতি রচনাবলী (সপ্তম খণ্ড).djvu/১৬৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


- বিভূতি-রচনাবলী —আপনিও আসবেন। আপনাকে ক্লাস-টাঙ্কের একটা চার্ট করতে হবে গ্রীষ্মের ছুটি পর্ষপ্ত । বন্ধুবাবুর মুখ শুকাইয়া গেল। আমতা আমতা করিয়া বলিলেন, আমি স্তার, আমার শালীর, মানে—বিয়ে—দেশে যেতে হবে সেখানে । আমিই সব দেখাশুনো করব— হঠাৎ মনে পড়িল পৌষ মাণে বিবাহ হয় না হিন্দুর, এ কথা সাহেব না জানিলেও অন্যান্য মাস্টারেরা সবাই জানে, হয়তে। আলমও জানে। আলম সাহেবকে বলিয়া দিতেও পারে। তাই তাড়াতাড়ি সামলাইয়া লইয়া বলিলেন, বিয়ে এই সামনের বুধবারে, কিন্তু ছুটিতে আমার না গেলে— —ইয়েল, ইয়েস, আই আণ্ডারস্ট্যাও। সভা ভঙ্গ হইল। সাহেবের ঘর হইতে বাহির হইয়া যদুবাবু রামেন্দুবাৰুকে পাকড়াও করিলেন । - —ও রামেন্ধুবাবু, আমায় গোটা দশেক টাকা দিতে বলুন সাহেবকে। করে দিতেই হবে। না হলে মারা যাব। হাতে কিছু নেই। টুইশানির ছেলে পালিয়েছে। কোথায় পয়সা পাই বলুন তো ? ক্ষেত্রবাৰু বাড়ী ফিরিতেই অনিলা ব্যস্তসমস্ত হইয়া বলিল, এসেছ ? শোন, সব পালাচ্ছে। পাড়া ফাক হয়ে গেল যে সোমবার থেকে নাকি হাওড়ার পুল খুলে দেবে, রেলগাড়ী বন্ধ ক'রে দেবে ? —কে বললে ? —কে বলল আবার—সবাই বলছে। তোমার ছুটির কদিন দেরি 1 এর পর যাওয়া যাবে না কোথাও—ঘোড়ার গাড়ির ভাড়া নাকি দশ টাকা ক’রে হয়েছে—বোমা নাকি শীগগির পড়বে। সিঙ্গাপুর ব্লকেড, করেছে, দেখেচ তো ? ক্ষেত্রবাবুর ভয় হইয়া গেল। তাই তো, ঘোড়ার গাড়ীর ভাড়া চড়িয়া গেলে কী করিয়া কলিকাতা ত্যাগ করিবেন ? বলিলেন, কিন্তু কোথায় যাওয়া যায় বল তো ? জায়গা তো দেখছি এক আস সিংড়ি । কতকাল সেখানে যাই নি । নিভা বেঁচে থাকতে একবার গরমের ছুটিতে সেখানে গিয়েছিলাম। বাড়িম্বর এতদিনে ইটের স্তুপ হয়েছে পড়ে। বেজায় জঙ্গল লে গায়ে । -छल, श्रब्रl शाहे । —পয়লা ! অত টাকা কোথায় ? স্কুলে এক পয়সা দিলে না। —আমার বাক্ষে পাঁচ-ছটা টাকা আছে। আর কিছু ধার কর । —কে দেবে ধার ? সে বাজার নয়। –কিন্তু ঘা হয় কর তাড়াতাড়ি। এর পর আর কলকাতা থেকে বেরুনো খাবে না